Back

ⓘ পাকিস্তানে ধর্মনিরপেক্ষতা




পাকিস্তানে ধর্মনিরপেক্ষতা
                                     

ⓘ পাকিস্তানে ধর্মনিরপেক্ষতা

পাকিস্তান রাষ্ট্রটির জন্ম হয়েছিলো দ্বিজাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে, এই দ্বিজাতি তত্ত্ব অনুযায়ী পাকিস্তানকে একটি মুসলিম প্রধান দেশ হিসেবে কল্পনা করা হয় একেবারে শুরু থেকেই। যদিও পাকিস্তান রাষ্ট্রটি তার জন্মের সময় ধর্মনিরপেক্ষ হবে বলে বলেছিলেন মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ; রাষ্ট্রটি সত্তরের দশক পর্যন্ত জিন্নাহের করে যাওয়া ধর্মনিরপেক্ষ নীতিতেই চলতো কিন্তু ১৯৭৭ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল জিয়াউল হক পাকিস্তান শাসনভার নিজের হাতে তুলে নিয়ে রাষ্ট্রটিকে ইসলামপন্থী বানানোর ঘোষণা দেন। জেনারেল জিয়ার সমর্থকেরা দ্বি-জাতি তত্ত্বের একটা নতুন ব্যাখ্যা দাড় করিয়ে দেন যে এই তত্ত্ব প্রতিবেশী হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ ভারত থেকে পাকিস্তানকে পৃথক করতে গেলে পাকিস্তানে ধর্মনিরপেক্ষতা বাদ দিয়ে পাকিস্তানকে একটি শরীয়া আইনবাদী রাষ্ট্রে রূপান্তরিত করা জরুরী। মূলত তখন থেকেই পাকিস্তানে জিন্নাহর স্বপ্নের পাকিস্তান রাষ্ট্র একভাবে ভেঙে যায় কারণ জিন্নাহ হিন্দুবিদ্বেষী ছিলেননা এবং তিনি পাকিস্তানে তার নিজস্ব নীতিতে বানানো একটি ধর্মনিরপেক্ষতা দেখতে চেয়েছিলেন যেখানে সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার থাকবে।

পাকিস্তান রাষ্ট্রটির জন্মের সময়ে ডন নামের একটি ধর্মনিরপেক্ষ পত্রিকা জিন্নাহর পৃষ্ঠপোষকতাতেই বের হয়েছিলো, যেখানে পাকিস্তানি প্রগতিবাদী মূল্যবোধ এখনো প্রতিফলিত হয়ে থাকে। পাকিস্তানি মুসলিমরা উগ্র ধর্মান্ধ হোক - এমনটা পাকিস্তান রাষ্ট্রের জনক জিন্নাহ কখনোই চাননি।

                                     

1. ইতিহাস

পাকিস্তান রাষ্ট্রটি শুরুতে তাদের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করতে চায়নি, এটা সেনা জেনারেল জিয়ার দ্বারাই ১৯৮০-এর দশকে করা হয়; পাকিস্তান শুরুর দিকে ব্রিটিশ পদ্ধতির ধর্মনিরপেক্ষতা শৈলী দ্বারা নিজেদের দেশ চালাতো যদিও পাকিস্তানের জনক জিন্নাহ ইহুদী ধর্মাবলম্বীদেরকে পাকিস্তানে থাকতে দেবেননা বলে ঘোষণা দিয়েছিলেনঃ

আর অন্য কোনো সমাধান নেই, এখন আমরা কি করবো? আমাদের কি করা উচিৎ? এই নবজন্মা পাকিস্তান রাষ্ট্রটির মঙ্গলের জন্য আমাদের দেশটিতে বসবাসকারী মানুষগুলোর কথা ভাবতে হবে, আমাদের দেশে বিভিন্ন জাতের মানুষ আমরা পেয়েছি, ধর্মভিত্তিক জাতি আছে, ভাষা ভিত্তিক জাতি আছে, অঞ্চল ভিত্তিক জাতি আছে, কিন্তু আমরা সবাই এখন থেকে পাকিস্তানি, শুধু ইহুদী বাদে

জিন্নাহ রাজনীতির ভেতরে ধর্মকে না ব্যবহারের উপরে জোর দিয়েছিলেন, তিনি বলেছিলে যে, "ধর্ম এবং মানুষ এবং রাষ্ট্র এবং সংবিধান আমরা এগুলোকে মেলাতে পারিনা, ধর্ম থাকবে ঈশ্বর এবং মানুষের মধ্যে আর রাষ্ট্আর সংবিধান থাকবে এগুলো থেকে দূরে এবং নিরপেক্ষ।"

                                     

2. বর্তমান পাকিস্তান

পাকিস্তানে বর্তমানে মুসলিমদের পাশাপাশি হিন্দু, শিখ এবং খ্রিস্টান রয়েছে, এছাড়াও রয়েছে স্বল্পসংখ্যক বৌদ্ধ মানুষ, যদিও পাকিস্তানের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম। মুসলিম মানুষেরাই কেবলমাত্র সব ধরনের চাকরি এবং সব ধরনের নাগরিক সুবিধা পেয়ে থাকেন, যদিও কোনো কোনো ক্ষেত্রে ব্যতিক্রমও দেখতে পাওয়া যায় যে অন্য ধর্মের মানুষগুলোও মুসলিমদের মত সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছেন। তবে জোরপূর্বক ইসলাম ধর্মে দীক্ষিত করার ঘটনা পাকিস্তানে প্রায়ঃশই দেখতে পাওয়া যায়। পাকিস্তানে সরকারী সাপ্তাহিক ছুটির দিন রবিবার এবং দেশটিতে শুক্রবারে কিংবা অন্য কোনো দিন নামাজ পড়ার কোনো সরকারী বাধ্যবাধকতা নেই।

যারা ধর্মে অবিশ্বাসী বা নাস্তিক তাদেরকে পাকিস্তানের সমাজে খুব হেয় করা হয় এবং পাকিস্তান সরকারও তাদের প্রতি সহানুভূতি দেখায়না, মৌলবাদী মুসলিম সংগঠনগুলো সরকারকে সবসময়ই ধর্মঅবমাননা বিরোধী আইন বানাতে বলে আসছিলো এবং ইমরান খান সরকার এই ব্যাপারে মৌলবাদীদের কথা রেখে তার দেশের আইনে নাস্তিকদের/ইসলাম অবমাননাকারীদের শাস্তির ব্যবস্থা করেন। পাকিস্তানের সমাজে নারীদের সঙ্গে পুরুষ লিঙ্গের বন্ধুত্ব খুব কড়াকড়িভাবে নিষিদ্ধ করে রাখা হয়েছে এবং যদিও এর পক্ষে কোনো রাষ্ট্রীয় আইন নেই কিন্তু তাও রাষ্ট্র আন্তঃলিঙ্গ বন্ধুত্ব খুবই নিরুৎসাহিত করে, এটা মূলত জেনারেল জিয়ার আমলে চালু করা একটা আইন এবং ব্যবস্থা যে নারী এবং পুরুষ একসঙ্গে দেখলেই সরকার তার পুলিশ বাহিনী পাঠাতো যে ঐ নারীপুরুষ বিবাহিত কিনা বা নারীটির সঙ্গে পুরুষটির কি সম্পর্ক, বাবার সঙ্গে মেয়ে, ভাইয়ের সঙ্গে মেয়ে - এগুলো বাদে পাকিস্তানের সমাজে অন্য কোনো বন্ধুত্ব/প্রেমের কোনো বৈধতা নেই এবং এ-জন্য পাকিস্তানে ধর্মের অজুহাত দেখানো হয়। পাকিস্তানের সমাজে জনতা সহিংসতা দেখা যায় যদি সমাজে নাস্তিকতা/মেয়েদের স্বাধীনতা বিষয়ক কোনো কিছু চোখে পড়ে এবং পুলিশ এক্ষেত্রে জনগণকে সাহায্য করে।

                                     

3. বহিঃসংযোগ

  • The Search For Jinnahs Vision of Pakistan
  • Telegraph, Pakistan Seeks of Jinnah Calling For Secular State
  • İnternational Business Times, What Jinnahs Legacy Pakistan
  • Secular Jinnah, Secular Jinnah and Pakistan -What the Nation Doesnt Know, Saleena Kareem
  • The Express Tribune Pakistan, Was Jinnah Secular
  • Unsecular Jinnah, Had A Vision For Pakistan That Was Neither Secular Nor Theocratic ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৭ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে