Back

ⓘ বহিপীর




                                     

ⓘ বহিপীর

বহিপীর বাংলাদেশি সাহিত্যিক সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ-র বাংলা ভাষায় রচিত একটি নাটক। এটি ১৯৬০ সালে পূর্ব পাকিস্তানের ঢাকা থেকে প্রথম প্রকাশিত হয়। এর আগে ১৯৫৫ সালে ঢাকায় পিইএন ক্লাবের উদ্যোগে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সম্মেলনে বহিপীর নাটক পুরস্কার লাভ করে।

                                     

1. পটভূমি

বহিপীর নাটকটি উনিশ শতকের শেষভাগ বা বিশ শতকের সূচনালগ্নের পটভূমিতে লেখা। নাটকে দেখা যায়, জমিদার হাতেম আলি সূর্যাস্ত আইনে জমিদারী হারাতে বসেছেন। সূর্যাস্ত আইন প্রণীত হয় ১৭৯৩ সালে আর এ আইনে জমিদারী হারাতে থাকে এ সময় পর্যন্ত। সে সময়ে বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চলে জেঁকে বসা পীরপ্রথা, অন্ধবিশ্বাস আর কুসংস্কার ফুটে উঠেছে এ নাটকে। পীরসাহেবকে ধনী গরিব সবাই অসম্ভব ভয় করে। গ্রামের সাধারণ মানুষ পীরকে পেলে হিতাহিত জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। ধন সম্পদ এমনকি নিজের কন্যাকেও দান করে দেয়। এ নাটকটি শেষ পর্যন্ত আলোর পথ দেখায় ও এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার ইঙ্গিত দেয়।

বহিপীর নামটির একটি প্রতীকী তাৎপর্যও রয়েছে। মূলত মুসলমান সমাজে পীরপ্রথার সৃষ্টি হয় কুসংস্কার ও ধর্মীয় বইয়ের পাতা থেকে। মূলত ইসলাম ধর্মের সুফিবাদী ব্যাখ্যার সূত্র ধরেই পীর সমাজের সৃষ্টি। সে হিসেবে ধর্মীয় ব্যাখ্যা ও মাসায়েল বইয়ের পাতা থেকে মানুষের সংস্কারকে পুঁজি করে ছড়িয়ে পড়া পীরপ্রথাকে তুলে ধরতে বহিপীর নামটি সার্থক।

                                     

2.1. চরিত্রসমূহ বহিপীর

বহিপীর নাটকের কেন্দ্রীয় ও নাম চরিত্র, বাড়ি উত্তরের সুনামগঞ্জ। সাধারণের ভাষা তার কাছে অপবিত্র মনে হওয়ায় তিনি বহি বা বইয়ের ভাষায় কথা বলেন। এছাড়া, সারাদেশে তার অনেক মুরিদ থাকায়, সবার আঞ্চলিক ভাষা শিখা তার সম্ভব নয়। তাই সবাই যেন তার কথা বুঝতে পারে, সেজন্য তিনি বইয়ের ভাষায় কথা বলেন। বহি বা বইয়ের ভাষায় কথা বলার জন্য তার নাম বহিপীর। নাটকে তিনি অত্যন্ত ধৈর্যশীল ও বুদ্ধিমান লোক। চৌদ্দ বছর আগে প্রথম স্ত্রীর মৃত্যুপর মুরিদের কন্যা তাহেরাকে বিয়ে করেন। নাটকে তার ধূর্তবুদ্ধি ও বাস্তব জ্ঞানের পরিচয় পাওয়া যায়।

                                     

2.2. চরিত্রসমূহ হাশেম আলি

নাটকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র। নাটকে বহিপীর খলনায়ক হলে হাশেম হলো নায়ক। জমিদারপুত্র হাশেম ধর্মীয় কুসংস্কার ও সামাজিক অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের প্রতীক চরিত্র। নাটকে তাহেরার প্রতি তার দুর্বলতা লক্ষ্য করা যায়। শেষ পর্যন্ত সে ও তাহেরা নতুন জীবন শুরু করার উদ্দেশ্যে একসাথে পালিয়ে যায়।

                                     

2.3. চরিত্রসমূহ হাতেম আলি

হাতেম আলি রেশমপুরের এক ক্ষয়িষ্ণু জমিদার। খাজনা বাকি পড়ায় তার জমিদারী সূর্যাস্ত আইনে নিলামে উঠেছে। জমিদারী রক্ষার জন্য বন্ধুর কাছে সাহায্য চাইতে চিকিৎসার বাহানায় শহরে আসেন। বহিপীর তার অসহায়ত্বের সুযোগ নেন। কিন্তু হাতেম আলি বহিপীরের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে মানবিকতার পরিচয় দেন।

                                     

2.4. চরিত্রসমূহ খোদেজা বেগম

জমিদারগিন্নি খোদেজা বেগম সাদামাটা ধর্মভীরু ও কুসংস্কারাচ্ছন্ন একটি চরিত্র। নাটকে তিনি অচেনা অসহায় মেয়ে তাহেরাকে আশ্রয় দিয়েছেন, মেয়েটির দুঃখের কাহিনী জেনে ব্যথিত হয়েছেন। আবার মেয়েটি পীরের পালিয়ে আসা স্ত্রী জেনে তাকে ফিরিয়ে দিতে চেয়েছেন। উপলব্ধি করেছেন তাহেরার এ বিয়েটি অন্যায়, কিন্তু পীরের অভিশাপের ভয়ে চুপ থেকেছেন। ছেলে হাশেম আর বহিপীর মুখোমুখি অবস্থান নিলে পীরের পক্ষ নিয়ে নির্ঝঞ্ঝাট থাকতে চেয়েছেন, কিন্তু ছেলেকেও শক্তভাবে দমন করতে পারেন নি। খোদেজার মধ্যে চিরায়ত মায়ের প্রতিমূর্তি ফুটে উঠেছে।

                                     

2.5. চরিত্রসমূহ হকিকুল্লাহ

হকিকুল্লাহ পীরের ধামাধরা ব্যক্তিত্বহীন একটি চরিত্র। সে বহিপীরের সহকারী। নাটকে সে পীরের আজ্ঞা পালন করেই চলেছে।

                                     
  • বহ প র ন টক র জন য, স ল ঢ ক য প ই.এন ক ল ব র উদ য গ এক আন তর জ ত ক ল খক সম ম লন অন ষ ঠ ত হয স খ ন ব ল ন টক র প রত য গ ত য বহ প র দ ব ত য

Users also searched:

...