Back

ⓘ ২০১৪ এশিয়া কাপ




২০১৪ এশিয়া কাপ
                                     

ⓘ ২০১৪ এশিয়া কাপ

২০১৪ এশিয়া কাপ ক্রিকেট প্রতিযোগিতার ১২তম আসর ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ৮ মার্চ, ২০১৪ তারিখ পর্যন্ত বাংলাদেশে রাজধানী ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী শহর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় অনুষ্ঠিত হয়। পূর্ববর্তী অন্যান্য বছরের ন্যায় এশিয়া মহাদেশের টেস্টখেলুড়ে দেশ - বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার জাতীয় ক্রিকেট দলের সাথে আইসিসি সহযোগী সদস্য আফগানিস্তান জাতীয় ক্রিকেট দল প্রথমবারের মতো এ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

১৬ জানুয়ারি, ২০১৪ তারিখে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের যৌথ প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত এশিয়া কাপের সময়সূচি ও স্থান ঘোষণা করে। সম্প্রচারস্বত্ত্বজনিত কারণে প্রতিযোগিতাটি অ্যারাইজ এশিয়া কাপ ২০১৪ নামে পরিচিত।

                                     

1. মাঠ

প্রতিযোগিতার জন্য নির্ধারিত ১১টি খেলার ৫টি ফতুল্লায় এবং ফাইনাল ম্যাচসহ বাকি ম্যাচ ঢাকার মিরপুরে অবস্থিত শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। তন্মধ্যে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা’র মধ্যকার উদ্বোধনী খেলাটি ফতুল্লায় অনুষ্ঠিত হবার সিদ্ধান্ত গৃহীত ও বাস্তবায়িত হয়।

                                     

2. দলের সদস্য

ভারতের অধিনায়ক এমএস ধোনি’র আঘাতপ্রাপ্তিতে দল থেকে বাদ পড়েন ও বিরাট কোহলিকে অধিনায়কের দায়িত্ব দেয়াসহ দীনেশ কার্তিককে উইকেট-রক্ষকের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। অশোভন আচরণের অভিযোগে সাকিব আল হাসানকে খেলা থেকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার ফলে ভারত ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিনি খেলতে পারেননি। অন্যদিক তামিম ইকবাল আঘাত পাওয়ায় তিনি দলের বাইরে অবস্থান করেন। আঘাতপ্রাপ্তির জন্য বাংলাদেশের মাশরাফি বিন মর্তুজা ও সোহাগ গাজী যথাক্রমে ভারত ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে অংশগ্রহণ করেননি।

                                     

3. অর্জনসমূহ

শ্রীলঙ্কা
  • গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষে অংশগ্রহণের মাধ্যমে দুই-দেশের সূচনা ঘটে।
  • কুমার সাঙ্গাকারা ৩য় ব্যাটসম্যান হিসেবে গ্রুপ পর্বে ভারতের বিপক্ষে ৪,০০০ রান সংগ্রহ করেন। একই সাথে তিনি ১৮শ সেঞ্চুরি করেন।
  • লাহিরু থিরিমানে গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করেন।
  • লাসিথ মালিঙ্গা চূড়ান্ত খেলায় পাকিস্তানের বিপক্ষে প্রতিযোগিতায় দ্বিতীয়বারের মতো পাঁচ উইকেটসহ এশিয়া কাপের ইতিহাসে তৃতীয়বার পাঁচ উইকেট লাভ করেন। সমগ্র ওডিআইয়ে তিনি সপ্তমবারের মতো পাঁচ উইকেট লাভ করেছেন।
  • মাহেলা জয়াবর্ধনে তার ৭১তম ওডিআই অর্ধ-শতক করেন।
  • লাহিরু থিরিমানে চূড়ান্ত খেলায় পাকিস্তানের বিপক্ষে তার তৃতীয় ওডিআই সেঞ্চুরি করেন ও ৫ খেলায় ২৭৯ রান নিয়ে প্রতিযোগিতায় শীর্ষ রান সংগ্রহকারী হন।
  • কুমার সাঙ্গাকারা গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তার ৮৫তম ওডিআই অর্ধ-শতকসহ এশিয়া কাপে ১২বার ৫০+ রান করেন।
  • সনাথ জয়াসুরিয়া’পর ২য় খেলোয়াড় হিসেবে কুমার সাঙ্গাকারা এশিয়া কাপে হাজার রান স্পর্শ করেন।
বাংলাদেশ
  • আনামুল হক গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি করেন।
  • ইমরুল কায়েস-আনামুল হক ১ম উইকেট জুটিতে পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সেরা উদ্বোধনী জুটি গড়েন।
  • গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের বিপক্ষে একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে নিজেদের সর্বোচ্চ রান ৩২৬/৩ সংগ্রহ করে।
  • গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষে অংশগ্রহণের মাধ্যমে বাংলাদেশের ১ম ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ।
  • মুশফিকুর রহিম গ্রুপ পর্বে ভারতের বিপক্ষে তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি ও দ্বিতীয় সর্বাধিক রান করেন।
ভারত
  • মোহাম্মদ শমী গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলোয়াড়ী জীবনে তার সেরা বোলিং করেন ১০-১-৫০-৪।
  • মোহাম্মদ শমী গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষে দ্বিতীয় দ্রুতম ৫০ উইকেট লাভ করেন।
  • রবিচন্দ্রন অশ্বিন গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তার ১০০তম উইকেট লাভ করেন।
  • বিরাট কোহলি গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে তার ১৯শ সেঞ্চুরি করেন।
  • একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে দ্বিতীয়বারের মতো উভয় দলের অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও বিরাট কোহলি সেঞ্চুরি করেন।
  • ভুবনেশ্বর কুমার গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২য় খেলোয়াড় হিসেবে ওয়াইড বলে স্টাম্পড হন ও একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে কোন বল না খেলেই ডায়মন্ড ডাক লাভ করেন।
  • রবীন্দ্র জাদেজা গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের বিপক্ষে তার ১০০তম ওডিআইয়ে অংশগ্রহণ করেন।
  • বিরাট কোহলি-আজিঙ্কা রাহানে ৩য় উইকেটে ২১৩ রানের রেকর্ড পার্টনারশিপ গড়েন।
পাকিস্তান
  • মিসবাহ-উল-হক একদিনের আন্তর্জাতিকের ইতিহাসে অধিনায়ক হিসেবে ২য়বারের মতো কোন বল না খেলেই গোল্ডেন ডাক লাভ করেন।
  • মোহাম্মদ তালহা গ্রুপ পর্বে ভারতের বিপক্ষে ওডিআই অভিষেক ঘটে।
  • ৩২৭ রান তাড়া করে জয় পাকিস্তানের সর্বোচ্চ সাফল্য।
  • আহমেদ শেহজাদ গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৫ম ওডিআই সেঞ্চুরি করেন।
  • আব্দুর রেহমান গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩টি অবৈধ ফুলটস দেয়ায় এমসিসি’র ৪৩.৬.বি ধারায় দক্ষিণ আফ্রিকার আম্পায়ার যোহান ক্লোয়েত কর্তৃক বোলিংয়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত হন।
  • শহীদ আফ্রিদি গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে রান তাড়া করেন ১৮ বলে যা দ্রুততম অর্ধ-শতক ও একদিনের ইতিহাসে দ্বিতীয় দ্রুততম।
  • মোহাম্মদ হাফিজ গ্রুপ পর্বে ভারতের বিপক্ষে তার ১৯শ ওডিআই অর্ধ-শতক করেন।
  • উমর আকমল গ্রুপ পর্বে আফগানিস্তানের বিপক্ষে তার ২য় সেঞ্চুরি করেন।
  • ফোয়াদ আলম চূড়ান্ত খেলায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তার প্রথম ওডিআই সেঞ্চুরি করেন।
আফগানিস্তান
  • গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম টেস্টভূক্ত দেশের বিপক্ষে জয়লাভ করে।
  • গ্রুপ পর্বে ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ।
  • গ্রুপ পর্বে পাকিস্তানের বিপক্ষে অংশগ্রহণের মাধ্যমে আফগানিস্তান এশিয়া কাপে ৭ম দেশ হিসেবে আবির্ভূত হয়।
  • আসগর স্তানিকজাই গ্রুপ পর্বে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলোয়াড়ী জীবনের সেরা অপরাজিত ৯০* রান সংগ্রহ করেন।


                                     

4. আরও দেখুন

  • একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দশ হাজার বা তদূর্ধ্ব রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যানের তালিকা
  • শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সেঞ্চুরির তালিকা
  • একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মাঠের তালিকা