Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:যৌগিক পদার্থ




                                               

অ্যামোনিয়া

অ্যামোনিয়া বা এজেন নাইট্রোজেন ও হাইড্রোজেনের সমন্বয়ে গঠিত একটি রাসায়নিক যৌগ যার রাসায়নিক সংকেত NH 3 । এটি সরলতম নিকটোজেন হাইড্রাইড, অ্যামোনিয়া হল চরিত্রগত কটুগণ্ধযুক্ত বর্ণহীন গ্যাস। খাদ্য ও সার উৎপাদনকারী অনেক অণুজীবের পুষ্টিগত প্রয়োজন পূরণে অ্যামোনিয়া গ্যাস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। অ্যামোনিয়া, প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে, বিভিন্ন ফার্মাসিউটিক্যাল পণ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়। এটি অনেক বাণিজ্যিক পরিষ্কারক এজেন্টে ব্যবহার করা হয়। যদিও সাধারণত প্রকৃতি এবং ব্যাপক ব্যবহারে, অ্যামোনিয়া ক্ষারীয় এবং ঘনীভূত আকারে বিপজ্জনক। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এটি অত্যন্ত বিপজ্জনক পদার্থ হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ কর ...

                                               

আয়নিক যৌগ

রসায়নে, আয়নিক যৌগ হচ্ছে একটি রাসায়নিক যৌগ যা আয়নগুলোর মধ্যে তড়িৎবলের মাধ্যমে যুক্ত থাকে। যৌগটি অবশ্য নিরপেক্ষ কিন্তু যা গঠিত হয় ধনাত্মক চার্জ যাকে বলা হয় ক্যাটায়ন এবং ঋণাত্মক চার্জ যাকে বলা হয় অ্যানায়ন। এগুলো সাধারন আয়ন হতে পারে যেমন সোডিয়াম ক্লোরাইড এ থাকে সোডিয়ান আয়ন এবং ক্লোরিন আয়ন অথবা বহুআণবিক প্রজাতি যেমন অ্যামোনিয়াম কার্বনেট এ অ্যামোনিয়াম এবং থাকে কার্বনেট আয়ন।আয়নিক যৌগের আলাদা আলাদা আয়ন থাকতে পারে যাদের একাধিক নিকটাত্মীয় প্রতেবেশি থাকতে পারে যারা পরমাণুর অংশ না হয়ে বরং ত্রিমাত্রিক কেলাসে ধারাবাহিক ভাবে তিনমাত্রিক গঠনের জাল হিসেবে থাকে। যেসব আয়নিক যৌগে হাইড্রো ...

                                               

ক্ষারক

ক্ষারক এক শ্রেণির রাসায়নিক যৌগ যা হাইড্রোজেন আয়ন গ্রহণ করতে সক্ষম। যেমন ধাতুর অক্সাইড বা হাইড্রোক্সাইডসমূহ ক্ষার। জলে দ্রবণীয় ক্ষারক যা হাইড্রোক্সাইড আয়ন প্রদান করে তাকে ব্রনস্টেড-লাউরির মতবাদ অনুযায়ী ক্ষার বলা হয়। ক্ষারকের অন্যান্য মতবাদ বা সংজ্ঞার্থের মধ্যে রয়েছে ইলেক্ট্রন জোড় দান, হাইড্রোক্সাইড আয়নের উৎস বা আরহেনিয়াস মতবাদ। এইসব রাসায়নিক যৌগ জলে দ্রবীভূত হয়ে হাইড্রোজেন আয়ন অবমুক্ত করে দ্রবণের pH এর মান প্রশম পানির চেয়ে বেশি অর্থাৎ ৭ এর বেশি করে। সবচেয়ে প্রচলিত ক্ষারকসমূহের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল সোডিয়াম হাইড্রোক্সাইড, অ্যামোনিয়া। রাসায়নিকভাবে অম্লের বিপরীতধর্মী পদার্থ হল ...

                                               

গ্লুকোজ

গ্ল‌ুকোজ বা দ্রাক্ষা-শর্করা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ কার্বোহাইড্রেট যা শর্করার রাসায়নিক শ্রেণিবিভাগে একশর্করা বা মনোস্যাকারাইডের অন্তর্ভুক্ত। জীবন্ত কোষ গ্ল‌ুকোজ শক্তি ও বিপাকীয় প্রক্রিয়ার একটি উৎস হিসেবে ব্যবহার করে। সালোকসংশ্লেষণ বা ফটোসিনথেসিস প্রক্রিয়ার অন্যতম প্রধান উৎপাদ হলো গ্লুকোজ ।সাধারণত এই গ্লুকোজ প্রাণী ও উদ্ভিদ কোষের শ্বাসক্রিয়ায় অন্যতম অপরিহার্য উপাদান হিসাবে ব্যবহৃত হয়। মধু ও অধিকাংশ মিষ্ট ফলে গ্লূকোজ থাকে । রক্তে এবং বহুমূত্র রোগীর মূত্রে সামান্য পরিমাণে গ্লুকোজ আছে। গ্ল‌ুকোজ ” গ্রিক শব্দ glukus γλυκύς থেকে উদ্ভূত হয়েছে, যার অর্থ" মিষ্টি” এবং "-ose" প্রত্যয়টি চিনি ...

                                               

জৈব পারঅক্সাইড

জৈব পার অক্সাইড এক প্রকার জৈব যৌগ, যার মধ্যে পারঅক্সাইড কার্যকরী মূলক বিদ্যমান। যদি R হাইড্রোজেন মূলক হয়, তাহলে ঐসকল যৌগকে জৈব হাইড্রোপারঅক্সাইড অভিহিত করা হয়। পেরেস্টার -গুলোর সাধারণ গঠন RCOOR। O−O বন্ধন সহজেই ভেঙে যায়, যার ফলে মুক্ত যৌগমূলক উৎপন্ন হয়। এতে RO. তৈরি হয়, যেখানে ডট দ্বারা অযুগ্ম ইলেকট্রন বুঝানো হয়। এরূপে পলিমারকরণ বিক্রিয়া সূচনা করতে জৈব পার অক্সাইড উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। উদাহরণস্বরূপ, কাচতন্তুজাত প্লাস্টিক উৎপাদনে ইপোক্সি রেজিন কার্যক্ষম করে তুলতে এমইকেপি ও বেনজোয়িল পারঅক্সাইড ব্যবহার করা হয়। তবে জৈব পার অক্সাইড আনস্যাচুরেটেড রাসায়নিক বন্ধন বিদ্যমান এরূপ বস্ ...

                                               

প্লাইউড

প্লাইউড হলো পাতলা স্তর বা "কাঠের ব্যহ্যাবরণ" এর স্তর থেকে তৈরি উপাদান, যা কাঠের কুচি দ্বারা একে অপরকে ৯০ ডিগ্রি পর্যন্ত ঘোরানো সংলগ্ন স্তরগুলির সাথে একসাথে আটকানো থাকে। এটি উৎপাদিত বোর্ডগুলির পরিবারের উদ্ভাবিত কাঠ যা মাঝারি ঘনত্বের ফাইবারবোর্ড এবং কণা বোর্ড এর অন্তর্ভুক্ত। সমস্ত প্লাইউডগুলি রজন এবং কাঠের ফাইবার শিটগুলি বেঁধে রাখে সেলুলোজ কোষগুলি লম্বা, শক্ত এবং পাতলা হয় একটি যৌগিক উপাদান গঠনের জন্য। কাঠের এই বিকল্পটিকে ক্রস-গ্রেইনিং বলা হয় এবং এর বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সুবিধা রয়েছে: এটির প্রান্তে যখন পেরেক গাথা হয় তখন কাঠের বিভাজনের প্রবণতা হ্রাস করে; এটি প্রসারণ এবং সঙ্কুচিত হ্রাস ক ...

                                               

ফসফরাস পেন্টক্সাইড

ফসফরাস পেন্টক্সাইড একটি রাসায়নিক যৌগ, যার সংকেত হচ্ছে P 4 O 10 {\displaystyle {\ce {P4O10 \,}}} । সাদা বর্ণের স্ফটিকাকার এই কঠিন পদার্থটি ফসফোরিক অ্যাসিড এর নিরূদিত রূপ। এটি একটি শক্তিশালী বিশুষ্কীকারক এবং নিরূদক পদার্থ।

                                               

বিষমচাক্রিক যৌগ

বিষমচক্রিক যৌগ বা হেটেরোসাইক্লিক যৌগ হচ্ছে সেই সব চক্রিক যৌগ বা রিং গঠন যুক্ত যৌগ যার চক্র বা রিং সৃষ্টিকারী সদস্যদের ভেতরে অন্তত একটি ভিন্ন উপাদানের পরমাণু আছে। সাধারণত একটি বিষমচক্রিক যৌগে বা হেটেরোসাইক্লিক যৌগ্র চক্রে অন্তত একটি ক্ররবন ভিন্ন অন্য উপাদানের পরমাণু থাকে। সাধারণত, বিষমচক্রিক যৌগ বা হেটেরোসাইক্লিক যৌগ হচ্ছে জৈব যৌগ যাদের চক্রের মধ্যে কার্বন এবং কার্বন ভিন্ন অন্তত একটি উপাদানের পরমাণু আছে। কার্বন ভিন্ন অন্যান্য উপাদানের পরমাণু গুলো হতে পারে অক্সিজেন, নাইট্রোজেন, সালফার।

                                               

সিলিকন কার্বাইড

সিলিকন কার্বাইড, যা কার্বোরান্ডাম নামেও পরিচিত, সিলিকন ও কার্বন নিয়ে গঠিত একটি যৌগ। প্রকৃতিতে এটিকে ময়স্যানাইট নামের একটি বিরল খনিজ হিসেবে পাওয়া যায়। ১৮৯৩ সাল থেকে সিলিকন কার্বাইড চূর্ণের ব্যাপক উৎপাদন শুরু হয়, যা অপঘর্ষক হিসেবে বহুল প্রচলিত। সিলিকন কার্বাইড চূর্ণকে উত্তপ্ত করলে তা দানা বেঁধে অত্যন্ত শক্ত সিরামিকের রূপ নেয়, যা ঘাত প্রতিহত করার কাজে, যেমন গাড়ির ব্রেক এবং গুলি-প্রতিরোধক আবরণি তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। ১৯০৭ সালে সিলিকন কার্বাইডের অর্ধপরিবাহী গুণাবলি আবিষ্কৃত হয়, যা লাইট এমিটিং ডায়োড এবং আদি রেডিওর গ্রাহক অংশে ব্যবহ্রিত হয়। বর্তমানে সিলিকন কার্বাইড উচ্চ তাপমাত্রা ও উচ্চ বি ...

                                     

ⓘ যৌগিক পদার্থ

  • স ন দ রত ব শ ষ ট ব য সল টয ক ত ম য গম ন র গত হয বহ জ শ ল ব য সল ট গঠন কর য গ ক ব স তর ভ ত আগ ন য গ র composite or stratovolcano হত ন র গত ম য গম
  • জ ব য গ হল এক ধরন র য গ ক পদ র থ য র কমন উপ দ ন হ স ব ক র বন থ ক ঐত হ স ক ক রণ ক ছ য গ য মন - ক র বন ট, ক র বন র স ধ রণ অক স ইড, স য ন ইড এব ক র বন র
  • ক র স ট ল ব য গ ক ক ল স র মধ য এব এট একট স ম - ম ট ল ক র স ট ল এর ন ম দ ওয হয ছ ট যন ট ল ম আর স ন ইড এব ক র স ট লট ত র ব ভ ন ন ম ল ক পদ র থ তথ ব সম থ
  • কর ন জ র ম ন রস য নব দ ফ র ডর শ ভ ল র স ল প রথম অজ ব পদ র থ থ ক আকস ম কভ ব জ ব পদ র থ ইউর য স শ ল ষণ র পদ ধত আব ষ ক র কর ন ত র এই আব ষ ক র গ ট
  • ব ক রক হল একপ রক র ম ল ক ব য গ ক পদ র থ য ক ন স স ট ম র স য ন ক ব ক র য ঘট ন র জন য য ক ত কর হয অথব স ই ন র দ ষ ট পদ র থ র য গ স স ট ম ক ন র প
  • ম ন ষ গ য গ ক ব ক য পরস পর ন রপ ক ষ দ ই ব দ য র অধ ক ব ক য যখন ক ন স য জক অব যয দ ব র য ক ত হয একট সম প র ণ ব ক য ত র কর তখন ত ক য গ ক ব ক য
  • গব ষণ য উদ ভ ত বস ত গ ল দ র ঘসময ধর ব পজ জনক বল প রম ণ ত হয ছ তব য গ ক এব উপ দ নগ ল স গ ল ব যবহ র শ র কর ব শ ষ কর ভ র ধ ত দ য শ র কর র

Users also searched:

পানি যৌগিক পদার্থ কেন,

...
...
...