Back

ⓘ সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনী




                                     

ⓘ সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনী

সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনী হচ্ছে সিঙ্গাপুরের প্রতিরক্ষা বাহিনী। ১৯৬৫ সালের ৯ই আগস্ট সিঙ্গাপুর স্বাধীনতা লাভ করে এবং এরপর থেকেই সিঙ্গাপুরের সামরিক বাহিনী গঠনের চিন্তাভাবনা শুরু হয়ে যায়। সিঙ্গাপুর সেনাবাহিনীর গোঁড়াপত্তন ১৯৬৯ সালে ঘটে।

সিঙ্গাপুরের ইতিহাস দেখলে সিঙ্গাপুরের কখনোই কোনো সামরিক বাহিনী ছিলোনা, না ছিলো রাইফেল বাহিনী, না ছিলো কোনো নৌবাহিনী, তবে ব্রিটিশরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনী এবং রাজকীয় ভারতীয় নৌবাহিনী সহ রাজকীয় ভারতীয় বিমান বাহিনীর ঘাঁটি সিঙ্গাপুর ভূখণ্ডে গড়ে তুলে যায়, যদিও এটার উদ্দেশ্য ছিলো জাপানি সামরিক বাহিনীর সঙ্গে লড়াই করা কিন্তু তাও সিঙ্গাপুর সামরিক বাহিনীর পূর্বসূরী ব্রিটিশ ভারতীয় সামরিক বাহিনীর মধ্যেই বিদ্যমান। ব্রিটিশরা ১৯৫৭ সালে মালয় ভূখণ্ড বর্তমানে মালয়েশিয়া ত্যাগ করে এবং সিঙ্গাপুর তখন মালয়েশিয়ার অধীনেই ছিলো, তাই মালয়েশিয়ার সরকার যেভাবে তাদের সামরিক বাহিনী বানাতে চেয়েছিলো সেভাবেই সিঙ্গাপুরে সামরিক বাহিনী বানানোর চিন্তা করা হয় তবে তখনো সিঙ্গাপুর ভূখণ্ডে কোনো ধরণের সেনা, বিমান বা নৌঘাঁটি ছিলোনা, ব্রিটিশদের পরিত্যক্তও কিছু ছিলোনা।

সিঙ্গাপুর ১৯৬৫ সালে মালয়েশিয়ার থেকে আলাদা হয় এবং লি কুয়ান ইউ স্বাধীন সিঙ্গাপুরের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তিনি সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনী গঠনের জন্য পদক্ষেপ নেন। সিঙ্গাপুর সেনাবাহিনীর জন্য প্রথম একটি পদাতিক রেজিমেন্ট গঠন, ব্রিটেন থেকে বিমান বাহিনীর জন্য পরিবহন বিমান আনয়ন এবং নৌবাহিনীর জন্য টহল জাহাজ আনা হয় ১৯৬৯ সালে। এরপর ১৯৭০-এর দশকে সিঙ্গাপুর সামরিক বাহিনীর জন্য মার্কিন এবং ব্রিটিশ সাহায্য বড়ভাবে আসতে থাকে। সিঙ্গাপুর ভূখণ্ড ছোটো বিধায় সামরিক ঘাঁটিগুলো রাখা হয় অস্ট্রেলিয়া বা মার্কিন দেশে। আর সিঙ্গাপুরে রাখা হয় একেবারেই ছোটো করে পদাতিক ব্রিগেড, গোলন্দাজ রেজিমেন্ট ফিল্ড রেজিমেন্ট এবং খুবই ছোটো নৌ এবং বিমান ঘাঁটি। সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনীর নিজস্ব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র মাত্র একটি আছে আর সেটা হলো সিঙ্গাপুর আর্মড ফোর্সেস ট্রেনিং ইন্সটিটিউট বা সিঙ্গাপুর সশস্ত্র বাহিনী প্রশিক্ষণ কেন্দ্র - এটাতে সৈনিক, নাবিক, বিমানসেনা এবং সকল শাখার কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ হয় আর উচ্চতর প্রশিক্ষণের জন্য সিঙ্গাপুরীয়রা ভারত, পাকিস্তান, যুক্তরাষ্ট্র বা ব্রিটেনে যায়।