Back

ⓘ বিডি-০৮




বিডি-০৮
                                     

ⓘ বিডি-০৮

বিডি ০৮ বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান অ্যাসল্ট রাইফেল। এটা মূলত চীনা টাইপ ৮১ রাইফেল-এর বাংলাদেশী সংস্করণ। টাইপ ৮১ এবং বিডি ০৮ রাইফেল দেখতে অনেকটা এক তবে এর মধ্যে অনেক পরিবর্তন করা হয়েছে। যেমন: এতে ফিক্সড গ্যাস অপারেটর এর বদলে ফ্লোটিং গ্যাস অপারেটর ব্যবহার করা হয়েছে যা ঝাকি কমাতে সাহায্য করে। এছাড়া এর কার্যকরী দুরত্ব প্রায় ৫০০ মিটার। এর দ্বারা গ্রেনেড নিক্ষেপ করা যায় এবং এতে আধুনিক সাইট ও লেজার ব্যবহার করা যায়। এটি ৫০০ মিটার দূরত্ব পর্যন্ত ৯৯% নির্ভুলভাবে লক্ষ্যভেদ করতে সক্ষম।বিডি ০৮ বাংলাদেশ সমরাস্ত্র কারখানায় তৈরি হয়।

                                     

1. ইতিহাস

১৯৮১ সালে নাগাদ পিপলস লিবারেশন আর্মি পিএলএ কর্তৃক চীনে টাইপ ৮১ অ্যাসাল্ট রাইফেল সার্ভিসে চালু করা হয়েছিল কিন্তু ১৯৮০ এর দশকের শেষের দিকে পর্যন্ত তা ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়েনি। এটি সোভিয়েত এসকেএস কারবিন এবং টাইপ ৫৬ রাইফেল একটি চীনা লাইসেন্সে নির্মিত একে-৪৭ ধরনের রাইফেল এর প্রতিস্থাপিত রূপ। ১৯৮০ সালের মাঝামাঝি সময়ে চীন ও ভিয়েতনামের সীমান্ত বিরোধের সময় এটি প্রথম যুদ্ধের ব্যবহার আসে। পিএলএ তার টাইপ -৮১-এর বেশিরভাগগুলো বর্তমানে টাইপ ৯৫ অথবা টাইপ ০৩ সিরিজের সাথে প্রতিস্থাপিত করেছে, যদিও এটি এখনও রক্ষণাবেক্ষণ এবং সশস্ত্র পুলিশে চীনে ব্যবহৃত হচ্ছে। পরবর্তিতে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অন্তর্গত বাংলাদেশ সমরাস্ত্র কারখানায় এর নকশার সংস্করণ ও পরিমার্জনার মাধ্যমে ২০০৮ সালে নাগাদ বিডি-০৮ এর উৎপাদন শুরু হয়।

                                     

2. উৎপাদন

বাংলাদেশ সমরাস্ত্র কারখানার প্রতিষ্ঠার কাজ প্রথম শুরু হয় ১৯৬৮ সালে চীন সরকারের আর্থিক ও কারিগরি সহায়তায়। ১৯৭০ সালের ৬ এপ্রিল প্রতিষ্ঠানটির অনুষ্ঠানিক প্রতিষ্ঠার কাজ শুরু হয়। ১৯৯৮ সালে এটিকে আর্মির চীঅফ স্ট্যাফ স্যাক্রেটারিয়েটের মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয় এবং পুরো প্রতিষ্ঠানটিকে নতুন করে সাজানো হয়। ২০০৪-০৫ অর্থবছরে রাইফেল বিডি-০৮ প্রস্তুতের পরিকল্পনা প্রক্রিয়া শুরু হয়। যা সফলতা পায় ২০০৮ সালে নাগাদ। বর্তমানে বাংলাদেশ সমরাস্ত্র কারখানায় রাইফেলটির বার্ষিক উৎপাদন বাড়িয়ে ১৪ হাজারে উন্নীত করা হয়েছে।

                                     

3. ব্যবহারকারী

  • বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ
  • বাংলাদেশ বিমান বাহিনী
  • বাংলাদেশ কোস্টগার্ড
  • বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
  • বাংলাদেশ নৌবাহিনী
  • বাংলাদেশ পুলিশ
  • র‍্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়নর‍্যাব

এবং বাংলাদেশের অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা।