Back

ⓘ উয়েফা ইউরো ২০২০




                                     

ⓘ উয়েফা ইউরো ২০২০

২০২০ উয়েফা ইউরোপীয় ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ হচ্ছে উয়েফা দ্বারা আয়োজিত চতুর্বাষিক আন্তর্জাতিক ফুটবল প্রতিযোগিতা উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপের ১৬তম আসরের চূড়ান্ত পর্ব, যেখানে ইউরোপের ফুটবল সংস্থা উয়েফার অন্তর্ভুক্ত ২৪টি জাতীয় ফুটবল দল প্রতিযোগিতা করবে।

এই প্রতিযোগিতাটি ইউরোপের ১২টি দেশের ১২টি শহরে ২০২০ সালের ১২ই জুন হতে ১২ই জুলাই পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২০২০ সালের ১৭ই মার্চ তারিখে উয়েফা জানায় যে, ইউরোপে করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর কারণে এই প্রতিযোগিতাটি এক বছর পিছিয়ে অনুষ্ঠিত হবে, একই সাথে উয়েফা এই আসরের সম্ভাব্য তারিখ হিসেবে ২০২১ সালের ১১ই জুন হতে ১১ই জুলাই পর্যন্ত প্রস্তাব করেছে। মূলত করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ইউরোপে দেশগুলোতে সরকারি পরিষেবার উপর চাপ কমাতে এবং দেশীয় লীগ স্থগিতের জন্য পঁজিকায় স্থান দেওয়ার জন্য এই প্রতিযোগিতাটি স্থগিত করা হয়েছে। তবে, ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত হলেও এই আসরটি এখনও "উয়েফা ইউরো ২০২০" নামেই প্রচারিত হবে।

উয়েফার তৎকালীন সভাপতি মিশেল প্লাতিনি বলেছেন, ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপ প্রতিযোগিতার ৬০তম "জন্মদিন" উদযাপনের জন্য এই আসরটি বেশ কয়েকটি দেশে "রোমান্টিক" একবারের আয়োজন হিসাবে আয়োজিত হবে। এই আসরের ম্যাচগুলো আয়োজনের জন্য প্রত্যেক দেশের অন্যতম সর্বাধিক ধারণক্ষমতাসম্পন্ন স্টেডিয়ামগুলোতে বেছে নেওয়া হয়েছে; ইংল্যান্ডের লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামটি এই আসরের একটি সেমিফাইনাল ম্যাচ আয়োজনের পাশাপাশি উয়েফা ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো ফাইনাল ম্যাচের আয়োজন করবে ইতিপূর্বে ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ১৯৯৬ সালের চেক প্রজাতন্ত্র এবং জার্মানির মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচ আয়োজিত হয়েছে। এই আসরের উদ্বোধনী ম্যাচটি রোমের স্তাদিও অলিম্পিকোতে অনুষ্ঠিত হয়েছে, যেখানে স্বাগতিক ইতালির মুখোমুখি হবে তুরস্ক।

পর্তুগাল উয়েফা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন, যারা ২০১৬ সালে ফাইনাল ম্যাচে ফ্রান্সকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো শিরোপা জয়লাভ করেছে। উয়েফা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এই আসরে ভিডিও সহকারী রেফারি ভিএআর পদ্ধতি ব্যবহার করা হবে।

                                     

1. স্বাগতিক দেশ নির্বাচন প্রক্রিয়া

বেশ কিছু দেশ উয়েফা ইউরোর এই আসরটি আয়োজন করা আগ্রহ প্রকাশ করার পর, উয়েফা ইউরো ২০১২ ফাইনালের আগের দিন ২০১২ সালের ৩০শে জুন তারিখে উয়েফার তৎকালীন সভাপতি মিশেল প্লাতিনি এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন, যেখানে তিনি ঘোষণা দেন যে, এই আসরটি একটি নির্দিষ্ট দেশে আয়োজন করার পরিবর্তে অথবা দুই-তিনটি দেশ মিলিয়ে আয়োজন করার পরিবর্তে "১২ অথবা ১৩টি শহর মিলিয়ে আয়োজন করা হতে পারে। ইতিমধ্যে উয়েফা উয়েফা ইউরোপীয় অনূর্ধ্ব-১৭ চ্যাম্পিয়নশিপের এলিট পর্বে এই ব্যবস্থা ব্যবহার করেছে, যেখানে এলিট পর্বের ৭টি গ্রুপের খেলা ভিন্ন ভিন্ন দেশে আয়োজন করা হয়েছে।

                                     

1.1. স্বাগতিক দেশ নির্বাচন প্রক্রিয়া ইউরোপীয় বিন্যাসের সিদ্ধান্ত

২০১২ সালের ৬ই ডিসেম্বর তারিখে, উয়েফা ঘোষণা করেছিল যে এই প্রতিযোগিতার ৬০তম বার্ষিকী উপলক্ষে ইউরোপের একাধিক শহরে এই আসরটি অনুষ্ঠিত হবে। এই আসরের ক্ষেত্রে আয়োজক দেশভিত্তিক জাতীয় দলগুলো স্বয়ংক্রিয়ভাবে মূল পর্বে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেনি।

উয়েফা জানিয়েছে যে প্যান-ইউরোপে এই আসরের মঞ্চায়ন ইউরোপীয় ঋণ সংকটের সময় এক যৌক্তিক সিদ্ধান্ত ছিল। এই আসরভিত্তিক উয়েফার পরিকল্পনা পুরো ইউরোপ জুড়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া গ্রহণ করেছিল। ক্রীড়া সমালোচকরা এই আসরের বর্ধিত বিন্যাস ১৬ দেশের মধ্যকার ৩১টি ম্যাচ হতে ২৪ দেশের মধ্যকার ৫১টি ম্যাচ এবং এর সাথে সংযুক্ত অতিরিক্ত ব্যয়কে কেবলমাত্র একটি দেশের তুরস্ক গুরুতর নিলাম-ডাককে কেন্দ্র করে সিদ্ধান্ত নেওয়ার কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছে।

                                     

1.2. স্বাগতিক দেশ নির্বাচন প্রক্রিয়া মাঠ নির্বাচন প্রক্রিয়া

২০১৪ সালের ২৬শে এপ্রিল তারিখে উয়েফা নিলাম-ডাকের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করেছে এবং একই বছরের ১৯শে সেপ্টেম্বর তারিখে উয়েফার কার্যনির্বাহী পরিষদের সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করাপর আয়োজক শহরসমূহের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। চূড়ান্ত প্যাকেজের জন্য যার মধ্যে দুটি সেমি-ফাইনাল এবং ফাইনাল ম্যাচ আয়োজন করা অন্তর্ভুক্ত কেবলমাত্র দুটি যার মধ্যে একটি সফল হয়েছে, যেটি নিম্নে উল্লেখিত টেবিলে নীল রঙ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছে এবং সাধারণ প্যাকেজের জন্য ১৯টি নিলাম-ডাক ছিল প্রাথমিকভাবে যার মধ্য হতে ১২টি সফল হয়েছিল, নিম্নে উল্লেখিত টেবিলে সবুজ রঙ দ্বারা গ্রুপ পর্ব ও কোয়ার্টার ফাইনালের আয়োজক এবং হলুদ রঙ দ্বারা গ্রুপ পর্ব ও ১৬ দলের পর্ব চিহ্নিত করা হয়েছে; ব্রাসেলস প্রাথমিকভাবে একটি আয়োজক শহর হিসেবে নির্ধারিত হয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীতে ২০১৭ সালের ৭ই ডিসেম্বর তারিখে উয়েফা উক্ত শহরটির মাঠকে তালিকা থেকে অপসারণ করে এবং উক্ত মাঠে নির্ধারিত সকল ম্যাচ লন্ডনের ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে স্থানান্তরিত করে।

                                     

2. করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারী এবং স্থগিতকরণ

২০২০ সালের শুরুর দিকে, ইউরোপে করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীর কারণে উয়েফা এই আসরের ১২টি আয়োজক শহর, খেলোয়াড়, কর্মী এবং দর্শকদের উপর এর সম্ভাব্য প্রভাব সম্পর্কে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিল। একই বছরের মার্চের শুরুর দিকে উয়েফা কংগ্রেসে উয়েফার সভাপতি আলেকসান্দার চেফেরিন বলেছিলেন যে সংস্থাটি উক্ত পরিস্থিতি মোকাবিলার বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী, অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক থেওদোর থেওদোরিদিস জানিয়েছেন যে উয়েফা করোনাভাইরাস সম্পর্কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এবং আয়োজক দেশগুলোর সরকারগুলোর সাথে যোগাযোগ রক্ষা করছে। একই মাসের শেষের দিকে ফুটবলে করোনাভাইরাসের প্রভাব আরও বেড়ে যায়, যার ফলস্বরুপ বেশ কয়েকটি ঘরোয়া লীগ এবং উয়েফা প্রতিযোগিতা দর্শকশূন্য মাঠে আয়োজন করা শুরু হয়েছিল। ২০২০ সালের ১৩ই মার্চ তারিখে, উয়েফা আসন্ন প্রতিযোগিতামূলক সকল খেলা স্থগিত ঘোষণা করে; একই সাথে ইউরোপের শীর্ষ লীগগুলো স্থগিত ঘোষণা করা হয়, যার মধ্যে বুন্দেসলিগা, লা লিগা, লীগ ১, প্রিমিয়ার লীগ এবং সেরিয়ে আ অন্যতম।

২০২০ সালের ১৭ই মার্চ তারিখে, ২০২০ সালের ইউরো প্রতিযোগিতাসহ দেশীয় এবং ইউরোপীয় সকল প্রতিযোগিতায় করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের প্রতিক্রিয়া নিয়ে আলোচনার জন্য উয়েফা ফিফপ্রোর একজন প্রতিনিধি, উয়েফাভুক্ত ৫৫ সদস্য, ইউরোপীয়ান ক্লাব অ্যাসোসিয়েশন এবং ইউরোপীয় লীগের বোর্ডের সাথে একটি ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করে। উক্ত সভা শেষে, উয়েফা ঘোষণা করে যে, উয়েফা ইউরো এই আসরটি এক বছরের জন্য স্থগিত করা হয়েছে এবং একই সাথে তারা ২০২১ সালের ১১ই জুন হতে ১১ই জুলাই পর্যন্ত এই আসরটি আয়োজনের সম্ভাব্য তারিখ ঘোষণা করে। এই স্থগিতাদেশটি ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলোর সরকারী সেবায় চাপ হ্রাস করতে সাহায্য করার পাশাপাশি করোনাভাইরাসের প্রভাব কিছুটা কমে এলে স্থগিত হওয়া ইউরোপীয় দেশগুলোর ঘরোয়া লীগগুলো সমাপ্ত করার সুযোগ করে দিয়েছে। এর পরের দিন, ফিফা কাউন্সিলের দফতর ফিফাভুক্ত আন্তর্জাতিক খেলার পঞ্জিকায় সকল খেলার তারিখ পরিবর্তনের অনুমোদন দেয়। এর ফলস্বরূপ, ২৪ দলের সমন্বয়ে প্রথমবারের মতো আয়োজিত ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপের যা ২০২০ সালের জুন হতে জুলাই মাসের মধ্যে আয়োজনের কথা ছিল সময়সূচী পুনরায় নির্ধারণ করা হবে। ২০২০ সালের ২৩শে এপ্রিল তারিখে, উয়েফা নিশ্চিত করেছে যে এই আসরটির নাম পরিবর্তন করা হবে না; অর্থাৎ এই আসরটি উয়েফা ইউরো ২০২০ নামেই আয়োজন করা হবে।

২০২০ সালের মে মাসে, চেফেরিন বলেছেন যে পূর্বে নির্ধারিতভাবেএই আসরটি ১২টি নির্বাচিত আয়োজক শহর আয়োজন করবে। তবে, তিনি শহরের সংখ্যা হ্রাস করার সম্ভাবনাটি অস্বীকার করেননি, কারণ তিনটি আয়োজক শহর নতুন সময়সূচীর অধীনে ম্যাচ আয়োজন করতে পারবে কিনা তা সম্পর্কে অনিশ্চিত।



                                     

3. বাছাইপর্ব

এই আসরে আয়োজক দেশের স্বয়ংক্রিয়ভাবে চূড়ান্ত পর্বে অংশগ্রহণ করার পদ্ধতি বাতিল করা হয়েছে, যার ফলস্বরুপ উয়েফাভুক্ত ৫৫টি জাতীয় দল যার মধ্যে ১২টি আয়োজক দেশের জাতীয় দল অন্তর্ভুক্ত চূড়ান্ত পর্বে বিদ্যমান ২৪টি স্থানের জন্য বাছাইপর্বে লড়াই করেছে। ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে উয়েফা কর্তৃক আয়োজক শহর নির্ধারণ করা সত্ত্বেও বাছাইপর্বে অংশগ্রহণকারী কোন আয়োজক দেশের জাতীয় দল চূড়ান্ত পর্বে উত্তীর্ণ হতে ব্যর্থ হলেও উক্ত শহরের আয়োজক হওয়ার অধিকার পরিবর্তন করা হবে না।

২০১৮ সালের ২রা ডিসেম্বর তারিখে প্রজাতন্ত্রী আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনের কনভেনশন সেন্টার ডাবলিনে এই আসরের বাছাইপর্বের ড্র অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এই আসরের মূল বাছাইপর্ব ২০১৮ ফিফা বিশ্বকাপের পরপর একই বছরের সেপ্টেম্বর মাসের পরিবর্তে ২০১৯ সালে মার্চ মাসে শুরু হয়েছিল এবং একই বছরের নভেম্বর মাসে শেষ হয়েছে। বাছাইপর্বের বিন্যাসটি পূর্ববর্তী আসরের মতোই ছিল, যদিও চূড়ান্ত পর্বে বিদ্যমান ২৪টি স্থানের মধ্যে কেবল ২০টি মূল বাছাইপর্ব শেষে নিধারিত হয়েছে; অবশিষ্ট ৪টি স্থানের দল নির্ধারণ এখনো বাকি রয়েছ। ২০১৬ সালের মে মাসে উয়েফায় কসোভো ফুটবল দলের অন্তর্ভুক্তির পরে ঘোষণা করা হয়েছিল যে উয়েফা নেশনস লীগের সমাপ্তিপর তৎকালীন উয়েফাভুক্ত ৫৫টি জাতীয় দলকে ১০টি গ্রুপে ৫ দলবিশিষ্ট ৫টি গ্রুপ এবং ৬ দলবিশিষ্ট ৫টি গ্রুপ, যার মধ্যে উয়েফা নেশনস লীগের চূড়ান্ত পর্বের ৪টি দল নিশ্চিতভাবে ৫ দলবিশিষ্ট গ্রুপে অবস্থান করবে বিভক্ত করা হবে, যার মধ্য হতে প্রত্যেক গ্রুপ শীর্ষ ২টি দল চূড়ান্ত পর্বে প্রবেশ করবে। বাছাইপর্বের খেলাগুলো ২০১৯ সালের মার্চ, জুন, সেপ্টেম্বর, অক্টোবর এবং নভেম্বর মাসে দ্বৈত ম্যাচডে-তে আয়োজন করা হয়েছে।

২০১৮ সালে শুরু হওয়া উয়েফা নেশনস লীগ তৈরিপর পর, ২০১৮–১৯ উয়েফা নেশনস লীগ ইউরো বাছাইয়ের সাথে যুক্ত ছিল, যা উক্ত লীগে অংশগ্রহণকারী দলগুলোকে এই আসরে খেলার যোগ্যতা অর্জনের আরেকটি সুযোগ দিয়েছিল। ইতিমধ্যে ইউরোপীয় চ্যাম্পিয়নশিপ উত্তীর্ণ না হওয়া প্রতিটি বিভাগ হতে চারটি দল প্রতিটি বিভাগের প্লে-অফে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। দুটি সেমি ফাইনাল পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দল বনাম পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ দল এবং পয়েন্ট টেবিলের দ্বিতীয় দল বনাম পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় দল খেলার মাধ্যমে প্রতিটি বিভাগের জন্য প্লে অফের বিজয়ী হিসেবে নির্ধারণ করা হবে। অতঃপর উক্ত সেমি ফাইনালে বিজয়ী দুই দলের মধ্যে একটি ফাইনাল খেলার যার মাঠ সেমি ফাইনালে বিজয়ী দলের মধ্যে নির্ধারণ করা হবে আয়োজন করা হবে, উক্ত খেলায় বিজয়ী দল ইতিমধ্যে এই আসরের জন্য উত্তীর্ণ ২০টি দলের সাথে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

                                     

4. পুরস্কারের অর্থমূল্য

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে পুরস্কারের অর্থমূল্য চূড়ান্ত করা হয়েছিল। প্রত্যেক দল €৯.২৫ মিলিয়ন ইউরো উপার্জন করবে যেখানে বিজয়ী দল সর্বোচ্চ €৩৪ মিলিয়ন ইউরো উপার্জন করবে।

                                     
  • উয ফ ইউর - এর জন য ন ল ম হচ ছ এমন একট প রক র য য র ম ধ যম তম ইউর প য চ য ম প য নশ প র য স ধ রণত ইউর ন ম পর চ ত জন য আয জক শহর
  • উয ফ ইউর একট ফ টবল ট র ন ম ন ট য স ল র জ ন এব জ ল ই ম স উয ফ সদস যভ ক ত ট দ শ র অ শগ রহণ অন ষ ঠ ত হব ট র ন ম ন টট স র ব শ ব র
  • উয ফ ইউর ই র জ UEFA Euro 2016, ফর স Championnat d Europe de football 2016 হল উয ফ ইউর প য চ য ম প য নশ প র তম স স করণ উয ফ ইউর
  • উয ফ স প র ক প উয ফ দ ব র আয জ ত উয ফ স প র ক প র তম স স করণ ছ ল, য ট একট ব র ষ ক ফ টবল ম য চ এই ম য চ প রধ ন দ ট ইউর প য ক ল ব প রত য গ ত
  • ন ম ন উয ফ ইউর ব ছ ইপর ব এব ফ ফ ব শ বক প র ব ছ ইপর ব র ইউর প য অঞ চল, উয ফ ন শনস ল গ, উয ফ র স গঠ ত ব ভ ন ন প র ত ম য চ র সম প রচ রক র
  • এছ ড ও উয ফ ইউর - এর ব ছ ইপর ব এব প ল - অফ র জন য দল ন র ধ রণ এই প রত য গ ত র ম ধ যম ই সম পন ন হব স ল র ঠ ড স ম বর ত র খ উয ফ ন র ব হ
  • আসর র ব জয ন র ধ র ত হব প রত ট ল গ হত একট কর ম ট চ রট দ শ উয ফ ইউর ফ ইন ল খ ল র য গ যত অর জন করব এই প রত য গ ত ট ম লত ফ ফ আন তর জ ত ক
  • ল গ এ - এর চ র গ র প র চ র ব জয প রত দ বন দ ব ত করব এই চ রট দল উয ফ ইউর ব ছ ইপর ব র গ র প পর য য প চট দলব শ ষ ট চ রট গ র প স থ ন দখল
  • ম য চট ফ নল য ন ড অন ষ ঠ ত উয ফ ক ল ব প রত য গ ত র প রথম ফ ইন ল হব অল ম প ক স ট ড য মট ইত প র ব উয ফ ন র ইউর - এর ম য চ আয জন কর ছ য খ ন