Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:প্রদাহ




                                               

বাতজ্বর

বাতজ্বর হলো প্রদাহজনিত রোগ যা হার্ট, চর্ম, জয়েন্ট, মস্তিষ্ক কে আক্রান্ত করতে পারে। এই রোগ সাধারণত গলায় সংক্রমণের দুই থেকে চার সপ্তাহ পরে শুরু হয়। লক্ষণসমূহ হচ্ছে জ্বর, জয়েন্টে ব্যথা,কোরিয়া, ইরায়থেমা মারজিনেটাম। প্রায় অর্ধেক ক্ষেত্রে হার্ট আক্রান্ত হয়। বাতজ্বরের জন্য দায়ী ব্যাক্টেরিয়া হলো স্ট্রেপটোকক্কাস পায়োজেনস । এই রোগে ব্যক্তির নিজের শরীরের টিস্যুর বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়। তবে যাদের শরীরে এই রোগের জিন রয়েছে তারা অন্যদের তুলনায় খুব সহজে এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে রয়েছে পুষ্টিহীনতা, দারিদ্র্য প্রভৃতি। এই রোগ শনাক্ত করার ক্ষেত্রে উপস ...

                                               

অগ্ন্যাশয় প্রদাহ

অগ্ন্যাশয় প্রদাহ হচ্ছে অগ্ন্যাশয়ের একপ্রকার প্রদাহ। পাকস্থলীর পিছনে থাকা অগ্ন্যাশয় বৃহদাকৃতির অঙ্গ; যা জারক রস এবং বিভিন্ন প্রকার হরমোন ক্ষরণ করে। অগ্ন্যাশয় প্রদাহ দুইরকম হয়, একটি হলো প্রকট অগ্ন্যাশয় প্রদাহ এবং দীর্ঘমেয়াদি অগ্ন্যাশয় প্রদাহ। অগ্ন্যাশয় প্রদাহের কারণে উদরপেটের উপরে ব্যাথা অনুভব, বমি বমি ভাব এবং বমি হয়। পিঠের মাঝামাঝি তীব্র যন্ত্রণা অনুভূত হয়। প্রকট অগ্ন্যাশয় প্রদাহে জ্বর আসে এবং কয়েকদিনের মধ্যে লক্ষণ প্রকাশ পায়। দীর্ঘমেয়াদি অগ্ন্যাশয় প্রদাহে ওজন হ্রাস পায়, মেদদাস্ত এবং ডায়রিয়া দেখা যায়। সংক্রমণ, রক্তক্ষরণ মধুমেহ অথবা অন্যান্য অঙ্গেও নানা জটিলতা দেখা যেতে পারে।

                                               

অ্যাপেন্ডিসাইটিস

অ্যাপেন্ডিসাইটিস হলো ভার্মিফর্ম অ্যাপেন্ডিক্সের প্রদাহ সাধারণ লক্ষণসমূহ হল তলপেটের ডানদিকে ব্যথা, জ্বর, বমি ইত্যাদি। তবে ৪০% ক্ষেত্রে রোগী সবগুলো লক্ষণ নিয়ে আসে না। অ্যাপেন্ডিক্স ফেটে গেলে পুরা পেটে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে এবং উদর আবরণী বা পেরিটোনিয়ামের প্রদাহ হয় ও সেপসিস হতে পারে। অ্যাপেন্ডিক্স এর গহ্বর বা লুমেন কোনো কারণে বন্ধ হলে অ্যাপেন্ডিসাইটিস হয় যেমন ফিকালিথ Fecalith বা মল দিয়ে তৈরি ক্যালসিফাইড পাথর, পরজীবী, পিত্তাশয় পাথর, টিউমার ইত্যাদি লুমেন বন্ধ করে দিতে পারে। ফলে অ্যাপেন্ডিক্সের টিস্যুতে রক্ত চলাচল কমে গিয়ে সহজেই ব্যাক্টেরিয়াল ইনফেকশন হয়। প্রদাহের ফলে অ্যাপেন্ডিক্স অনেক ফু ...

                                               

এন্ডোমেট্রাইটিস

এন্ডোমেট্রাইটিস হল জরায়ুর ভিতরের আস্তরণের প্রদাহ। লক্ষণগুলির মধ্যে আছে জ্বর, তলপেটে ব্যথা, এবং যোনিমুখে অস্বাভাবিক রক্তপাত বা ডিসচার্জ. এটি প্রসবের পরে সংক্রমণের সবচেয়ে সাধারণ কারণ। এটি শ্রোণীর প্রদাহ রোগ সম্বন্ধিত অসুখের বিস্তৃত পরিসরের মধ্যেই পড়ে। এন্ডোমেট্রাইটিস কে তীব্র এবং দীর্ঘস্থায়ী এই দুই অবস্থায় ভাগ করা যায়। তীব্র অবস্থাটি সাধারণত সংক্রমণ থেকে হয়; গর্ভপাত এর কারণে, রজঃস্রাব এর সময়, প্রসব এর পর, ডাউচিং এর জন্য অথবা আই ইউ ডি স্থাপন করলে জরায়ুমুখ দিয়ে সংক্রমণ প্রবাহিত হয়। প্রসবেপর এন্ডোমেট্রাইটিসের ঝুঁকির মধ্যে আছে সিজারিয়ান সেকশন এবং প্রোলঙ্গড রাপচার অফ মেমব্রেনস। রজোনিব ...

                                               

গলবিল প্রদাহ

গলবিল প্রদাহ বলতে ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাসের দ্বারা রোগ-সংক্রমণের কারণে গলার পেছনের দিকে অর্থাৎ গলবিলে ব্যথা হওয়াকে বোঝায়। গলা ব্যথার পাশাপাশি আরও কিছু উপসর্গ আছে যেমন ঢোক গিলতে কষ্ট হওয়া, কাশি, মাথাব্যথা, কর্কশ কণ্ঠ, সর্দি পড়া, গলবিল লাল হয়ে যাওয়া, লসিকাগ্রন্থিগুলির ফুলে যাওয়া এবং জ্বর হওয়া। সাধারণত ৩ থেকে ৫ দিন এই উপসর্গগুলি অব্যাহত থাকে। গলবিল প্রদাহকে এক ধরনের ঊর্ধ্ব শ্বাসনালী সংক্রমণ হিসেবে শ্রেণীকরণ করা হয়েছে। জটিল অবস্থা ধারণ করলে গলবিল প্রদাহ থেকে অস্থিকোটর প্রদাহ বা সাইনাসের প্রদাহ এবং তীব্র মধ্যকর্ণ প্রদাহ হতে পারে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গলবিল প্রদাহের জন্য ভাইরাস দায়ী। তবে ২ ...

                                               

গ্লোমেরুলোনেফ্রাইটিস

গ্লোমারুলোনেফ্রাইটিস এমন একটি শব্দ যা বেশ কয়েকটি বৃক্কের রোগকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়। এই রোগগুলি গ্লোমেরুলি বা বৃক্কের ক্ষুদ্র রক্তনালীগুলির প্রদাহ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়। তবে এই রোগগুলির সবগুলোতে প্রদাহ নাও দেখা দিতেপারে। যেহেতু এটি কোনও একক রোগ নয় তাই এর লক্ষনগুলি নির্দিষ্ট রোগের উপর নির্ভর করে। এটি বিচ্ছিন্ন হেমাটুরিয়া এবং / বা প্রোটিনিউরিয়া প্রস্রাবে রক্ত বা প্রোটিনের উপস্থিতি দিয়ে উপস্থিত হতে পারে। অথবা নেফ্রোটিক লক্ষন, নেফ্রিটিক লক্ষন, বৃক্কে তীব্র আঘাত বা দীর্ঘস্থায়ী বৃক্কের রোগ হিসাবে উপস্থিত হতে পারে।