Back

ⓘ স্নেহাংশুকান্ত আচার্য




                                     

ⓘ স্নেহাংশুকান্ত আচার্য

বাংলাদেশের ময়মনসিংহ জেলার রাজপরিবারে জন্ম হয় স্নেহাংশুকান্তর। মহারাজ শশীকান্ত আচার্য চৌধুরীর কনিষ্ঠ সন্তান স্নেহাংশুকান্ত ১৯৩৬ সালে কলকাতার স্কটিশ চার্চ কলেজ থেকে বি.এ পাশ করে ব্যারিস্টারী পড়ার জন্যে লন্ডনে গেছিলেন।

                                     

1. রাজনৈতিক জীবন

লন্ডনে থাকাকালীন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুকে তিনি গ্রেট ব্রিটেন কমিউনিস্ট পার্টির উচ্চতর নেতৃত্বের সাথে আলাপ করিয়ে দেন। বিরাট বিত্তবান পরিবারের ব্যক্তি হয়েও সাধারন মানুষের সাথে মিশে কাজ করার আগ্রহ ছিল। ১৯৪০ সালে দেশে ফিরে কলকাতা হাইকোর্টে আইন ব্যবসার পাশাপাশি কমিউনিস্ট আন্দোলনে যোগদান করেন। ১৯৪৬ সালে ব্রিটিশ সরকার তাকে ময়মনসিংহ থেকে বহিষ্কার করে। ১৯৪৬ সালের দাংগাবিধ্বস্ত এলাকায় ত্রানের কাজ করেছেন। ১৯৪৭ সালে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টির প্রাদেশিক কমিটির সদস্য হন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পরেও বিনা বিচারে আটক থাকেন ১৯৬৩ খ্রিষ্টাব্দে। তার ইংরেজি লেখা জেলজীবনের অভিজ্ঞতা জেলখানার ডায়েরী নামে বাংলায় অনূদিত ও প্রকাশিত হয়েছে। পার্টি দ্বিধাবিভক্ত হলে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি মার্ক্সবাদী তে যোগ দিয়েছিলেন। ছয় বছর রাজ্য বিধান পরিষদের সদস্য ছিলেন তিনি।

                                     

2. আইন ব্যবসা

আইনজীবী ও ব্যারিস্টার হিসেবে বিশেষ খ্যাতি লাভ করেছিলেন। ১৯৫৭ সালে এফ্রো-এশিয়ান আইনজীবী সম্মেলনের অন্যতম উদ্যোক্তা ছিলেন। পরের বছর, ১৯৫৮ সালে সারা ভারত গণতান্ত্রিক আইনজীবী সংঘের প্রথম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। দ্বিতীয় যুক্তফ্রন্ট সরকারের আমলে প্রথমবারের জন্যে পশ্চিমবঙ্গের এডভোকেট জেনারেল নিযুক্ত হন এবং পরবর্তীতে ১৯৭৭ সালে বামফ্রন্ট সরকার প্রতিষ্ঠাপর থেকে আমৃত্যু এই পদে আসীন ছিলেন।

                                     

3. পরিবার

ময়মনসিংহ রাজপরিবারের সন্তান স্নেহাংশুকান্ত বিবাহ করেন কমিউনিস্ট পার্টির অন্যতম মহিলা নেত্রী সুপ্রিয়া মুখোপাধ্যায়েরআচার্য সাথে। তিনি সেই সূত্রে সাহিত্যিক সৌরীন্দ্রমোহন মুখোপাধ্যায়ের জামাতা। গায়িকা ও রবীন্দ্রসঙ্গীতশিল্পী সুচিত্রা মিত্র তার শ্যালিকা।