Back

ⓘ হোয়াট ইফ? (বই)




                                     

ⓘ হোয়াট ইফ? (বই)

যদি এমন হতো?: উদ্ভট প্রকল্পিত প্রশ্নগুলোর রাশভারী উত্তর রান্ডাল মুনরো রচিত একটি নন-ফিকশন বই। এই বইয়ে রচয়িতা বৈজ্ঞানিক প্রশ্নসমূহের উত্তর ওয়েবকমিকের মাধ্যমে প্রদান করেছেন। এই বইয়ে কিছু তালিকাবদ্ধ প্রশ্ন সংকলন প্রকাশিত হয়েছে, যা পূর্বে লেখকের ব্লগে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও কিছু নতুন প্রশ্নের উত্তরও এই বইয়ে প্রদান করা হয়েছে। বইটিতে কয়েক ডজন পরিচ্ছেদ রয়েছে, এই পরিচ্ছেদগুলোর শুরু হয়েছে নতুন প্রশ্নের উত্তর প্রদানের মাধ্যমে। যদি এমন হতো? ২০১৪ সালের ২রা সেপ্টেম্বর বাজারে আসে এবং সমালোচকদের সমাদর পায়।

                                     

1. ব্লগের ধারণা

বইটির শুরুতেই লেখক রান্ডাল মুনরো বলেছেন,শিশুকালে একদা তিনি প্রশ্ন তুলেছিলেন "পৃথিবীতে শক্ত বস্তুর সংখ্যা বেশি নাকি নরম বস্তুর?" এবং এই প্রশ্নের উত্তর এই দাঁড় করান যে, "পৃথিবীতে ত্রিশ কোটি বস্তু নরম প্রকৃতির এবং পঞ্চাশ কোটি বস্তু শক্ত প্রকৃতির।" বাচ্চার সাথে হওয়া এই কথোপকথন লেখকের মাকে আকৃষ্ট করে এবং তিনি লেখকের ছেলেবেলার এই প্রশ্নটি লিখে রাখেন। যদিও মুনরো স্বীকার করেছেন, এই প্রশ্নটি নেহায়েত বোকা বোকা প্রশ্ন কিন্তু তিনি এটাও দেখিয়েছেন, "প্রশ্ন যতই বোকা বোকা হোক না কেন, প্রশ্নের উত্তরের মাধ্যমেই চমকপ্রদ স্থানে পৌঁছানো সম্ভব।"

২০১২ সাল থেকেই মুনরো তার ব্লগে যদি এমন হত? প্রশণের উত্তর দেয়া শুরু করেন। এই প্রশণগুলো তিনি তার ব্লগের পাঠকদের কাছ থেকে পেতেন। তার এই ধারণা মাথায় আসে ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে। এই অনুষ্ঠানে, স্বেচ্ছাসেবকেরা উচ্চ বিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের পছন্দমতো বিষয় পড়ানোর সুযোগ পায়। বন্ধুর কাছ থেকে শুনে মুনরো শক্তি বিষয়ে শিক্ষার্থীদের পড়াতে গেলে আবিষ্কার করেন, শিক্ষার্থীরা খুব একটা আগ্রহ দেখাচ্ছে না। কিন্তু যখন তিনি স্টার ওয়ারস ও লর্ড অব দ্যা রিং এর উদাহরণ দেয়া শুরু করেন, শিক্ষার্থীদের মাঝে আগ্রহ দেখতে পান। এমনকি শিক্ষার্থীরা সেই ক্লাসে পদার্থবিজ্ঞানের গাণিতিক সমস্যাও সমাধান করে। সেইদিনই মুনরো ক্লাসে জিজ্ঞাসিত প্রশ্ন ও উত্তর তার ব্লগে লিপিবদ্ধ করেন।

                                     

2. বিষয়বস্তু

যদি কেমন হত? তে মুনরো প্রধানত পাঠকদের জিজ্ঞাসিত বিভিন্ন বৈজ্ঞানিক তত্ত্বীয় প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। প্রশণগুলো বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সাধারণ নয় এমনকি অস্বাভাবিক ও কাল্পনিক অবস্থায় সৃষ্ট। মুনরোর ব্লগে প্রকাশিত প্রথম প্রশ্নটি ছিল এমন:

৯০শতাংশ আলোর গতিতে আপনি যদি একটি বেসবলকে আঘাতে চেষ্টা করেন, তাহলে কী ঘটবে?

গণিত ও পদার্থবিদ্যার আশ্রয় নিয়ে মুনরো প্রমাণ করেন, এই ঘটনা একটি বৃহৎ বিস্ফোরণ ঘটাবে। বেশিরভাগ প্রশ্নই কল্পনা এবং ধরে নেয়া দিয়ে শুরু হয়। বইটিকে আকর্ষণীয় করে তুলতে মুনরো অঙ্কিত লাঠির মানব চিত্র ভূমিকা রাখে।

                                     

3. পুরস্কার ও মনোনয়ন

২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরের ২ তারিখে প্রকাশিত হওয়ার ২০ দিনের মাথাতেই বইটি "নিউইয়র্ক টাইমস বেস্ট সেলার লিস্টে"র শীর্ষে উঠে যায়। এছাড়াও সেই মাসে "আমাজন এই মাসের সেরা বই" খেতাব পায়। এছাড়াও বইটি ২০১৪ সালের "সেরা নন-ফিকশন বই" বিভাগে গুডরিডসে মনোনীত হয়।