Back

ⓘ নাটোর জেলা




নাটোর জেলা
                                     

ⓘ নাটোর জেলা

নাটোর জেলা বাংলাদেশের রাজশাহী বিভাগে অবস্থিত একটি জেলা। জেলার উত্তরে নওগাঁ জেলা ও বগুড়া জেলা, দক্ষিণে পাবনা জেলা ও কুষ্টিয়া জেলা, পূর্বে পাবনা জেলা ও সিরাজগঞ্জ জেলা এবং পশ্চিমে রাজশাহী জেলা অবস্থিত। জেলাটি ১৯০৫.০৫ বর্গ কিলোমিটার আয়তন।এই জেলাটি মূলত বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমের আটটি জেলার মধ্য একটি জেলা।আয়তনের দিক দিয়ে নাটোর বাংলাদেশের ৩৫ তম জেলা। নাটোর জেলা দূর্যোগপ্রবণ এলাকা না হলেও সিংড়া ও লালপুর উপজেলায় আত্রাই এবং পদ্মা নদীতে মাঝে মাঝে বন্যা দেখা দেয়। সদর ও নাটোরের সকল উপজেলার আবহাওয়া একই হলেও লালপুরে গড় তাপমাত্রা তুলনামূলক বেশি। পুরোনো নিদর্শনের মধ্য এই জেলার এক সমৃদ্ধ ঐতিহ্য রয়েছে।

                                     

1. জেলার পটভূমি

নাটোর মুঘল শাসনামলের শেষ সময় থেকে বাংলার ক্ষমতার অন্যতম প্রাণকেন্দ্রে পরিণত হয়। বিশেষ করে নবাবী আমলে নাটোরের ব্যাপক ব্যাপ্তি ঘটে। বাংলার সুবেদার মুর্শিদ কুলী খানের ১৭০১-১৭২৭ শাসনকাল প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে বরেন্দ্রী ব্রাহ্মণ রঘুনন্দন তার ছোটভাই রামজীবনের নামে এতদ অঞ্চলে জমিদারী প্রতিষ্ঠা করেন। রাজা রামজীবন রায় নাটোর রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা। কথিত আছে লস্কর খাঁতার সৈন্য-সামন্তদের জন্য যে স্থান হতে রসদ সংগ্রহ করতেন, কালক্রমে তার নাম হয় লস্করপুর পরগনা। এই পরগনার একটি নিচু চলাভূমির নাম ছিল ছাইভাংগা বিল। ১৭১০ সনে রাজা রামজীবন রায় এই স্থানে মাটি ভরাট করে তার রাজধানী স্থাপন করেন। কালক্রমে মন্দির, প্রাসাদ, দীঘি, উদ্যান ও মনোরম অট্টালিকা দ্বারা সুসজ্জিত নাটোর রাজবাড়ী প্রস্তুত হয়। পরে আস্তে আস্তে পাশের এলাকায় ঊন্নয়নের ধারাবাহিকতায় একসময় নগরী পরিণত হয়। সুবেদার মুর্শিদ কুলী খানের সুপারিশে মুঘল সম্রাট আলমগীরের নিকট হতে রামজীবন ২২ খানা খেলাত এবং রাজা বাহাদুর উপাধি লাভ করেন। নাটোর রাজ্য উন্নতির চরম শিখরে পৌছে রাজা রামজীবনের দত্তক পুত্র রামকান্তের স্ত্রী রাণী ভবানীর রাজত্বকালে । ১৭৮২ সালে ক্যাপ্টেন রেনেল এর ম্যাপ অনুযায়ী রাণী ভবানীর জমিদারীর পরিমাণ ছিল ১২৯৯৯ বর্গমাইল । শাসন ব্যবস্থার সুবিধার জন্য সুবেদার মুর্শিদ কুলী খান বাংলাকে ১৩ টি চাকলায় বিভক্ত করেন। এর মধ্যে রাণী ভবানীর জমিদারী ছিল ৮ চাকলা বিস্তৃত। এই বিশাল জমিদারীর বাৎসরিক আয় ছিল দেড় কোটি টাকার অধিক। বর্তমান বাংলাদেশের রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, রংপুর, দিনাজপুর, কুষ্টিয়া, যশোর এবং পশ্চিমবঙ্গের মালদা, মুর্শিদাবাদ ও বীরভূম জেলাব্যাপী বিস্তৃত ছিল তার রাজত্ব। এছাড়া ময়মনসিংহ জেলার পুখুরিয়া পরগণা এবং ঢাকা জেলার রাণীবাড়ী অঞ্চলটিও তার জমিদারীর অন্তর্গত ছিল। এ বিশাল জমিদারীর অধিশ্বরী হওয়ার জন্যই তাকে মহারাণী উপাধী দেয়া হয় এবং তাকে অর্ধ-বঙ্গেশ্বরী হিসাবে অভিহিত করা হতো। একে কেন্দ্র করেই গড়ে উঠেছিল এ অঞ্চলের সর্ববৃহৎ সামন্তরাজ এবং এক মহিয়ষী নারীর রাজ্যশাসন ও জনকল্যাণ ব্যবস্থা।

নাটোরের রাজারা এই বিশাল জমিদারী পরিচালনা করতো নিজস্ব প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনায় । নবাবী আমলে তাদের নিজস্ব দেওয়ানী ও ফৌজদারী বিচারের ক্ষমতা ছিল। শান্তি শৃংখলা রক্ষার জন্য তাদের নিজস্ব পুলিশবাহিনী এবং জেলখানা ছিল। ১৮৭৩ সালে ইংরেজ সরকারের এক ঘোষণাবলে রাণী ভবানীর দত্তকপুত্র রামকৃষ্ণ এর হাত থেকে কোম্পানী পুলিশ ও জেলখানা নিজ হাতে তুলে নেয়। কোম্পানী নিজহাতে জেলখানার দায়িত্ব নিয়ে প্রতি জেলায় জেলখানা স্থাপন করে। ইংরেজদের কর্তৃক পরিচালিত প্রথম জেলখানা নাটোরে প্রতিষ্ঠিত হয়।

রাণী ভবানীর শাসনামল পর্যন্ত নাটোর শহরের দক্ষিণ পাশ দিয়ে প্রবাহিত হতো স্রোতস্বিনী নারদ নদ । পরবর্তীকালে নদের গতিমুখ বন্ধ হয়ে গেলে সমগ্র শহর এক অস্বাস্থ্যকর পরিবেশের মধ্যে নিপতিত হয়। ড্রেনেজ ব্যবস্থা, বদ্ধজল এবং পয়ঃনিষ্কাশনের একমাত্র সংযোগস্থল ছিল নারদ নদ। সেই নদ অচল হয়ে পড়ায় শহরের পরিবেশ ক্রমাগত দূষিত হয়ে পড়ে। ইংরেজ শাসকরা সেজন্য জেলাসদর নাটোর হতে অন্যত্র স্থানান্তরের উদ্যোগ গ্রহণ করে। মি. প্রিংগল ১৮২২ সালে ২৩ শে এপ্রিল জেলাসদর হিসাবে পদ্মানদীর তীরবর্তী রামপুর-বোয়ালিয়ার নাম ঊল্লেখ করে প্রস্তাবনা পেশ করেন। ১৮২৫ সালে নাটোর থেকে জেলা সদর রামপুর-বোয়ালিয়াতে স্থানান্তরিত হয়। জেলা সদর স্থানান্তরেপর ইংরেজ সরকার মহকুমা প্রশাসনের পরিকাঠামো তৈরি করে। সেই পরিকল্পনা অনুযায়ী মহকুমা হিসাবে নাটোরের পদাবনতি ঘটে। তারপর দীর্ঘ ১৬৫ বছর অর্থাৎ ইংরেজ, পাকিস্তান এবং বাংলাদেশের চৌদ্দ বছরের প্রশাসনিক ইতিহাসে নাটোর মহকুমা সদর হিসাবে পরিচিত ছিল। ১৯৮৪ সালে বৃহত্তর রাজশাহী জেলা ভেঙ্গে নাটোর পুনরায় জেলাসদরের মর্যাদা লাভ করে।

দিঘাপতিয়ার জমিদার বাড়ী বর্তমানে উত্তরা গণভবন

রাজা রামজীবন রায় ১৭৩০ সালে মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুর পূর্বে তিনি রাজা রামকান্ত রায় কে রাজা এবং দেওয়ান দয়ারাম রায়কে তার অভিভাবক নিযুক্ত করেন। রামকান্ত রাজা হলেও প্রকৃত পক্ষে সম্পূর্ণ রাজকার্যাদি পরিচালনা করতেন দয়ারাম রায়। তার দক্ষতার কারণে নাটোর রাজবংশের ঊত্তোরত্তর সমবৃদ্ধি ঘটে। ১৭৪৮ সালে রামকান্ত পরলোক গমন করেন। স্বামীর মৃত্যুপর রাণী ভবানীকে নবাব আলীবর্দী খাঁ বিস্তৃত জমিদারী পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করেন। নাটোরের ইতিহাসে জনহিতৈষী রাণী ভবানী হিসেবে অভিহিত এবং আজও তার স্মৃতি অম্লান। বাংলার স্বাধীন নবাব সিরাজ-উদ্-দৌলার সাথে রাণী ভবানীর আন্তরিক সুসম্পর্ক ছিল। পলাশীর যুদ্ধে রাণী ভবানী নবাবের পক্ষ অবলম্বন করেন।

পরবর্তীতে রাণী ভবানীর নায়েব দয়ারামের উপরে সন্তুষ্ট হয়ে তিনি দিঘাপতিয়া পরগনা তাকে উপহার দেন। দিঘাপতিয়ায় প্রতিষ্ঠিত বর্তমান উত্তরা গণভবনটি দয়ারামের পরবর্তী বংশধর রাজা প্রমদানাথের সময় গ্রীক স্থাপত্য কলার অনুসরনে রূপকথার রাজ প্রাসাদে উন্নীত হয়। কালক্রমে এই রাজপ্রাসাদটি প্রথমত গভর্নর হাউস, পরবর্তীতে বাংলাদেশ অভ্যূদয়ের পরে উত্তরা গণভবনে পরিণত হয়।

                                     

2. ভৌগোলিক সীমানা

এই জেলার উত্তরে নওগাঁ জেলা ও বগুড়া জেলা, দক্ষিণে পাবনা জেলা ও কুষ্টিয়া জেলা, পূর্বে পাবনা জেলা ও সিরাজগঞ্জ জেলা এবং পশ্চিমে রাজশাহী জেলা অবস্থিত। আয়তন ১৯০৫.০৫ বর্গ কিলোমিটার। নাটোরসহ এর পার্শ্ববর্তী বগুড়া ও সিরাজগঞ্জে অবস্থিত চলন বিল হচ্ছে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় বিল। বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে কমবৃষ্টিপাত হয় নাটোরের লালপুর উপজেলায়।

                                     

3. প্রধান নদী

উল্লেখযোগ্য নদীগুলোর মধ্যে রয়েছে

  • তুলসীগঙ্গা
  • নারদ নদ
  • পদ্মা নদী
  • নাগর নদ সহ এই জেলায় ৩২ টি নদ-নদী এবং চলনবিল ও হালতির বিল সহ অসংখ্য খাল-বিল রয়েছে।
  • আত্রাই
  • বড়াল নদী
                                     

4. প্রশাসনিক এলাকাসমূহ

নাটোর জেলা ৭ টি উপজেলা,৭টি থানা এবং ৮টি পৌরসভা রয়েছে।নাটোরে সংসদীয় আসন ৪টি। নাটোর জেলার উপজেলাগুলো হলঃ

  • গুরুদাসপুর উপজেলা
  • বড়াইগ্রাম উপজেলা
  • লালপুর উপজেলা
  • সিংড়া উপজেলা
  • বাগাতিপাড়া উপজেলা
  • নলডাঙ্গা উপজেলা
  • নাটোর সদর উপজেলা

নাটোর জেলার পৌরসভা হলোঃ

  • নাটোর পৌরসভা ক শ্রেনী
  • গুরুদাসপুর পৌরসভা ক শ্রেনী
  • বাগাতিপাড়া পৌরসভা গ শ্রেনী
  • বড়াইগ্রাম পৌরসভা খ শ্রেনী
  • সিংড়া পৌরসভা ক শ্রেনী
  • গোপালপুর পৌরসভা খ শ্রেনী
  • বনপাড়া পৌরসভা ক শ্রেনী
  • নলডাঙ্গা পৌরসভা খ শ্রেনী

সংসদীয় আসনঃ

  • ৫৮ নাটোর-১ লালপুর,বাগাতিপাড়া
  • ৬১ নাটোর-৪ গুরুদাসপুর,বড়াইগ্রাম। এছাড়া এই জেলায় ১টি হাইওয়ে থানা,বনপাড়া হাইওয়ে থানা, ১টি হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি ঝলমলিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ি, ২টি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র বনপাড়া ও আব্দুলপুর, ৬টি পুলিশ ফাঁড়ি কালীগঞ্জ,বামিহাল,উপরবাজার, নিচাবাজার,ওয়ালিয়া, জামনগর ।
  • ৬০ নাটোর-৩ সিংড়া
  • ৫৯ নাটোর-২ সদর,নলডাঙ্গা


                                     

5. যোগাযোগ ব্যবস্থা

  • রেলপথঃনাটোর জেলায় প্রায় ৭৫ কিলোমিটার রেললাইন রয়েছে। সারা দেশের সাথে এই জেলার উন্নত রেল যোগাযোগ রয়েছে। এই জেলায় ১২টি রেলওয়ে স্টেশন রয়েছে যথা-১.নাটোর রেলওয়ে স্টেশন ২.ঈশ্বরদী বাইপাস রেলওয়ে স্টেশন ৩.আব্দুলপুর জংশন রেলওয়ে স্টেশন ৪.মাঝগ্রাম জংশন রেলওয়ে স্টেশন ৫.মাধনগর রেলওয়ে স্টেশন ৬.আজিমনগর রেলওয়ে স্টেশন ৭.নলডাঙ্গা রেলওয়ে স্টেশন ৮.বাসুদেবপুর রেলওয়ে স্টেশন ৯.ইয়াছিনপুর রেলওয়ে স্টেশন ১০.মালঞ্চি রেলওয়ে স্টেশন ১১.বীরকুটশা রেলওয়ে স্টেশন ১২.লোকমানপুর রেলওয়ে স্টেশন।
  • বিমানপথঃনাটোর জেলার লালপুর উপজেলার ঈশ্বরদী ইউনিয়নে ঈশ্বরদী বিমানবন্দর নামে একটি বিমানবন্দর রয়েছে। এছাড়া নাটোর সদর উপজেলায় ১টি ও বাগাতিপাড়া উপজেলার কাদিরাবাদ সেনানিবাস ১টি হেলিপোর্ট রয়েছে।
  • নদীপথঃ সারা দেশের সাথে নাটোর জেলা সদরের নৌ-যোগাযোগ ব্যবস্থা অনুন্নত হলেও নাটোর জেলার লালপুর,সিংড়া,গুরুদাসপুর উপজেলার উন্নত নৌ-যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে।
  • সড়কপথঃ রাজধানী ঢাকা সহ প্রত্যক বিভাগীয় শহর ও জেলা শহরগুলোর সাথে নাটোর জেলার উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে। এই জেলার অধিনে ৪টি মহাসড়ক যথা-নাটোর-রাজশাহী মহাসড়ক,নাটোর-বগুড়া-রংপুর মহাসড়ক,নাটোর-সিরাজগঞ্জ-ঢাকা মহাসড়ক,নাটোর-পাবনা-কুষ্টিয়া-যশোর মহাসড়ক এবং ১টি আঞ্চলিক মহাসড়ক নাটোর-নওগাঁ মহাসড়ক রয়েছে এছাড়া ১৪ টি জেলা সড়ক সহ ছোট বড় অনেক রাস্তা রয়েছে এই জেলায়।
                                     

6. ইতিহাস

অষ্টাদশ শতকের শুরুতে নাটোর রাজবংশের উৎপত্তি হয়। ১৭০৬ সালে পরগণা বানগাছির জমিদার গণেশ রায় ও ভবানী চরণ চৌধুরী রাজস্ব প্রদানে ব্যর্থ হয়ে চাকরিচ্যুত হন। দেওয়ান রঘুনন্দন জমিদারিটি তার ভাই রামজীবনের নামে বন্দোবস্ত নেন । এভাবে নাটোর রাজবংশের পত্তন হয়। রাজা রামজীবন নাটোর রাজবংশের প্রথম রাজা হিসেবে প্রতিষ্ঠা লাভ করেন ১৭০৬ সালে মতান্তরে ১৭১০ সালে । ১৭৩৪ সালে তিনি মারা যান । ১৭৩০ সালে রাণী ভবানীর সাথে রাজা রাম জীবনের দত্তক পুত্র রামকান্তের বিয়ে হয় । রাজা রাম জীবনের মৃত্যুর পরে রামকান্ত নাটোরের রাজা হন। ১৭৪৮ সালে রাজা রামকান্তের মৃত্যুর পরে নবাব আলীবর্দী খাঁ রাণী ভবানীর ওপর জমিদারি পরিচালনার দায়িত্ব অর্পণ করেন । রাণী ভবানীর রাজত্বকালে তার জমিদারি বর্তমান রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, কুষ্টিয়া, যশোর, রংপুর, পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ, বীরভূম, মালদহ জেলা পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

নাটোরে নীল বিদ্রোহ ১৮৫৯-১৮৬০ তে সংঘটিত হয়। ১৮৯৭ সালের জুনে নাটোরে বঙ্গীয় প্রাদেশিক কংগ্রেসের অধিবেশন হয় । সত্যেন্দ্রনাথ ঠাকুর সভাপতি, মহারাজা জগদিন্দ্রনাথ অভ্যর্থনা সমিতির সভাপতি ও প্রধান উদ্যোক্তা ছিলেন। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ও মহারাজা জগদিন্দ্রনাথের চেষ্টায় সেবারই প্রথম রাজনৈতিক সভায় বাংলা ভাষার প্রচলন করা হয়। ১৯০১ সালে মহারাজা জগদিন্দ্রনাথ কলকাতা কংগ্রেসের অভ্যর্থনা সমিতির সভাপতি হন। ১৮৪৫ সালে রাজশাহী জেলার অধীনে নাটোর মহকুমার সৃষ্টি। আর অন্যান্য মহকুমার মতো জেলায় উন্নীত হয় ১৯৮৪ সালে।

১৯৭১ সালের ৫ মে গোপালপুরের চিনিকলের এম.ডি. মো. আজিম সহ প্রায় ২০০ মানুষকে নৃশংসভাবে পাকবাহিনী হত্যা করে। এই বধ্যভূমিতে নির্মাণ করা হয়েছে শহীদ মিনার এবং রেলস্টেশনের নামকরণ হয়েছে আজিমনগর। ১৭৬৯-১৮২৫ সাল পর্যন্ত নাটোর রাজশাহীর জেলার সদর দফতর ছিল। প্রতিস্থাপনের প্রাক্কালে নাটোরকে মহকুমা হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছিল; সে কারণেই নাটোর বাংলাদেশের প্রথম মহকুমা। নাটোর ১৯৮৪ সালে একটি জেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।



                                     

7. শিক্ষা ও চিকিৎসা

শিক্ষাঃ নাটোর জেলায় সাক্ষরতার হার ৭০%।এই জেলায় ১ টি সরকারি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ১টি আর্মি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ১টি বেসরকারি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ১টি সরকারি টেক্সটাইল ইনিস্টিটিউট,৮টি সরকারি কলেজ সহ অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। চিকিৎসাঃ জেলা হাসপাতাল ১টি,উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ৬টি,মাতৃসদন ২টি, কমিউনিটি ক্লিনিক ১২৪টি, বেসরকারি হাসপাতাল ২৮টি,ডায়াগনস্টিক সেন্টার ৫২টি,সামরিক হাসপাতাল ১টি, মিশন হাসপাতাল ২টি। এই জেলায় কোন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল নেই ফলে বিভিন্ন সময় এ জেলার মানুষকে চিকিৎসা সেবার জন্য পাশ্ববর্তী জেলার নির্ভর করতে হয় যা অনেক কষ্টকর। এই জেলায় একটি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা কেবলমাত্র সময়ের দাবি।

                                     

8. জেলার উল্লেখযোগ্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

  • সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়
  • কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ
  • নব বিধান গার্লস স্কুল
  • চামারী বি.এন. উচ্চ বিদ্যালয়
  • শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সরকারি মহিলা কলেজ
  • কলসনগর উচ্চ বিদ্যালয়
  • সিংড়া দমদমা পাইলট স্কুল ও কলেজ
  • গোল-ই-আফরোজ সরকারি কলেজ, সিংড়া
  • বাগাতিপাড়া পাইলট স্কুল
  • আব্দুলপুর সরকারি কলেজ লালপুর
  • নাটোর সুগারমিল উচ্চ বিদ্যালয়
  • ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়া কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়
  • দিঘাপতিয়া এম. কে. কলেজ
  • রাণী ভবানী সরকারি মহিলা কলেজ
  • মহারাজা উচ্চ বিদ্যালয়
  • পারভীন পাবলিক উচ্চ বিদ্যালয়
  • নর্থ বেঙ্গল সুগার মিলস হাই স্কুল
  • রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • বিলচলন শহীদ সামসুজ্জোহা সরকারি কলেজ
  • সেন্ট যোসেফস্ স্কুল এন্ড কলেজ
  • গুরুদাসপুর পাইলট মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়
  • নাটোর টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট
  • রাজশাহী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
  • বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় BAUET
  • চৌগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ
  • মহিষমারী উচ্চ বিদ্যালয়
  • নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারি কলেজ
  • কাছিকাটা স্কুল এন্ড কলেজ
  • বড়গাছা উচ্চ বিদ্যালয়
  • নাটোর মহিলা কলেজ
  • কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল, দয়ারামপুর, নাটোর
  • নাজিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • কলম উচ্চ বিদ্যালয়
  • মৌখাড়া উচ্চ বিদ্যালয়
  • তেবাড়িয়া উচ্চ বিদ্যালয়
  • কাছিকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • নাটোর সিটি কলেজ
  • গ্রীন একাডেমী উচ্চ বিদ্যালয়
  • তিরাইল উচ্চ বিদ্যালয়
  • ইয়াছিনপুুুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • শের ই বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়
  • পীরগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়
  • কাদিরাবাদ ক্যান্টনমেন্ট স্যাপার কলেজ
  • করিমপুর ‍সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় আব্দুলপুর
  • সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
  • রাজাপুর ডিগ্রি কলেজ বড়াইগ্রাম নাটোর
  • মহারাজা জে.এন উচ্চ বিদ্যালয়
  • সিংড়া চলনবিল মহিলা ডিগ্রি কলেজ
  • মহিষমারী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়
                                     

9. সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান

জেলা শিল্পকলা একাডেমী, মনোবীণা সংঘ, সাকাম সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, নাটোর সংগীত বিদ্যালয়, উষা খেলাঘর আসর, ভোলামন বাউল সংগঠন, ইছলাবাড়ী বাউল সংগঠন, নৃত্যাঙ্গন, তরুণ নাট্য সম্প্রদায়, ডিং ডং ড্যান্স ক্লাব, দিব্য সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান, সারেগামা, সুরের ছোঁয়া, ঝংকার নৃত্য গোষ্ঠি, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক পরিষদ, ইংগিত থিয়েটার ইত্যাদি।

                                     

10. অর্থনীতি

জেলার প্রধান উৎপাদিত ফসল হলো ধান । এছাড়াও এখানে রসুন, ইক্ষু, গম, ভুট্টা, আখ, পান ইত্যাদি উৎপাদিত হয়। এখানকার বিলুপ্তপ্রায় ফসল নীল, বোনা আমন ও আউশ ধান। এখানে বেশ কয়েকটি ভারি শিল্প রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে দুইটি চিনিকল, ডিস্টিলারি,প্রান জুসের কারখানা,দত্তপাড়া বিসিক এলাকা,রাজলংকা বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র,চামড়া সংরক্ষণ ও পক্রিয়াকরন এলাকা চামড়াপ্পট্টি, জুট মিল প্রস্তাবিত,পদ্মা অয়েল সংরক্ষণ এলাকা রয়েছে,যা নাটোর রেলওয়ে স্টেশনের পশ্চিম পাশে।এইখানে ওয়ানগনবাহী ট্রেন থেকে তেল উত্তলোন করা হয়। দেশের ১৬টি চিনিকলের মধ্যে ২টি এই জেলায় অবস্থিত। এছাড়াও মূলতঃ এই জেলায় উৎপাদিত আখের উপর নির্ভর করে পার্শ্ববর্তী রাজশাহী ও পাবনা জেলায় গড়ে উঠেছে আরও দুইটি চিনিকল।

এছাড়া বাংলাদেশের বৃহত্তম প্রাণ কোম্পানীর বেশিরভাগ কাঁচামাল নাটোর জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসে।সম্প্রতি এখানে আপেল কুল, বাউ কুল,থাই কুলের ব্যাপক চাষ হচ্ছে ।

                                     

10.1. অর্থনীতি উল্লেখযোগ্য শিল্প প্রতিষ্ঠান

  • নর্থ বেঙ্গল সুগারমিল লালপুর
  • পারটেক্স এগ্রো লিমিটেড
  • নাটোর বিসিক শিল্প এলাকা
  • চামড়া শিল্প
  • নাটোর সুগার মিল লিমিটেড
  • পদ্মা অয়েল কোম্পানি লিমিটেড ১১.নাটোর এগ্রো লিমিটেড ১২.নাটোর অর্থনৈতিক অঞ্চল -১ লালপুর,নাটোর ১৩.নাটোর অর্থনৈতিক অঞ্চল-২নাটোর সদর,নাটোর ১৪.নবতি ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড
  • যমুনা ডিস্টিলারি লিমিটেড
  • কিশোয়ান এগ্রো লিমিটেড
  • রাজলংকা বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র
  • প্রাণ এগ্রো লিমিটেড

এছাড়া অনেক মাঝারি ও ক্ষুদ্র শিল্প রয়েছে।

                                     

11. চিত্তাকর্ষক স্থান

  • দয়ারামপুর জমিদার বাড়ি
  • তিসীখালি মাজার
  • পদ্মার তীর, লালপুর
  • চলনবিল
  • পদ্মার চর, লালপুর
  • চৌগ্রাম জমিদার বাড়ি
  • বুধপাড়া কালীমন্দির, লালপুর
  • ধরাইল জমিদার বাড়ি
  • গ্রীন ভ্যালি পার্ক, লালপুর
  • হালতির বিল
  • বঙ্গজল রাজবাড়ী বা রানীভবানী রাজবাড়ী
  • ভেল্লাবাড়ি মসজিদ, লালপুর
  • লুর্দের রানী মা মারিয়ার ধর্মপল্লী, নাটোর
  • উত্তরা গণভবন দিঘাপতিয়ার রাজবাড়ি
  • শহীদ সাগর, লালপুর
  • আত্রাই নদী
  • চলনবিল জাদুঘর
  • গোসাই আশ্রম, লালপুর
                                     

12.1. সংস্কৃতি মাদার গান

মাদার গান বাংলার লোকসংস্কৃতির এক অমূল্য সৃষ্টি। মাদার গানের মূল উপজীব্য হল শাহ মাদার নামক পীরের গুণগান। মাদার অনুসারীদের ধারনা, মাদার পীর একজন মারেফতি পীর। কথিত আছে, বেহেস্ত থেকে হারুত-মারুত নামক দুজন ফেরেস্তা পৃথিবীতে এসে এক সুন্দরী নারীর প্রেমে পতিত হন ও তাদের প্রেমের ফলেই জন্ম হয় মাদার পীরের; তবে বাস্তবে এ কাহিনীর ঐতিহাসিক অস্তিত্ব পাওয়া যায় নি। গ্রামাঞ্চলের মানুষেরা রোগ-শোক ও সকল প্রকার অমঙ্গল থেকে রক্ষা পাবার জন্য মাদার পীরের কাছে মাণ্যত করার জন্য যে অনুষ্ঠানের প্রচলন করে তা মাদার গান নামে পরিচিত হয়।

অন্যদিকে গবেষকরা মাদার পীরকে ঐতিহাসিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে অভিহিত করেন। ডঃ মুহম্মদ শহীদুল্লাহর মতে, মাদার পীরের প্রকৃত নাম বদিউদ্দিন শাহ মাদার। তার অনুসারীদের মাদারিয়া বলা হয়। অঞ্চলভেদে মাদার পীর ‘শাহ মাদার’ বা ‘দম মাদার’ নামে অবিহিত হন।

মাদার গানের জারিতে মাদার পীরের প্রতীক হিসেবে একটি বাঁশ ব্যবহার করা হয়। প্রধান বয়াতি গান গাইতে গাইতে বাঁশঝাড়ে গিয়ে একটি ধারালো ছুড়ি দিয়ে এক কোপে একটি বাঁশ কাটেন। এরপর বাঁশটিকে নদীতে স্নান করিয়ে লাল কাঁপড় দিয়ে বেঁধে গৃহস্থ বাড়ীর নির্দিষ্ট আসনে উচু স্থানে স্থাপন করেন। বাঁশটিকে ভূমি স্পর্শ করতে দেয়া হয়না। লোকজন তাদের মনবাসনা পূরনের জন্য আসনে বসে প্রার্থনা করতে থাকেন। প্রার্থনা শেষে একটি খোলা স্থানে পাটি বিছিয়ে মাদার পীরের বন্দনা করে পালাগান শুরু করেন বয়াতি। গানের প্রধান চরিত্র মাদার পীর ও তার শিষ্য জুমল শাহ। এছাড়া থাকেন কয়েকজন দোহার-বায়েন। সবাই গোল হয়ে একটি পাটিতে বসেন যাদের চারপাশে ঘুরে ঘুরে মাদার পীর ও জুমল শাহ গান গাইতে থাকেন।

মেয়েরা চোখ ঝলসানো সাজগোজ করে। চুমকী বসানো শাড়ী, জরির ওড়না, মুখে-হাতে রং মেখে এরা নাচে অংশ নেয়। মাদারের পোশাক থাকে দরবেশের মতো। মাথায় তাজ, পরনে লম্বা আলখাল্লা, গলায় তসবি, আর হাতে থাকে একটি লাঠি। পা থাকে পাদুকাহীন, কখনও বা বেড়ি পড়ানো। জুমল শাহ ও অন্যান্য দোহার-বায়েনরা সাধারন পোশাক ধুতিবস্ত্র পরিধান করে। হারমোনিয়াম, ঢোল, কাসর, মন্দিরা বাজিয়ে এরা গান ও অভিনয়ে অংশ নেয়।

মাদার গানের বেশ কয়েকটি পালাগান রয়েছে। এর মধ্যে মাদারের জন্ম খন্ড, কুলসুম বিবির পালা, মাদারের ওরসনামা, বড় পীরের পালা, জুমলের জন্মকাহিনী, হাশর-নাশর, খাকপত্তন পালা, মাদারের শেষ ফকিরি, বিবি গঞ্জরার পালা ইত্যাদি উল্লেখযোগ্য। অনুষ্ঠানের শুরুতে মাদার পীরের বন্দনাপর দর্শকদের কিংবা বায়োজোষ্ঠ্যদের ইচ্চানুযায়ী যেকোন একটি পালা গাওয়া হয়, রাতভর চলতে থাকে অনুষ্ঠান।

বাংলা নাট্যসাহিত্যের ইতিহাসে মাদার গানের বিশেষ অবস্থান রয়েছে। বাংলা নাটকের যে নিজস্ব ধারা, মাদার গানের মধ্যে তা লক্ষ্য করা যায়। বাংলা নাটকের আঙ্গিক ও পরিবেশন রীতির সকল বৈশিষ্ট্য মাদার গানের ভেতর রয়েছে। মৌলিক আচার, কাহিনী, পোশাক ও মঞ্চব্যবস্থাপনার এক বিশেষ নিদর্শন এই মাদার গান।

পদ্মপুরাণ বা মনসার গান ও ভাসান যাত্রা বিয়ের গীত বারোসা গান মুর্শিদী গান


                                     

13. কৃতী ব্যক্তিত্ব

  • সুলতানা ইয়াসমিন লায়লা - সঙ্গীত শিল্পী, ক্লোজআপ ওয়ান-২০১২ প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন
  • রাধাচরন চক্র্যবর্তী -সাহিত্যিক
  • কার্তিক উদাস,বাউলবাংলাদেশ বেতার, লেখক, শিক্ষক।
  • আলমগীর মহিউদ্দিন, সম্পাদক দৈনিক নয়া দিগন্ত।
  • শরৎ কুমার রায়- বাংলাদেশের প্রথম জাদুঘর বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর এর প্রতিষ্ঠাতা
  • হানিফ উদ্দীন মিয়া পরমানুবিদ,উপমহাদেশের প্রথম কম্পিউটার প্রোগ্রামার
  • তাইজুল ইসলাম ক্রিকেটার, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল।
  • রাণী ভবাণী
  • মোঃ মাকসুদুর রহমান - জিন রহস্য আবিষ্কারক;
  • প্রফেসর আব্দুস ছাত্তার, ডিপার্টমেন্ট অব ওরিয়েন্টাল আর্ট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।
  • শফিয়দ্দিন সরদারঐতিহাসিক ঔপন্যাসিক। নাটোর সদর।
  • আবু হেনা রনি - একজন স্ট্যান্ড আপ কমেডিয়ান, অভিনেতা, উপস্থাপক ও মডেল।
  • প্রমথনাথ বিশী১১ জুন ১৯০১-১০ মে ১৯৮৫ একজন লেখক,শিক্ষাবিদ ও অধ্যাপক।
  • স্যার যদুনাথ সরকার - সাহিত্যিক এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় এর উপাচার্য ছিলেন।
  • অধ্যক্ষ এম. এ. হামিদ।
  • শংকর গোবিন্দ চৌধুরীরাজনীতিবিদ
  • জুনাইদ আহমেদ পলক - রাজনীতিবিদ।
  • মহারাজা জগদিন্দনাথ রায় - রাজনীতিবিদ ও সমাজ সংস্কারক; ব্রিটিশ ভারতে সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী আন্দোলনে তার অবদান ছিল।
  • প্রফেসর ড.সরকার সুজিত কুমার, অধ্যাপক রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
  • লতিফুল ইসলাম শিবলী - গীতিকার, সুরকার, সংগীত শিল্পী, নাট্যকার, লেখক
  • এয়ার ভাইস মার্শাল খাদেমুল বাশার, বীর উত্তম
  • ফরিদা পারভিন - লালন শিল্পী
  • প্রফেসর ড.এম আব্দুস সোবহান, উপাচার্য রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়
  • মাদার বখশ - রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এর স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্রষ্টা
  • আমজাদ খান চৌধুরী - ব্যবসায়ী, প্রধান নির্বাহী- প্রাণ-আরএফএল গ্রুপ
                                     

14. আরো দেখুন

  • নাটোর সিটি কলেজ
  • নাটোর সদর থানা
  • নাটোর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়
  • দয়ারামপুর রাজ পরিবার
  • নাটোর মহিলা কলেজ
  • নাটোর-৩
  • দিঘাপতিয়া রাজ পরিবার
  • নাটোরের কাঁচাগোল্লা
  • নাটোর-৪
  • নাটোর সদর উপজেলা
  • নাটোর-১
  • উত্তরা গণভবন
  • রাণী ভবানীর প্রাসাদ ও অন্যান্য স্মৃতিসৌধ
  • চলন বিল
  • রাণী ভবানী সরকারি মহিলা কলেজ
  • রাজাপুর বাজার
  • মাদার গান
  • শহীদ সাগর
  • নাটোর চিনি কল লিমিটেড
  • নবাব সিরাজউদ্দৌলা সরকারি কলেজ
  • রাণী ভবানী
  • সিংড়া নাটোর পরিবার
  • সিংড়া চলনবিল মহিলা ডিগ্রি কলেজ
  • নাটোর-২
  • দিঘাপতিয়া এম. কে. কলেজ