Back

ⓘ ড্রুক দেশী




                                     

ⓘ ড্রুক দেশী

ড্রুক দেশী সতেরো ও উনিশ শতকের মধ্যকার দ্বৈত সরকার ব্যবস্থার অধীনে ভূটানের ধর্মনিরপেক্ষ শাসকদের পদবী ছিল। এই ব্যবস্থার অধীনে, সরকারী কর্তৃপক্ষ ধর্মনিরপেক্ষ এবং ধর্মীয় প্রশাসনের মধ্যে বিভক্ত ছিল। উভয়ই যাবদ্রুং রিনপোচের নামমাত্র কর্তৃত্বের অধীনে একত্রিত ছিল। ড্রুক, যার অর্থ "বজ্র ড্রাগন", প্রতীকীভাবে ভূটানকে বোঝায়, যার প্রাচীনতম নাম ড্রুক-ইউল। দেশী, যার অর্থ "রিজেন্ট", এই সরকার ব্যবস্থার অধীনে রাজ্যের প্রধানের ধর্মনিরপেক্ষ কার্যালয় ছিল।

                                     

1. ইতিহাস

ভূটানে, ড্রুক দেশীর কার্যালয় যাবদ্রুং রিনপোচে, নাগাওয়াং নামগিয়াল এর দ্বারা সপ্তদশ শতাব্দীতে সরকারের দ্বৈত পদ্ধতির অধীনে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। তিব্বতে সাম্প্রদায়িক নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচার পরে, নাগাওয়াং নামগিয়াল ড্রুকপা বংশকে রাষ্ট্রীয় ধর্ম হিসাবে প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ভূটানীয় ব্যবস্থার অধীনে ড্রুকপা বংশের জে খেনপোর নেতৃত্বে ধর্মীয় শাখা এবং ড্রুক দেশীর নেতৃত্বাধীন নাগরিকদের প্রশাসনিক শাখার মধ্যে সরকারের ক্ষমতা বিভক্ত হয়। জে খেনপো এবং ড্রুক দেশী উভয়ই নাগাওয়ং নামগিয়ালের পুনর্জন্ম যাবদ্রুং রিনপোচের নামমাত্র কর্তৃত্বের অধীনে ছিলেন।

ড্রুক দেশী উনিশ শতকে সন্ন্যাসী বা মর্যাদাবানীর সদস্য হয়। সাধারণত পরবর্তীকালে; তিনি তিন বছরের মেয়াদে নির্বাচিত হয়েছিলেন, প্রথমে সন্ন্যাসী পরিষদের এবং পরবর্তীতে রাজ্য কাউন্সিলের ল্যাঙ্গিয়ে শশকদু দ্বারা। রাজ্য কাউন্সিল একটি কেন্দ্রীয় প্রশাসনিক অঙ্গ ছিল যার মধ্যে আঞ্চলিক শাসকরা, যাবদ্রুংয়ের চেম্বারলাইনস এবং ড্রুক দেশীর আওতায় ছিল। কালক্রমে, ড্রুক দেশি রাজ্য কাউন্সিলের আঞ্চলিক প্রশাসকদের সবচেয়ে শক্তিশালী দলের নিয়ন্ত্রণে চলে আসেন। যাবদ্রুং ছিলেন রাষ্ট্রপ্রধান এবং ধর্মীয় ও নাগরিক বিষয়ে তার কর্তৃত্ব ছিল চূড়ান্ত।

কেন্দ্রীয় সরকারের আসন বসন্ত, গ্রীষ্ম এবং শরত্কালে ত্রয়োদশ শতাব্দীর জং এর জায়গায় থিম্পুতে ছিল। শীতের রাজধানী ছিল পুণাখ, থিম্পুর উত্তর-পূর্বে জং দ্বারা ১৫২৭ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। রাজ্যটি তিনটি অঞ্চলে পূর্ব, মধ্য এবং পশ্চিম বিভক্ত ছিল। প্রত্যেক রাজ্যেই একজন নিয়োগকৃত পেনলপ গভর্নর ছিল। যার রাজধানী জং এ একটি করে আসন ছিল। জেলাগুলির নেতৃত্বে ছিল জংপেন জেলা অফিসার, যাদের সদর দফতর লেসার জং এ ছিল। পেনলপরা ছিলেন কর আদায়কারী, বিচারক, সামরিক কমান্ডার এবং কেন্দ্রীয় সরকারের ক্রয় প্রতিনিধি। তিব্বত ও ভারতের মধ্যকার বাণিজ্য থেকে এবং ভূমি কর থেকে তাদের প্রধান আয় হতো।

এটা বিশ্বাস করা হয় যে, ১৬৫১ সালে নাগাওয়াং নামগিয়ালের মৃত্যু প্রায় ৫০ বছর ধরে গোপন রাখা হয়েছিল। কারণ কর্তৃপক্ষ তাঁর উত্তরসূরি হিসাবে তাঁর পুনর্জন্মের অপেক্ষা করছিল। প্রথমে এই ব্যবস্থা বজায় ছিল, তবে ড্রুক দেশী ধীরে ধীরে রাজনৈতিক ক্ষমতা অর্জন করে এবং গৃহযুদ্ধের সূত্রপাত ঘটে। একবার পুনর্জন্মের সন্ধান পাওয়া গেলেও, ড্রুক দেশি তার অর্জিত ক্ষমতা অন্য কারো সাথে ভাগ করে নিতে রাজি হননি। এবং যাবদ্রুংয়ের শক্তি ধীরে ধীরে হ্রাস পেতে থাকে। একইভাবে, ড্রুক দেশি স্থানীয় শাসক এবং পেনলপ গভর্নর এর উপর নিয়ন্ত্রণও হারিয়েছিলেন। দেশটিতে পেনলপদের নিয়ন্ত্রণে বেশ কয়েকটি অঞ্চল স্বাতত্বশাসিত অঞ্চলে রুপান্তরিত হয়েছিল। বাস্তবে, বলতে গেলে যাবদ্রুং প্রায় ড্রুক দেশীর নিয়ন্ত্রণাধীন একটি শিশু ছিলেন এবং আঞ্চলিক পেনলপ প্রায়ই তাদের জেলাগুলোকে ড্রুক দেশীর বিপরীতে পরিচালনা করতেন।

২০০৮ সালে প্রণীত ভূটানের সংবিধান দ্বৈত সরকারের প্রতি ভূটানের প্রতিশ্রুতি নিশ্চিত করেছে। তবে সংবিধানে "ড্রুক দেশী" উপাধিটি কখনই উপস্থাপন করা হয় নাই এবং সমস্ত প্রশাসনিক ক্ষমতা ড্রুক গিয়ালপো এবং বেসামরিক অফিসগুলিতে সরাসরি অর্পিত হয়। তারপর, ড্রুক গিয়ালপো জে খেনপোর পরামর্শে পাঁচ জন লোপন জ্ঞাত আয়ত্তকারী নিয়োগ দেন। এবং গণতান্ত্রিক সংবিধান নিজেই যাভদ্রংয়ের বিপরীতে এই দেশের সর্বোচ্চ আইন।