Back

ⓘ চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়া




                                     

ⓘ চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়া

চন্দ্রপ্রসাদ শইকীয়া অসমীয়া সাহিত্য জগতের এজকন গল্পকার ও ঔপন্যাসিক। ছাত্রাবস্থায় তিনি ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে যোগদান করে কারারুদ্ধ হয়েছিলেন। সাংবাদিককে জীবিকা রুপে গ্রহণ করে তিনি প্রথম কর্মজীবনে প্রবেশ করেন। একটি ত্রিদৈনিক ও আরেকটি দৈনিক অসমীয়া খবরের কাগজের প্রতিষ্ঠাপক-সম্পাদক রুপে তিনি অসম প্রকাশন পরিষদের সচিব রুপে কার্যনির্বাহ করেন। মহারথী উপন্যাসের জন্য তিনি সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার ও ২০০২ সালে অসম উপত্যকা সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। অসমীয়া সাহিত্যের ধারাবাহিক প্রবাহ রক্ষা করে তিনি অসমীয়া, প্রকাশ ও গরিষসী ইত্যাদি খবরের কাগজে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত বিশেষ ভূমিকা পালন করে যান। তিনি ১৯৯৯ ও ২০০০ সালে অসম সাহিত্য সভার সভাপতিত্ব করেন।

                                     

1. জন্ম ও শিক্ষা

১৯২৭ সালের ৮ জুলাই তারিখে অসমের শিবসাগর জেলার আমগুরির জালুকগাঁও নামক স্থানে জন্ম গ্রহণ করেন। তার পিতার নাম দুর্লভ চন্দ্র শইকীয়া ও মাতার নাম দুর্গেশ্বরী শইকীয়া। ১৯৩০ সালে তার আকস্মিক পিতৃবিয়োগ হয়। ১৯৩৩ সালে তিনি ভূঞাহাত প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সমাপ্ত করেন। ১৯৩৮ সালে আমগুরি এম.ই বিদ্যালয়ে নামভর্তী করেন। ১৯৪১ সালে জাঁজী হাইস্কুলে নামভর্তী করেন। ১৯৪২ সালে ভারত ত্যাগ আন্দোলনে যোগদান করেন। ১৯৪৩ সালে ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণ করেন ও ব্রিটিশ দ্বারা গ্রেপ্তার হয়ে চার মাস কারাবাস খাটেন। ১৯৪৪ সালে পুনরায় কারাবাস হয় ও নয় মাস কারাবাস হয়। ১৯৪৫ সালে শিবসাগর সরকারি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাইভেট পরীক্ষার্থী রুপে প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হন ও গুয়াহাটির কটন কলেজে নামভর্তী করেন।

                                     

2. কর্মজীবন

১৯৫০ সালে তিনি বি.এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন ও কম সময়ের জন্য আমগুরি হাইস্কুলে শিক্ষক রুপে যোগদান করেন। ১৯৫৬ সালে দা আসাম ট্রিবুউন নামক ইংরেজি খবরের কাগজে উপ-সম্পাদক রুপে যোগদান করেন। ১৯৬৩ সালে অসম টিবুউন ছেড়ে অসম বাতরি নামক অসমীয়া খবরের কাগজে যোগদান করেন।

                                     

3. ব্যক্তিগত জীবন

১৯৫৬ সালের ১০ মার্চ তারিখে তিনি প্রভা দাসের সহিত বিবাহ করেন। ১৯৫৯ সালে তাদের শান্তনু নামক একটি পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। ১৯৬৩ সালে মৈত্রেয়ী কন্যা সন্তান জন্ম হয়।