Back

ⓘ ব্যবসা




                                               

ব্যবসা

অর্থশাস্ত্রের পরিভাষায় ব্যাবসায় এক ধরনের সামাজিক কর্মকাণ্ড যেখানে নির্দিষ্ট সৃষ্টিশীল ও উৎপাদনীয় লক্ষ্যকে সামনে রেখে বৈধভাবে সম্পদ উপার্জন বা লাভের উদ্দেশ্যে লোকজনকে সংগঠিত করা হয় ও তাদের উৎপাদনীয় কর্মকাণ্ড রক্ষণাবেক্ষণ করা হয়। ব্যক্তির মুনাফা পাওয়ার আশায় পণ্যদ্রব্য ও সেবাকর্ম উৎপাদনের মাধ্যমে উপযোগ সৃষ্টি এবং মানুষের বস্তুগত ও অবস্তুগত অভাব পূরণের লক্ষ্যে সেগুলো বণ্টন এবং এর সহায়ক সবরকম বৈধ, ঝুঁকিবহুল ও ধারাবাহিক কার্যকে ব্যাবসা বলে। আইনানুসারে, ব্যাবসা বলতে সেই সংগঠনকে বুঝায়, যা অর্থের বিনিময়ে ভোক্তাকে পণ্য বা সেবা কিংবা, দুটো সুবিধাই প্রদান করে। পুঁজিবাদ অর্থনীতিতে ব্যবসায় ল ...

                                               

তোতাল (ব্যবসা প্রতিষ্ঠান)

তোতাল, যার পূর্ণনাম তোতাল সোসিয়েতে আনোনিম, একটি ফ্রান্স-ভিত্তিক বহুজাতিক খনিজ তেল ও গ্যাসের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এটি ১৯২৪ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এটি বিশ্বের ৭টি সর্ববৃহৎ খনিজ তেল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলির একটি। তোতাল খনিজ তেল ও গ্যাস সংক্রান্ত প্রায় সমস্ত ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত, যেগুলির মধ্যে আছে অপরিশোধিত খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধান, এগুলির উত্তোলন, শক্তি উৎপাদন, পরিবহন, পরিশোধন, খনিজ তেলজাত দ্রব্য বাজারজাতকরণ এবং আন্তর্জাতিক অপরিশোধিত খনিজ তেল ও সংশ্লিষ্ট পণ্যের ব্যবসা। এছাড়া তোতাল একটি বৃহৎ মাপের রাসায়নিক দ্রব্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান। তোতাল ব্যবসা প্রতিষ্ঠানটির ...

                                               

যৌথ মূলধন ব্যবসা

যৌথ মূলধন ব্যবসা হল একটি ব্যবসায় সত্তা বা প্রতিষ্ঠান যেখানে অংশীদারীরা শেয়ার এবং বিভিন্ন প্রকার স্টক ক্রয়ের মাধ্যমে কোম্পানির মালিকানা লাভ করেন। অংশীদারীরারা তাদের শেয়ার অবাধে হস্তান্তর করতে পারেন। আধুনিক যুগে যৌথ মূলধন ব্যবসাকে কর্পোরেশন বলা হয়। যেখানে কোম্পানি কৃত্রিম ব্যক্তিসত্তার অধিকারী এবং ব্যক্তিমালিকানা হতে স্বাধীন ও স্বতন্ত্র। সাধারণত অংশীদারীদের দায় শেয়ার সংখ্যা দ্বারা সীমাবদ্ধ থাকে। প্রথম যৌথ মূলধন ব্যবসা আইন ১৮৪৪ সালে ইংল্যান্ডে চালু হয়। অধ্যাপক এম. এইচ. বোখারীর মতে, "মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে কতিপয় ব্যক্তি সম্মিলিতভাবে আইনসম্মত উপায়ে যে ব্যবসায় করে তাকে যৌথ মূলধনী কো ...

                                               

বাংলাদেশের সর্বাধিক ব্যবসাসফল চলচ্চিত্রসমূহের তালিকা

বাংলাদেশী চলচ্চিত্র শিল্প ঢালিউড নামে জনপ্রিয়ভাবে পরিচিত। এটি বিশ্বের ১১তম বৃহত্তম চলচ্চিত্র উৎপাদন কেন্দ্র। ঢাকার নবাব পরিবার বাংলাদেশে প্রথম চলচ্চিত্র প্রযোজনা করে। সর্বপ্রথম বাংলা চলচ্চিত্রের ছিল সুকুমারী আর তাপর দ্যা লাস্ট কিস । কিন্তু সর্বপ্রথম পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র নির্মিত হয় ১৯৫৬ সালে মুখ ও মুখোশ । স্বাধীনতার আগে ৬৬-৬৭ থেকেই ভালো চলচ্চিত্র নির্মাণ শুরু হয় এবং ১৯৭৩-১৯৮৩ সময়টা বাংলাদেশী চলচ্চিত্রের স্বর্ণযুগ ছিল। এর পর নব্বইয়ের দশকের শুরু অবধি ব্যবসা কিছুটা দমে গেলেও অনেক ভালমানের চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়েছে। বাংলাদেশের সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবি বেদের মেয়ে জোসনা । তোজাম্মেল হক বকুল পর ...

                                               

ই-বাণিজ্য

ইলেকট্রনিক কমার্স বা ই-কমার্স বা ই-বাণিজ্য একটি বাণিজ্য ক্ষেত্র যেখানে কোনো ইলেকট্রনিক সিস্টেম এর মাধ্যমে পণ্য বা সেবা ক্রয়/ বিক্রয় হয়ে থাকে। আধুনিক ইলেকট্রনিক কমার্স সাধারণত ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব এর মাধ্যমে বাণিজ্য কাজ পরিচালনা করে। এছাড়াও মোবাইল কমার্স, ইলেকট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার ও অন্যান্য আরো কিছু মাধ্যম ব্যবহৃত হয়।

                                               

সাতকানিয়া উপজেলা

সাতকানিয়া উপজেলার আয়তন ২৮২.৪০ বর্গ কিলোমিটার। ২২°০১´ থেকে ২২°১৩´ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯১°৫৭´ থেকে ৯২°১০´ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ জুড়ে এ উপজেলার অবস্থান। সাতকানিয়া উপজেলার উত্তরে চন্দনাইশ উপজেলা, উত্তর-পশ্চিমে আনোয়ারা উপজেলা, পশ্চিমে বাঁশখালী উপজেলা, দক্ষিণে লোহাগাড়া উপজেলা এবং পূর্বে বান্দরবান জেলার বান্দরবান সদর উপজেলা অবস্থিত । সমতল ভূমি, পাহাড় ও সাঙ্গু নদী ও ডলু নদী দ্বারা বেষ্টিত সাতকানিয়া উপজেলা চট্টগ্রাম জেলা সদর থেকে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত।

অংশীদারি কারবার
                                               

অংশীদারি কারবার

অংশীদারি ব্যবসায় হলো চুক্তির দ্বারা দুই বা ততোধিক ব্যক্তির মধ্যে বৈধ উপায়ে অর্থ উপার্জনের নিমিত্তে যে ব্যবসায় গড়ে উঠে। ১৯৩২ সালের অংশীদারি আইন অনুসারে, সাধারণ অংশীদারি ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে সদস্য সংখ্যা সর্বনিম্ন ২জন ও সর্বোচ্চ ২০জন হবে এবং ব্যাংকিং অংশীদারি ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে ২জন থেকে সর্বোচ্চ ১০জন হবে। চুক্তিই অংশীদারি ব্যবসায়ের মূল ভিত্তি। চুক্তি ছাড়া কোনো অংশীদারি ব্যবসায় হতে পারে না।

দোকান
                                               

দোকান

দোকান হচ্ছে পণ্য কেনাকাটার কেন্দ্র। ক্রেতা এখানে অর্থের বিনিময়ে বিক্রেতার কাছ থেকে পণ্য কিনে থাকেন। দোকানে সাধারণতঃ খুচরা কেনাকাটা করা হয়ে থাকে। ক্রেতারা সরাসরি ভোগ করার জন্যে দোকান থেকে পণ্য কেনেন। ব্যবসায়ের পরিভাষায়, খুচরা বিক্রেতা উৎপাদনকারী বা আমদানীকারকের কাছ থেকে সরাসরি নিজেই অথবা পাইকারী বিক্রেতার মাধ্যমে পাইকারী দরে পণ্য ক্রয় করে প্রান্তিক ব্যবহারকারীর নিকট তার ক্ষুদ্রতর অংশ বিক্রয় করেন।তা বিত্রয় করে মুনাফা পাই.যা তার পরিবারে বরণফোসন করে। বাকি আংশ ব্যবসায়ের জন্য মূলধন রাখে

বাণিজ্য
                                               

বাণিজ্য

বাণিজ্য হল পণ্য বা সেবা অথবা উভয়ের আদান প্রদানকে বুঝায়। একে ব্যবসা ও বলা হয়। শিল্পে উৎপাদিত কোনো পণ্য বা সেবা সরাসরি গুদাম থেকে ভোক্তার হাতে পৌঁছায় না। এজন্য গুদামজাতকরণ, পরিবহন থেকে শুরু করে নানা ধাপ পেড়োতে হয়, আর ভোক্তার কাছে পণ্য পৌঁছানোর এইসকল কার্যাবলিকে বাণিজ্য বলে।