Back

ⓘ পিরোজপুর জেলা




পিরোজপুর জেলা
                                     

ⓘ পিরোজপুর জেলা

পিরোজপুরের উত্তরে বরিশাল জেলা ও গোপালগঞ্জ জেলা, দক্ষিণে বরগুনা জেলা, পূর্বে ঝালকাঠি জেলা ও বরগুনা জেলা এবং পশ্চিমে বাগেরহাট জেলা ও সুন্দরবন অবস্থিত। পশ্চিমে বলেশ্বর নদী পিরোজপুরকে বাগেরহাটের থেকে আলাদা করেছে।

                                     

1. ইতিহাস

বর্তমান পিরোজপুর জেলা বঙ্গোপসাগরের ঔরসজাত জোয়ার-ভাটার পলিরেণুতে গড়া একটি পলল ভূ-ভাগ। সমুদ্রের লোনাজল স্নাত হয়ে গাঙ্গেয় বদ্বীপের দক্ষিণভাগে সাগরবক্ষে একদিন যে মৃত্তিকা উঁকি দিয়েছিল, সেটিই কালক্রমে পরিণত হয়েছে জনপদে, মুখরিত হয়েছে জনকোলাহলে। তবে গাঙ্গেয় বদ্বীপের যে ভূ-ভাগ নিয়ে পিরোজপুর জনপদ গঠিত, সে অঞ্চল অপেক্ষাকৃত বয়সে নবীন ও বাংলাদেশের দক্ষিণভাগে অবস্থিত প্রান্ত ভূগোলের অন্তর্ভুক্ত।

                                     

2. ভূ-ভাগের গঠন

পৌরাণিক ও ঐতিহাসিক মতে, ঋগবেদের আমলেও বঙ্গের দক্ষিণভাগ ছিল অতল সমুদ্রে নিমজ্জিত। মৌর্যযুগে পলল সংযোগে বাকলা-চন্দ্রদ্বীপ গড়ে ওঠলে ভূ-তাত্ত্বিকভাবে ক্রমশ পিরোজপুর ভূ-ভাগের পলল উত্থান ঘটে। পৌরাণিক নদী গঙ্গার পূর্বগামী শাখা নলিনী, হলদিনী, পাবনী নামে পরিচিত ছিল। পৌরাণিক নদীর উত্তরসূরী আধুনিক গঙ্গা, পদ্মা, মেঘনা, ব্রহ্মপুত্র, সুগন্ধার পলিরেণু গাঙ্গেয় বদ্বীপে যে সব দ্বীপ তথা নব্য ভূ-ভাগ সৃষ্টি করে, পিরোজপুর জেলার জনপদ সে সব দ্বীপেরই অংশবিশেষ। তবে জনপদ হিসেবে গড়ে ওঠেছে আরও পরে। ঐতিহাসিকদের ধারণায় পাল ও সেন আমলে বিচ্ছিন্নভাবে জনবসতি গড়ে উঠতে শুরু করলেও মূলত মোগল ও সুলতানি আমলে এ অঞ্চলে ব্যাপক জনবসতি গড়ে ওঠে। তবে উনিশ শতক পর্যন্ত পিরোজপুর জেলার একটি অংশ ছিল জলাশয়। এর মধ্যে স্বরূপকাঠির সাতলা, নাজিরপুরের বিল ও ভান্ডারিয়া অঞ্চলে চেচরি-রামপুর বিল অন্যতম।

                                     

3. জনবসতি ও জনবিন্যাস

ভূমি মালিকানার শিথিল স্তরে চরাঞ্চলে আবাদ ও জঙ্গল পরিষ্কার করে ও হাওলা বন্দোবস্ত নিয়ে পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর, বিক্রমপুর ও যশোর-খুলনা অঞ্চল থেকে অপেক্ষাকৃত সাহসী ও পরিশ্রমী মানুষের প্রথম আগমন ঘটে পিরোজপুর অঞ্চলে। পেশায় কৃষিজীবী, মোলঙ্গী বা লবণ চাষী, মত্স্যজীবী, বাওয়ালী, কুমার, কামার, নৌকার মাঝি, বারৈ, নৌ ও কারুশিল্পের কারিগর ও ঘরামী সম্প্রদায়ের লোকেরাই এ অঞ্চলের আদি বাসিন্দা। পেশাজীবীদের মধ্যে কামার-কুমার শ্রেণী ঢাকা, নৌ কারুশিল্পের কারিগর ফরিদপুর ও যশোর এবং ব্যবসায়ী শ্রেণীর একটি বড় অংশ আসে বিক্রমপুর অঞ্চল থেকে। কৃষিজীবীদের একটি বড় অংশ এসেছে পদ্মা-মেঘনার নদী কবলিত অঞ্চল থেকে।

                                     

4. নামকরণ

সুলতানি আমলে মুসলিম শাসক ফিরোজশাহের নামানুসারে বাকলা-চন্দ্রদ্বীপের এ অঞ্চল পরিচিতি পায় ফিরোজপুর নামে। বর্তমান পিরোজপুর নামটি এ ফিরোজপুর নামেরই অপভ্রংশ বলে গবেষকরা মনে করেন। অন্যমতে, মোগল সম্রাট শাহসূজার অকাল প্রয়াত পুত্র ফিরোজশাহের নামে ফিরোজপুর এবং পরে অপভ্রংশ হিসেবে পিরোজপুর নামকরণ হয়েছে। মোগল আমলে জঙ্গল আবাদ করে সুন্দরবন অঞ্চলে ব্যাপক জনবসতি শুরু হলে পিরোজপুর অঞ্চলেও জনবিন্যাস ঘটে। সম্রাট আকবরের আমলে লবণ কর রহিত করা হলে সুন্দরবন অঞ্চলে লবণ উত্পাদন বৃদ্ধি পায় এবং গড়ে ওঠে মোগলদের রাজস্ব পরগণা নিমকমহল । পূর্বে এ অঞ্চল সরকার খলিফাবাদের অন্তর্ভুক্ত ছিল। সম্রাট জাহাঙ্গীরের আমলে এসে টোডরমলের রাজস্ব তালিকার নিমকমহলটি তার নামে নতুনভাবে পরিচিতি পায় সেলিমাবাদ পরগণা হিসেবে। তৎকালীন বাখরগঞ্জ জেলায় দ্বিতীয় বৃহত্তম পরগণা ছিল সেলিমাবাদ পরগণা। সে সময় ঝালকাঠি, বাউফল, স্বরূপকাঠি, নেছারাবাদ, রাজাপুর, ভান্ডারিয়া, পিরোজপুর, তত্কালীন যশোর জেলার কচুয়া প্রভৃতি উপজেলার অধিকাংশ এলাকা নিয়ে গঠিত ছিল সেলিমাবাদ পরগণা। ১৬১১ সাল পর্যন্ত সেলিমাবাদ ছিল চন্দ্রদ্বীপ রাজাদের অধীনে। ১৬১১ সালে চন্দ্রদ্বীপ মোগল অধিকারে গেলে চন্দ্রদ্বীপ ভেঙ্গে কয়েকটি পরগণায় বিভক্ত করা হয়। সেলিমাবাদ ছিল তার মধ্যে একটি। ১৭২২ সালে রাজস্ব জরিপকালে সেলিমাবাদ পরগণা বিভক্ত করে আরও ১০টি ছোট পরগণা, তালুক ও হাওলা সৃষ্টি করা হয়।



                                     

5. মোগলদের শুল্ক ঘাঁটি ও ব্যবসা কেন্দ্র

মোগল আমলে সেলিমাবাদ ছিল অন্যতম লবণ ব্যবসা কেন্দ্র। ফলে এখানে ছিল মোগলদের একটি শক্তিশালী লবণ চৌকি। এ চৌকি থেকে মোগলরা আবগারি শুল্ক আদায় করতেন। মোগল আমলে মোগল নবাবদের ও অমাত্যদের অনেকেই ছিলেন লবণ ব্যবসার সাথে জড়িত। এদের মধ্যে মীরজুমলা ও রেজাখানের লবণ ব্যবসা ছিল। শায়েস্তাখানের আমলে অনেক ইউরোপীয় সেলিমাবাদ তথা পিরোজপুরে ব্যবসা শুরু করে। ঢাকায় বসে তারা দক্ষিণাঞ্চলে লবণ ব্যবসা চালাতেন। তাছাড়া ঢাকার মোগল নৌবহরের জন্য উন্নতমানের কাঠ ও নৌযান তৈরির কারিগর যেত সেলিমাবাদ থেকে।

                                     

6. জমিদার ও রাজস্ব প্রশাসন

মোগল সম্রাট শাহজাহানের আমলে কিংকর ভূইয়ার পুত্র মদনমোহন রাজ অমাত্য হিসেবে রায় উপাধি পান এবং সম্রাট জাহাঙ্গীরের আমলে সেনাধ্যক্ষ হিসেবে কৃতিত্ব প্রদর্শন করে নিজপুত্র শ্রীনাথ রায়ের নামে সেলিমাবাদ পরগণা বন্দোবস্ত নেন। বর্তমান পিরোজপুর জেলার অধিকাংশ ছিল সেলিমাবাদ পরগণার অংশ এবং রায়েরকাঠির রায় পরিবার ঝালকাঠির নিকটে সুতালরিতে রাজস্ব স্থাপনা বা কাছারি স্থাপন করে এ অঞ্চলে প্রথম রাজস্ব প্রশাসন গড়ে তোলেন। পরে তা রায়েরকাঠিতে স্থানান্তরিত হয়। তবে ঘন মগ-পর্তুগীজ আক্রমণ ও লুটতরাজের ফলে অধিবাসীরা স্থান ত্যাগ করলে রাজস্ব ও প্রশাসনিক কেন্দ্রও পরিবর্তন করতে হত। রেনেলের বিখ্যাত বেঙ্গল এ্যাটলাস-এ অঞ্চল পর্তুগীজ আক্রমণে বিরাণ ভূমি বলে চিহ্নিত রয়েছে। ঢাকার নায়েব নাজিমদের শাসনামলে বাকি খাজনার দায়ে সেলিমাবাদ পরগণা নায়েব নাজিম ওয়াজিস খানের দখলে যায়। তবে পরে পরগণার দায়িত্ব পুনরায় ফেরত পান। ১৭৪৯ সালে আগাবাকের সেলিমাবাদ দখল করেন এবং ১৭৫৩ সালে আগাবাকের মৃত্যুবরণ করলে রাজস্ব প্রশাসনের দায়িত্ব চলে যায় রাজা রাজবল্লভের ওপর। তবে রায়েরকাঠির জমিদারগণ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির দেওয়ান গোকুল চন্দ্র ঘোষালের সাহায্যে জমিদারীর একটা অংশ উদ্ধার করতে সক্ষম হন। ঢাকার চীফ ও সেলিমাবাদের লবণ ব্যবসায়ী মি. বারওয়েলের মধ্যস্থতায় ১৭৭২ সালে সেলিমাবাদ পরগণার একাংশ সহযোগিতার স্বীকৃতি স্বরূপ গোকুল ঘোষালকে দান করা হয়। সেলিমাবাদের জমিদারি এভাবে রায় ও ঘোষাল পরিবারের মাঝে বিভক্ত হয়ে যায়। পিরোজপুর শহরে উকিলপাড়ার তহসিল কাছারি ছিল ঘোষালদের রাজস্ব কেন্দ্র। পরবর্তীতে কতিপয় ইংরেজ বণিক নামে-বেনামে সেলিমাবাদ পরগণায় ঘোষাল স্টেটের তালুক কেনেন। এসব ব্যবসায়ীদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন লুকাস, ফিসার, টোয়াইডেল ও কোম্বার। তারা তাদের পত্নীদের নামে তালুক ক্রয় করে লবণ ব্যবসা করতেন। ফলে রাজস্ব প্রশাসনের জন্য ঘোষাল পরিবার সেলিমাবাদ পরগণায় কয়েকটি শুল্ক আদায় কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির আগেই পিরোজপুরে রাজস্ব প্রশাসন গড়ে তোলেন। রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে সেলিমাবাদের এত সুনাম ছিল যে, রাজবল্লভের পুত্র কৃষ্ণ দাস কয়েকটি বৃহত্ নৌকাযোগে লবণ শুল্ক থেকে প্রাপ্ত যে বিপুল অর্থ নিয়ে ফোর্ট উইলিয়ামে আশ্রয় নিয়েছিলেন, তার সিংহভাগ ছিল সেলিমাবাদ পরগণা থেকে লবণ শুল্ক হিসেবে আদায় করা অর্থ সেলিমাবাদ পরগণার অর্থনৈতিক গুরুত্ব এমন ছিল যে, এ পরগণা হতে অন্তত ১০টি ক্ষুদ্র পরগণা ও অনেকগুলো তালুক সৃষ্টি করা হয়। তাছাড়া উনিশ শতকের ষাটের দশকে ঝালকাঠি, কানখালি, সরিকল ও পিরোজপুরে টোল স্টেশন স্থাপন করা হয়। আবগারি শুল্ক আদায় ও আইনি কার্যক্রমের সুবিধার জন্য উনিশ শতকের ষাটের দশকে কেওয়ারি থানার তেজকাটি, কুমারখালী, পিরোজপুর, রায়গঞ্জ, বানারিপাড়া, কেওয়ারী এবং টগরা থানার হলতা, ভগিরথপুর, তেলিখালী, মঠবাড়িয়া, দাউদখালী, ভান্ডারিয়া ও টগরাতে স্ট্যাম্প ভেন্ডিং ব্যবস্থা ছিল।



                                     

7. প্রথম পুলিশী থানা

এ সব পরগণা থেকে প্রাপ্ত রাজস্ব এবং লবণ খাত থেকে আদায়কৃত শুল্কের নিরাপত্তার জন্য এ অঞ্চলে একটি পুলিশী থানা স্থাপন ছিল জরুরি। তাছাড়া অষ্টাদশ শতকের শেষের দিকে বলেশ্বর ও কচুয়া নদীতে নৌ-ডাকাতি ছিল নৈমিত্তিক ব্যাপার। এ সময় বলেশ্বর নদীপথে কলকাতার সঙ্গে ঢাকা-সিলেট আসাম ও কাছাড় পথে নৌ-যাতায়াত ছিল। লিন্ডসে নামক সিলেটের একজন কালেক্টর ও ম্যাজিস্ট্রেট কলকাতা থেকে নৌ-পথে সিলেট যাওয়ার পথে কচা নদীতে নৌ-ডাকাতের কবলে পড়েন। ফলে ফোর্ট উইলিয়াম থেকে ঢাকার প্রাদেশিক কাউন্সিলের কাছে নির্দেশ আসে বলেশ্বর নদীতে জল থানা স্থাপন করার। ১৭৯০ সালে গভর্নর লর্ড কর্নওয়ালিশ ভারত শাসন ব্যবস্থায় পরিবর্তন ঘটান এবং জেলা সৃষ্টি করেন। ১৭৯৭ সালে ঢাকা-জালালপুর জেলা থেকে আলাদা করে বাখরগঞ্জ জেলা সৃষ্টি করা হয় এবং বৃহত্তর জেলাগুলোতে সার্কেল থানা ও পুলিশ ফাঁড়ি থানা স্থাপন করা হয়। বাখরগঞ্জ জেলা সৃষ্টি করে যে ১০টি থানা স্থাপিত হয়েছিল তার মধ্যে বর্তমান পিরোজপুর অঞ্চলে টগরা, কাউখালী ও কেওয়ারী থানা ছিল অন্যতম। কালীগঙ্গা নদীতীরে ছিল কেওয়ারী থানার অবস্থান। স্বরূপকাঠি, নাজিরপুর, বানারীপাড়া এবং ঝালকাঠির একাংশ ছিল এ থানার অন্তর্গত। নদীভাঙ্গনে কেওয়ারী থানাই পরবর্তীতে স্বরূপকাঠিতে স্থানান্তরিত হয়। পক্ষান্তরে, পাড়েরহাটে ছিল টগরা থানার প্রধান কেন্দ্র। বর্তমান পিরোজপুর, ভাণ্ডারিয়া, কাঠালিয়া, বামনা, পাথরঘাটা, মঠবাড়িয়া ছিল এ থানার অন্তর্গত। পরে ১৮৫৯ সালে মঠবাড়িয়ায় আলাদা থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমান কাউখালী, রাজাপুর ও ঝালকাঠির একাংশ নিয়ে ছিল কাউকালী থানা। মোগল আমল থেকেই কাউখালী ছিল মোগলদের লবণ শুল্ক কেন্দ্র। কথিত আছে যে, ১৬২৮ সালে যুবরাজ শাহাজাহান ঢাকা সফরকালে কাউখালী আসেন এবং সেলিমাবাদ পরগনার জমিদার মদন মোহন তার সাথে দেখা করেন। এ সময় ঝালকাঠির লুত্ফাবাদ ছিল সেলিমাবাদ পরগনার সদর দফতর। ১৬৫৮ সালে রায়ের কাঠির জঙ্গল আবাদ করে জমিদার রুদ্র নারায়ণ রায় লুত্ফাবাদ থেকে পিরোজপুরের রায়ের কাঠিতে এসে বসবাস শুরু করলে রায়েরকাঠিকে কেন্দ্র করেই পিরোজপুর অঞ্চলের নতুন নতুন আবাদ ও সমৃদ্ধি ঘটতে শুরু করে। ঝালকাঠির সন্নিকটে সুতালরি বন্দর, রায়ের কাঠির নিকটস্থ বন্দর কুমারখালী ও পার্শ্ববর্তী রাজগঞ্জ বা রাজারহাট, বাখরগঞ্জ, বারৈকরন ও নলছিটি ছিল অষ্টাদশ শতকে সেলিমাবাদ পরগনার গুরুত্বপূর্ণ ব্যবসা-বাণিজ্য কেন্দ্র। ফলে এ অঞ্চল মোগল নবাব, অমাত্য ও ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিসহ দেশি-বিদেশি বণিকদের নজরে আসে। লবণ ব্যবসার পাশাপাশি চালের ব্যবসাও ছিল লাভজনক। বহু আর্মেনিয়ান, পর্তুগীজ ব্যবসায়ী, ঢাকার লৌহজং-এর পাল চৌধুরী, কুণ্ডু ও ঢাকার নবাব পরিবারের ইউরোপীয়দের সাথে লবণ ব্যবসা উনিশ শতকের মাঝামাঝি পর্যন্ত অব্যাহত ছিল। তাছাড়া লবণ শুল্ক আদায়ের জন্য চরখালী, রমনা-বামনা ও গুলশাখালীতে ছিল লবণ চৌকি। ১৮২৯ সনে এ এলাকা ঢাকা বিভাগের কমিশনার অব রেভিনিউ-এর অধীনে আসে। তবে অষ্টাদশ শতকের শেষের দিকে ব্যবসা দেখাশুনার জন্য বারৈকরণে কোম্পানির রেসিডেন্ট বসবাস করতো ও ১৭৭০ এবং ১৭৮৭ সালের দুর্ভিক্ষের সময়ে বহু দেশীয় ও ইংরেজ বণিক সেলিমাবাদ অঞ্চলে চালের ব্যবসায় ঝুঁকে পড়ে। ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির রেকর্ডে দেখা যায় জনৈক আর্মেনিয়ান খাজা কোয়ার্ক বা কাউ সাহেবের লবণ ব্যবসা ছিল কাউখালীতে। তার নামেই কাউখালীর নামকরণ হয়েছে। তাদের নিরাপত্তা দেয়ার জন্য এ অঞ্চলে কোম্পানির বরকন্দাজ নিয়োগ করা হলেও আনুষ্ঠানিকভাবে পুলিশী থানা স্থাপন না করা পর্যন্ত কোন স্থায়ী নিরাপত্তা ব্যবস্থা ছিল না।

                                     

8. পিরোজপুর মহকুমার উৎপত্তি

ক্রমশ জনসংখ্যা বৃদ্ধি, ১৮৫৪ সালের সিংখালী বিদ্রোহ, উপুর্যপরি বলেশ্বর, দামোদর, কচুয়া ও কালিগঙ্গা নদীতে নৌ-ডাকাতির উত্পাত বন্ধ করার লক্ষ্যে ১৮৫৬ সালে বাখরগঞ্জের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এইচ, এ, আর আলেকজান্ডার বর্তমান পিরোজপুর অঞ্চলে একটি মহকুমা সৃষ্টির প্রস্তাব করেন। কিন্তু ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহ হওয়ার কারণে তা কিছুটা বিলম্বিত হয়। অতঃপর ১৮৫৯ সালের ২৮ অক্টোবর পিরোজপুর মহকুমা স্থাপিত হয়। এর আগে পিরোজপুর ছিল টগরা থানার একটি গ্রাম। তখন টগরা, কাউখালী ও কেওয়ারী থানা ছাড়াও তৎকালীন যশোর বর্তমান বাগেরহাট জেলার কচুয়া ছিল পিরোজপুর মহকুমার অন্তর্ভুক্ত। ১৮৬৩ সালে রেভিনিউ সার্ভের পরে বাগেরহাট মহকুমার সৃষ্টি হলে কচুয়া পিরোজপুর মহকুমা থেকে আলাদা হয়। পিরোজপুরে মহকুমা সৃষ্টির পূর্বেই কাউখালীতে মুন্সেফি আদালত অফিস স্থাপিত হয়েছিল। ফলে মহকুমার প্রথমদিকের কাজকর্ম ১৮৬৬ সাল পর্যন্ত চলতো কাউখালীতে। পিরোজপুর মুন্সেফি আদালত, মহকুমা ম্যাজিস্ট্রেটের দফতর স্থাপনের জন্য রায়েরকাঠির জমিদার রাজকুমার রায় ও তদীয় পত্নী হেরিয়েটা লুকাস একটি দ্বিতল ভবন প্রদান করলে কাউখালী থেকে মহকুমা কার্যালয় পিরোজপুরে স্থানান্তরিত হয়। এ সময় টগরা থানা ও পাড়েরহাট থেকে স্থানান্তরিত হয় পিরোজপুরে। ১৮৬৫ সালে পিরোজপুরে সাবরেজিস্ট্রি অফিস, দাতব্য চিকিত্সালয় ও মুন্সেফ আদালতে দেওয়ানী মোকাদ্দমা শুরু হলে পূর্ণাঙ্গ মহকুমার কার্যক্রম শুরু হয়। উল্লেখ্য যে, ১৭৮১ সাল থেকে ১৭৯৭ সাল পর্যন্ত পিরোজপুর ছিল ঢাকা দেওয়ানী আদালতের অধীন এবং ১৭৯৭ থেকে ছিল বাখেরগঞ্জের অধীনে। কাউখালী মুন্সেফ আদালতের অধীনে প্রথমে কেওয়ারী ও টগরা পরে মঠবাড়িয়া থানা যুক্ত হয়। ১৮৭৩ সালে বিচারিক কাজের সুবিধার্থে জেলখানা, ১৮৮৫ সালের ১লা জুলাই পিরোজপুর মিউনিসিপ্যালিটি, ১৮৮৭ সালে লোকাল বোর্ড এবং উনিশ শতকের শেষের দিকে পিরোজপুরে বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠলে পিরোজপুরে নাগরিক সুবিধাসহ শহর গড়ে ওঠে।

অন্যদিকে, জনবৃদ্ধির সাথে সামঞ্জস্য রেখে পিরোজপুর মহকুমার থানার সংখ্যা বৃদ্ধি ও পুনঃবিন্যাস করা হয়। উনিশ শতকের মাঝামাঝি থেকে পিরোজপুর অঞ্চলে জনবৃদ্ধি ও আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিবেচনায় পুলিশী সার্কেলগুলোর পুনঃবিন্যাস ঘটে এবং নতুন থানার সৃষ্টি হয়। ১৮২৪ সালে বারৈকরণ থানা বিভক্ত করে ঝালকাঠি ও নলছিটি থানা গঠন করা হয়। ১৮৫৯ সালে বর্তমান ভাণ্ডারিয়া, কাঠালিয়া, পাথরঘাটা ও বামনা থানা অঞ্চলের ১৫৬ ব.মা. আয়তন নিয়ে মঠবাড়িয়া থানার সৃষ্টি হয়। ১৮৬৩ সালে পিরোজপুর মহকুমা থেকে কচুয়া থানা আলাদা হয়ে তত্কালীন যশোর জেলাভুক্ত হয়। ১৮৭২ সালে মঠবাড়িয়া সার্কেলের অধীনে ভাণ্ডারিয়ায় পুলিশ ফাঁড়ি স্থাপন করা হয়। পরে ১৯১২ সালে পূর্ণাঙ্গ পুলিশ স্টেশনে পরিণত করা হয়। এ সময় প্রতিটি থানায় ১জন সাব ইন্সপেক্টর, ২ জন হেড কনস্টেবল ও ১২জন কনস্টেবল নিয়ে গঠিত হত। ১৮৬০ সালের পরে চৌকিদারী ও দফাদারী ব্যবস্থা চালু হলে থানার অধীনে তাদের ন্যস্ত করা হয়। ১৯০৬ সালে স্বরূপকাঠিকে বিভক্ত করে নাজিরপুর এবং ১৯১০ সালে বানারিপাড়া থানা সৃষ্টি হয়। পূর্বের কেওয়ারি থানা স্থানান্তরিত হয় স্বরূপকাঠিতে। ১৯৬৯ সালে বরগুনা মহকুমা প্রতিষ্ঠিত হলে বামনা ও পাথরঘাটা থানাকে বরগুনা মহকুমার অন্তর্ভুক্ত করা হয়। ১৯৭০ সালে ঝালকাঠি মহকুমা প্রতিষ্ঠিত হলে পিরোজপুর মহকুমা হতে কাঁঠালিয়া থানাকে ঝালকাঠির সাথে যুক্ত করা হয়। ১৯৭৬ সালে পিরোজপুর সদর থানা থেকে আলাদা করে ইন্দুরকানি থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০০২ সালে উপজেলা পদ্ধতি চালু হলে এ উপজেলার নামকরণ করা হয় জিয়ানগর। ১৯৮৪ সালে মহকুমাগুলো জেলায় উন্নীত হলে ৭টি উপজেলার ৬৪৫টি গ্রাম নিয়ে পিরোজপুর জেলা গঠিত হয়। উপজেলাগুলো হচ্ছে ভাণ্ডারিয়া, কাউখালী, মঠবাড়িয়া, নাজিরপুর, নেছারাবাদ স্বরূপকাঠি পিরোজপুর সদর ও ইন্দুরকানী। ১৯৮৮ সালে গঠিত হয়েছে পিরোজপুর জেলা পরিষদ।

                                     

9. মুক্তিযুদ্ধে পিরোজপুর

১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণের প্রেক্ষিতে দেশের অন্যান্য স্থানের মত তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমার প্রতিটি গ্রামে গড়ে ওঠে প্রতিরোধের দুর্গ। পিরোজপুর শহরতলীতে রায়েরকাঠী জমিদারবাড়ির পরিত্যক্ত ভবনে গড়ে ওঠে একটি মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প। শত্রুর বিরুদ্ধে ৩ মার্চ বিকালে ঢাকা থেকে আগত সামসুল হক, ছাত্রলীগ নেতা ওমর ফারুক ও আওয়ামীলীগ নেতা বদিউল আলমের নেতৃত্বে ছাত্রলীগের কর্মীরা পিরোজপুরে পাকিস্তানি পতাকায় অগ্নিসংযোগ করতে করতে মিছিল সহকারে শহর প্রদক্ষিণ করে। এর আগে ২মার্চ ছাত্র ইউনিয়ন শহরে বাঁশের লাঠি ও ডামি রাইফেল নিয়ে সদর রাস্তায় সকাল দিকে সুশৃঙ্খল মহড়া প্রদর্শন করলে পথচারী জনসাধারণ করতালি দিয়ে তাঁদের অভিনন্দন জানায়। ছাত্রলীগ নেতা ওমর ফারুক ২৩ মার্চ শত জনতার উপস্থিতিতে স্থানীয় টাউন হল মাঠের শহীদ মিনারে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত পতাকা উড়িয়ে দেন। ২৫ মার্চ দিবাগত রাতে বরিশাল থেকে নূরুল ইসলাম মঞ্জুর টেলিফোনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণা পিরোজপুরে পাঠান। এসময় পিরোজপুরে আওয়ামীলীগের নির্বাচিত এম.এন.এ মেম্বর অব ন্যাশনাল এসেম্বলি ছিলেন এ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান। ২৬ মার্চ বিকেলে পিরোজপুর টাউনহল ময়দানের জনসভায় অস্ত্র সংগ্রহের আহবান জানালে এ্যাডভোকেট এনয়েত হোসেন খান, ডাঃ আব্দুল হাই, ডাঃ ক্ষিতীষ চন্দ্র মন্ডল, এ্যাডভোকেট আলী হায়দার খান, ফজলুল হক খোকন, জামালুল হক মনু প্রমূখ স্বাধীনাতা প্রেমী জনতা টাউন হলের অদূরে পিরোজপুর মহকুমা প্রশাসকের অফিস সংলগ্ন অস্ত্রাগারটি আক্রমণ করে সমস্ত রাইফেল, বুলেট সংগ্রহ করেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চে সংগ্রাম পরিষদের জনসভা চলছিল গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব মাঠে। এই সভায় তদানীন্তর এম, এন,এ অ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান ঢাকায় পাকিস্তানি সৈন্যদের নৃশংস, নির্মম হত্যাকান্ডের বিবরন দিয়ে ভাষন দেয়ার সময় স্বাধীনতাকামী উপস্থিত জনতা উত্তেজিত হয়ে ‘ অস্ত্র চাই অস্ত্র চাই’ ধ্বনি দিতে থাকলে তিনি জনতাকে আশ্বস্ত করে বলেন আজ এখনই অস্ত্রাগার লুন্ঠন করে তোমাদের হাতে স্বাধীনতা যুদ্ধের জন্য অস্ত্র তুলে দেয়া হবে। বক্তব্য শেষ হওয়ার সাথে সাথে উত্তেজিত জনতা অস্ত্রাগারের দিকে এগিয়ে যায়। পিরোজপুরের মহকুমা প্রশাসকের অফিস সংলগ্ন অস্ত্রাগারটি লুণ্ঠনে নেতৃত্ব দেন অ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান, ডাঃ আব্দুল হাই, ডাঃ ক্ষিতীশ চন্দ্র মন্ডল, অ্যাডেভোকেট আলী হায়দার খান, ফজলুল হক খোকন প্রমুখ। সুশৃংখলভাবে এখান থেকে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। তারমধ্যে ৪২ টি রাইফেল হস্তগত করে নকশালপন্থীরা, ২২ টি বন্দুক চলে যায় শান্তি কমিটির হাতে। ২৮ মার্চ পিরোজপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি ক্যাম্প স্থাপন করা হয়। এখানে সাধারণ মানুষদের অস্ত্র প্রশিক্ষণ শুরু হয়। ১৯ মে ১৯৭১ অস্ত্রাগারের আর.এস.আই. গোলাম মাওলা বাদী হয়ে পিরোজপুর থানায় ৫৫ জনকে আসামী করে এই ৫নং মামলা দায়ের করেন।

২১ মার্চ লাহোর থেকে পিরোজপুরে আসেন পিরোজপুরের সন্তান লেঃ জিয়াউদ্দিন। ২৭ মার্চ বিকাল ৪টা থেকে পিরোজপুর সরকারী হাইস্কুল মাঠে তাঁর প্রচেষ্টায় মুক্তিফৌজ গঠন পূর্বক অস্থায়ীভাবে গঠিত বিপ্লবী সরকারের স্থানীয় প্রধান এ্যাডভোকেট এনায়েত হোসেন খান এম.এন.এ-কে গার্ড অব অনার প্রদান করে। জনাব এনায়েত হোসেন খান এ্যাডভোকেট, ডাঃ আঃ হাই, আলী হায়দার খান এ্যাডভোকেট, ডাঃ ক্ষিতীশ চন্দ্র মন্ডল, এই চারজন উচু পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতা হিসাবে পিরোজপুর মহকুমার মুক্তি সংগ্রামে নেতৃত্ব দেন। ৪ মে পিরোজপুরে প্রথমে হানাদার পাকবাহিনী প্রবেশ করে। হুলারহাট বন্দরে প্রথম পাক-বাহিনীর গানবোট ভিড়ে ৩ মে ১৯৭১। ১৭ এপ্রিল নগর সরকার গঠন হওয়াপর পিরোজপুর মহাকুমা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে পাকিস্তান সরকারের সাথে সর্বপ্রকার সম্পর্ক ছিন্ন করে। এসময় পিরোজপুর স্কুল মাঠ ও কালেক্টরেট মাঠে মুক্তি বাহিনীর সদস্যরা প্রশিক্ষণ নেয়। পুরোদমে চালু হয়ে গেলো স্বাধীন বাংলাদেশের সীল, তখন পিরোজপুর ট্রেজারি অফিসার সাইফ মিজানুর রহমান ট্রেজারীর অস্ত্র ও সমস্ত টাকা পয়সা তুলে দেন মুক্তি বাহিনীর হাতে। পিরোজপুরে তখন এসডিও ছিলেন ফয়জুর রহমান। তিনি তার পুলিশ বাহিনী নিয়ে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেন পিরোজপুরের মুত্তিযোদ্ধাদের। হুলারহাট থেকে শহরে প্রবেশের পথে তারা মাছিমপুআর কৃষ্ণনগর গ্রামে শুরু করে হত্যাযজ্ঞ। স্থানীয় রাজাকারদের সহায়তায় হিন্দু আর স্বাধীনতার পক্ষের মুসলমানদের বাড়িঘরে দেয়া হয় আগুন, হত্যা করা হয় অসংখ্য মানুষ। ৫ মে ৭১ বলেশ্বর খেয়াঘাটে দাড় করিয়ে এক সঙ্গে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করে তাদের লাশ ফেলে দেওয়া হয় বলেশ্বর নদীতে। বলেশ্বর নদীর পাড়ে পুরানো খেয়াঘাট ও তার আশেপাশের ঘাট ছিল হত্যাযজ্ঞের প্রধান কেন্দ্রবিন্দু। পিরোজপুরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে বলেশ্বর খেয়াঘাটের গুরুত্ব অত্যধিক। ৫ মে ৭১ বলেশ্বর খেয়াঘাটে গুলি করে হত্যা করা হয় তারমধ্যে যেসব শহীদদের নাম পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে শহীদ আঃ রাজ্জাক, শহীদ সাইফ মিজানুর রহমান ও শহীদ ফয়জর রহমান আহমেদও ছিলেন। বলেশ্বর খেয়াঘাট বধ্যভূমিতে এরাই প্রথম হত্যাকান্ডের শিকার হন। ৬ মে রাজাকারদের সহায়তায় ধৃত পিরোজপুরের তৎকালীন এস.ডি.ওভারপ্রাপ্ত আব্দুর রাজ্জাক, ম্যাজিস্ট্রেট সাইফ মিজানুর রহমান নড়াইল, এস.ডি.পি.ও ফয়জুর আহমেদকে গুলি করে হত্যা করা হয়। ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পিরোজপুরের অদূরে চালিতাখালী গ্রাম থেকে এক দড়িতে বেধে আনা হয় মোসলেম আলী শেখ, আব্দুর রহমান সরদার, খাউলবুনিয়ার আব্দুল গফ্ফার মাস্টার, জলিল হাওলাদার, জুজখোলার সতীশ মাঝি এবং শামছু ফরাজীসহ ১২ জন স্বাধীনতাকামীকে। তাঁদেরকে বলেশ্বরের বধ্যভূমিতে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর দুপুর ১২ টায় তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমা শহর শত্রুমুক্ত হয় এবং সমাপ্তি ঘটে দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র যুদ্ধের। পিরোজপুরের ঘরে ঘরে উত্তোলিত হয় বিজয়ের পতাকা।

স্বাধীনতাপর পূর্বদেশ -এর প্রতিবেদনে বলা হয় বরিশালে পাকিস্তানি বাহিনী ৫০ হাজার লোককে হত্যা করে। পিরোজপুরে এ সংখ্যা ছিল প্রায় ৩০ হাজার। এই মহকুমায় প্রায় ১০ হাজার নারী-পুরুষ-শিশুকে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের সহযোগীরা হত্যা করে।

                                     

10. পিরোজপুর মুক্ত দিবস

পিরোজপুর মুক্ত দিবস ৮ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এ দিনে পিরোজপুর পাকহানাদার, রাজাকার ও আলবদর মুক্ত হয়। এই দিনে ঘরে ঘরে উড়েছিল লাল সবুজের বিজয় পতাকা।ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে পিরোজপুরের অদূরে চালিতাখালী গ্রাম থেকে এক দড়িতে বেধে আনা হয় মোসলেম আলী শেখ, আব্দুর রহমান সরদার, খাউলবুনিয়ার আব্দুল গফ্ফার মাস্টার, জলিল হাওলাদার, জুজখোলার সতীশ মাঝি এবং শামছু ফরাজীসহ ১২ জন স্বাধীনতাকামীকে। তাঁদেরকে বলেশ্বরের বধ্যভূমিতে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ১৯৭১ সালের ৮ ডিসেম্বর দুপুর ১২ টায় তৎকালীন পিরোজপুর মহকুমা শহর শত্রুমুক্ত হয় এবং সমাপ্তি ঘটে দীর্ঘ ৯ মাসের সশস্ত্র যুদ্ধের। পিরোজপুরের ঘরে ঘরে উত্তোলিত হয় বিজয়ের পতাকা। পিরোজপুরের ইতিহাসে এ দিনটি বিশেষ স্মরণীয় দিন। মুক্তিযুদ্ধের সময় পিরোজপুর ছিল মুক্তিযুদ্ধের নবম সেক্টরের অধীন সুন্দরবন সাব-সেক্টর মেজর জিয়াউদ্দিন আহমেদ এর কমান্ডের আওতায়।

                                     

11. জনমিতি

মোগল আমলে পিরোজপুর অঞ্চলের জনসংখ্যা ছিল কম-বেশি এক লক্ষ। আইন-ই-আকবরীতে উল্লিখিত প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড় ও মগ-পর্তুগীজ আক্রমণের ফলে এ অঞ্চলের জনসংখ্যা একসময় হ্রাস পায়। কোম্পানি শাসনের শুরুতে ১৭৫৭ সালে জনসংখ্যা ছিল দেড় লক্ষ। ১৮০০ সালে তা দু লক্ষে দাঁড়ায়। পিরোজপুর মহকুমা প্রতিষ্ঠাকালে এলাকার জনসংখ্যা ছিল প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ। ১৮৭২ সালের শীতকালে পিরোজপুরে প্রথম আদমশুমারি হয়। সে সময় জনসংখ্যা ছিল তিন লক্ষ তিষট্টি হাজার। পরে প্রতি দশ বছর পর আদম শুমারির প্রবর্তন হয় এবং জনবৃদ্ধি ও আয়তনের হরাস-বৃদ্ধির কারণে পিরোজপুরের জনসংখ্যার হরাস-বৃদ্ধি ঘটেছে। ২০০১ সালের আদমশুমারীতে এ জেলার জনসংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১২৬৫২৫ জন।

                                     

12. ভাষা ও সংস্কৃতি

পিরোজপুরের ভাষা ও সংস্কৃতির ইতিহাস বেশ প্রাচীন এবং সমৃদ্ধ। বরিশাল ও খুলনার মাঝখানে অবস্থিত হওয়ায় এই দুই অঞ্চলের ভাষার দ্যোতনা পরিলক্ষিত হয় পিরোজপুরের ভাষায়। তবে পিরোজপুরের কোন আঞ্চলিক ভাষা নেই, নেই কোন বিশেষ ভাষা-ভাষী গোষ্ঠী। ১৭শ ও ১৮শ শতকে বাকলার পান্ডিত্য গৌরব সমগ্র ভারতে প্রসিদ্ধি লাভ করে। এখানকার প্রখ্যাত কবিদের মধ্যে আহসান হাবীব, আবুল হাসান, ক্ষেত্রগুপ্ত, বিশ্বজিৎ ঘোষ, মুহম্মদ হাবিবুর রহমান, এমদাদ আলী ফিরোজী, এম এ বারী,শেখ শহীদুল ইসলাম, খান মোহাম্মদ মোসলেহ্ উদ্দিনের নাম স্ব-মহিমায় দোদীপ্যমান।প্রবাদ প্রবচন ও বিয়ের গানের জন্য পিরোজপুর বিখ্যাত। বর্তমানে উদীচি শিল্পী গোষ্ঠী, দিশারী শিল্পী গোষ্ঠী,সংগীতা, ধ্বনি শিল্পী গোষ্ঠী, রুপান্তর নাট্য গোষ্ঠী, পিরোজপুর থিয়েটার, কৃষ্ণচুড়া থিয়েটার, বলাকা নাট্যম্ প্রভৃতি সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী আঞ্চলিক ঐতিহ্য লালন পালন ও প্রচারে একাগ্র প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে। পিরোজপুর অফিসার্স ক্লাব, গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব, বলাকা ক্লাব সহ প্রভৃতি অঙ্গসংগঠন পিরোজপুরে ভাষা ও সংস্কৃতির অগ্রযাত্রায় বিশেষ ভুমিকা রাখছে। রায়েরকাঠী জমিদারদের চেষ্টায় শহর পিরোজপুরের পত্তন হয় । অবসরকালীন চিত্তবিনোদনের জন্য থিয়েটার, যাত্রা, কবিগান, জারীগান, পুতুল নাচ, ঘোড়ার দৌড়, ষাড়ের লড়াই, নৌকাবাইচ, মেলা বহুরূপীর খেলা ইত্যাদির আসর বসতো রায়েরকাঠীতে। এখানে শিবচতুর্দশীতে এমনই এক ঊৎসবের পরিবেশ সৃষ্টি হত যা সারা দক্ষিণ বাংলার মানুষের স্মৃতিতে অম্লান হয়ে আছে। রায়েরকাঠির মাঠে এই মেলা ৫/৬ দিন ধরে চলত। দূরদুরান্ত থেকে মানুষ এই মেলায় আসার জন্য বছর ধরে অপেক্ষায় থাকত। কত বছর পূর্বে এ মেলা শুরু হয় তার সঠিক ইতিহাস জানা যায়নি। কদমতলার জগদাত্রী পূজা উপলক্ষে যাত্রা, জারীগান, কবিগান, ষাড়ের লড়াই, লাঠি খেলা প্রতিবছর অনুষ্ঠিত হয় । এখানে কৃষ্ণলীলা, রাস উৎসবকে কেন্দ্র করে যাত্রা থিয়েটার হয়। পিরোজপুরের মাছিমপুরে ধোপা বাড়ির নিকটবর্তী মাঠে ধানকাটা মৌসুম শেষ হলেই ঘোড়ার দৌড় প্রচলন ছিল। এই খেলায় অংশ নেওয়ার জন্য বিত্তবান লোকেরা বিভিন্ন জাতের ঘোড়া সংগ্রহ করতেন। ১৯২১ সালে গোপালকৃষ্ণ টাউন হল নামে পাবলিক হলটি নির্মিত হয় । এই হলটিকে কেন্দ্র করে খেলাধুলার জন্য টাউন ক্লাব ও একটি পাঠাগার প্রতিষ্ঠা করা হয়। বর্তমানে এটি শেরেবাংলা পাবলিক লাইব্রেরী নামে পরিচিত।১৯২৫-২৭ সালের দিকে কতিপয় মুসলিম তরুণ বর্তমান ঈদগার পূর্ব পাশে মুসলিম ক্লাব নামে আর একটি ক্লাব গঠন করে। পরবর্তী সময়ে শেরেবাংলা ফজলুল হকের খালার নামে সামছুন্নেছা মুসলিম হল নামে একটি মিলনায়তন তৈরী হলে মুসলমান তরুণ যুবকেরা এখানে আর একটি পাঠাগার গড়ে তোলে। এখানে সাপ্তাহিক বিতর্ক, সভা কবিতা পাঠ, ইসলামী গান বিশেষ করে মিলাদুন্নবী ঊপলক্ষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এ কেন্দ্রেই কবি আহসান হাবিব প্রথম তার কবিতা পাঠ করেন। এই কেন্দ্রের প্রত্যক্ষ পৃষ্ঠপোষকাতায় শংকরপাশার মকবুল বয়াতীর নাম দিনে দিনে ছড়িয়ে পড়ে। ইসলামী গান, নজরুল ইসলামের গান ছাড়া ও তিনি ব্রিটিশ বিরোধী বিভিন্ন গান হাটে হাটে গাইতেন। কলিকাতার হিজ মাস্টার ভয়েজ তাঁর এজিদের কারাগারে, জয়নালের কান্না গানটি রেকর্ড করে। গানটি গ্রাম বাংলার যথেষ্ট জনপ্রিয়তা পায়। ১৯৩৫ সালে রাজা ৮ম এডওয়ার্ডের সিংহাসন আরোহণের রজতজয়ন্তী পালন উপলক্ষে পিরোজপুর বাসীও উৎসবের আনন্দে মেতে ওঠে । পিরোজপুরের বলেশ্বর নদে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যে প্রায় ২০ খানা নৌকার বাইচ অনুষ্ঠিত হত। চলিসা গ্রামের লেহাজ উদ্দীনের ছিপ নৌকা ঢোলের উম্মাতাল তালে দুলে দুলে সর্বাগ্রে গন্তব্যে পৌছে বৃহৎ এক পিতলের কলসী উপহার পায়। রায়েরকাঠী প্রদর্শনী ময়দানে তারিনী মিস্ত্রী ও চুঙ্গাপাশার রাশেদ মল্লিকের ষাড়ের মধ্যে চুড়ান্ত লড়াই শুরু হলে প্রচন্ড উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। দুইদল সমর্থকদের মধ্যে এসময় লড়াই বেঁধে যায়, অবশ্য জমিদার সত্যেন্দ্রনাথ রায়ের প্রচেষ্টায় হাঙ্গামার দ্রুত নিস্পত্তি ঘটে। বিভিন্ন উৎসবে বাজিকার উমাচারণ, গঙ্গাচরণ চমৎকার আতসবাজির কারুকাজ প্রদর্শন করেন। সঠিকভাবে জানা না গেলেও গঙ্গাচরণ মাছিমপুরে বসতি স্থাপন করে তার বিদ্যালয় লক্ষীকান্তসহ অনেককে পারদর্শী করে তোলেন এই বাজিকরেরা ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত পিরোজপুরের বিভিন্ন জাতীয় অনুষ্ঠানে রঙ-বেরঙের বাজি দেখিয়ে আনন্দ দিয়েছেন। বাংলাদেশের খ্যাতিমান অভিনেতা গোলাম মুস্তফা ও তার জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা মোহাম্মদ মুসার ছেলেবেলা কেটেছে পিরোজপুরে। তাঁর অভিনয়, আবৃত্তি ও সংগীত বেশ কিছুকাল পিরোজপুরের সাংস্কৃতিক অঙ্গনকে সমৃদ্ধ করেছে । ঢাকায় ২/১ টি সিনেমা হল নির্মিত হলেও মফস্বলে তেমন ছবি দেখানোর ব্যবস্থা হয়নি । কৃষ্ণনগরের আবছার তালুকদার ও তাঁর বন্ধুরা মিলে কলিকাতা থেকে ভ্রাম্যমান সিনেমা নিয়ে আসেন। সারা শহরের পার্শ্ববর্তী হাটে বাজারে টিনের তৈরী চোঙ্গা দিয়ে চলমান এবং কথা বলা সিনেমা দেখানোর প্রচার করলে গোপালকৃষ্ণ টাউন হলে প্রচুর ভিড় জমে। ছবি দেখানো শুরু হওয়ার কিছুক্ষনের মধ্যেই নারী দর্শকদের অত্যধিক চাপে হলের দোতালা ভেঙ্গে পড়ে এবং অনেকে আহত হয়। ব্রিটিশ শাসনামলে পিরোজপুর শহরে চিত্রবানী নামে একটি সিনেমা হল চালু হলেও অল্প দিনের মধ্যে তা বন্ধ হয়ে যায়। ১৯৪৭ সালেপর ইরাটকিস ও আলেয়া নামে দুটি সিনেমা হল চালু হয়। ১৯৬২-৬৩ সালে আলেয়া সিনেমা হল বন্ধ হয়ে যায় । ১৯৯১ সালে ইরাটকীস সিনেমা হলটি ও বন্ধ হয়ে যায়। এতদঞ্চলের মধ্যে সর্বপ্রথম মুসলমানদের মধ্যে যুক্ত অপেরা নামে একটি পূর্ণাঙ্গ যাত্রা দল গড়েন। কবি নজরুলের বিষের বাঁশি পালাটি যুক্ত অপেরার সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় পালার স্বীকৃতি পায়। নুরুল ইসলাম, নিরোধ বরণ সরকার, বিজয় বকশি, জিন্নাত আলী মোক্তার এদের প্রচেষ্টায় ওয়াই,সি,এ, নামে একটি সাংস্কৃতিক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। তারা প্রায় নিয়মিতভাবে টাউন হল মঞ্চে বিভিন্ন নাটক অভিনয় করতেন। নুরুল ইসলাম, বিজয়ী বকশী, মোদাচ্ছের মিয়া, সুধীর বাবুরা মিলে ‘নিউ মিনার্ভা অপেরা’ নামে আর একটি যাত্রাদল গড়ে তোলেন। যা এখন কোলকাতায় মিনার্ভা থিয়েটার নামে সমাধিক পরিচিত। পিরোজপুরের প্রায় প্রত্যেকটি বিদ্যালয়ে তখন শিক্ষাবর্ষ শেষে ‘শিক্ষা সপ্তাহ’ উদযাপিত হত। নাট্যাভিনয়, কবিতা আবৃত্তি, সংগীত, কমিকস উপস্থাপনা করে আমন্ত্রিত অতিথিদের আনন্দ দিত। স্কুলে স্কুলে ফাতেহা ইয়াজদহম, মিলাদুন্নবী, স্বরসতীপূজা উপলক্ষে বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিযোগিতা লেগেই থাকত। বিশেষ করে পূজামন্ডবের ধোঁয়ায় আছন্ন ও ধূপের গন্ধ ছড়ানো আরতি নৃত্য প্রতিযোগিতা দেখার জন্য প্রচুর দর্শক সমাগত হত। পাড়ায়-মহল্লায় নিয়মিত নজরুল-রবীন্দ্র জন্ম-জয়ন্তী পালিত হত। ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যুথানের সময় প্রায় সব জনসভা শেষে গণসংগীত গেয়ে দীপক মজুমদার, আঃ হাকিম, শংকর মসিদ, রবীনদাস, আবুল কালাম মহিউদ্দিন সাংস্কৃতিক আন্দোলনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। ১৯৬৪,৬৫,৬৬ সালে পিরোজপুর কলেজের সংস্কৃতিবান ছাত্র-ছাত্রীদের প্রচেষ্টায় ‘দায়ী কে’ ‘টাকা আনা পাই’ ও ‘ফেরিওয়ালা’ নাটক মঞ্চস্থ হয়। পিরোজপুর কলেজের বেশ কয়েকজন তরুণ ছাত্র ও অধ্যাপক মিলে ‘লিটলম্যান’ নামক ইংরেজি নাটক কলেজ মিলায়তনে সাফল্যের সাথে মঞ্চায়ণ করে। পিরোজপুরে অভিনীত এটিই একমাত্র ইংরেজি নাটক। ওই সময় আর্টস কাঊন্সিল, অফিসার ক্লাবের প্রায় নিয়মিত নাটক মঞ্চস্থ হত। তখনকার অফিসার্স ক্লাবের কর্মকর্তা পি, আর, দত্ত চেীধুরী, শহীদ ফয়জুর রহমান সাহিত্যিক হুমায়ুন আহম্মেদের পিতা, সরকারি কাজের অবসরে নাটকের মহড়া দেখতে প্রায় প্রতিদিন লেডিস ক্লাবে উপস্থিত থাকতেন। ৭০ দশকের শেষে লুৎফুল কবীর, আবুল কালাম, আঃ হালিমরা মিলে ‘মঞ্চমালঞ্চ’ নামে একটি নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গড়ে তোলেন। লুৎফুল কবীর তার নাটক ‘শতাব্দীর আবিষ্কার’ লিখে প্রশংসিত হন। ১৯৭২ সালে বাদল কুমার মিত্র ও তার বন্ধুরা মিলে প্রথমে ক্রান্তি ও পরে ঝংকার শিল্পীগোষ্ঠী নামে ২টি সংগঠন গড়ে তোলেন এবং কিছুকাল পরে ২টি সংগঠনই বিলুপ্ত হয়ে যায়। ১৯৭৩ সালে মাহমুদ সেলিম, মুনিরুল করিম, সিরাজুল ইসলাম হিরণ প্রমুখ ‘যুব সাংস্কৃতিক দল’ গঠন করে তৎকালীন তথ্য মজলিস মিলায়তনে সপ্তাহব্যাপী সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করে। ১৯৭৪ সাল সারাদেশে দুর্ভিক্ষ দেখা যায়। পিরোজপুরে ও লঙ্গরখানা খুলে ক্ষুধার্ত জনতার মুখে খাদ্য তুলে ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চলেছে। আঃ হালিম খান, জামালুল হকসহ বেশ কিছু রাজনীতি সচেতন সাংস্কৃতিক কর্মী মুকাভিনয়ের মাধ্যমে টাউন হল ময়দানে একটি নাটক মঞ্চস্থ করে। সমাজের অসংগতিগুলো ব্যাঙ্গ ও বিদ্রুপের মাধ্যমে তুলে ধরাএই নাটকের মুখ্য উদ্দেশ্য ছিল। এই মূক নাটকের গৌরাঙ্গ লাল আইচ জুয়েল আইচ শুধুমাত্র মুখের সাহায্যে আবহসংগীতের ব্যঞ্জনা দিয়ে পরিবেশনা মানের সমৃদ্ধি ঘটান । নাটকটি পরে আরো পরিশীলিত করে টাউন হল মঞ্চে ৭২ এর স্ফুলিঙ্গ নামে অভিণীত হয়। হুলারহাট মঞ্চে নাটকটি মঞ্চায়ন করতে গেলে রক্ষীবাহিনীর হস্তক্ষেপে নাটকটি অভিনয় করতে ব্যর্থ হয়ে অভিনেতা ও নাট্যকর্মীরা নাটকের সাজপোষাকেই পিরোজপুরে হেঁটে আসেন। পথিমধ্যে রক্ষীবাহিনী নাটকের অভিনেতা সামছুদ্দোহা মিলনকে স্থানীয় এম,পি, ভেবে স্যালুট দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে। ১৯৭৬ সালে উদীচী ও দিশারী শিল্পীগোষ্ঠি রবীন্দ্রনাথের‘ রক্তকরবী’ নাটক মঞ্চস্থ করে। প্রয়াত যাদুকর জে, এন, সাহা মঠবাড়িয়ার মোঃ মোশারফ হোসেন একুশে প্রভাত ফেরী গানের রচয়িতা ও বিশ্বখ্যাত যাদুকর জুয়েল আইচ ছাড়াও অভিনয়শিল্পী হিসাবে বেশ খ্যাতি অর্জন করেছেন রাজ, আবুয়াল হোসেন প্রমুখ। সংগীতা শিল্পীগোষ্ঠী পিরোজপুর উদীচী, দিশারী শিল্পীগোষ্ঠী, রূপান্তর নাট্যগোষ্ঠী, নাট্যচক্র, পিরোজপুর থিয়েটার, কৃষ্ণচুড়া থিয়েটার, বলাকা নাট্য নীড়সহ কয়েকটি নাট্যসংগঠন নিয়মিত নাট্যচর্চা করছে। অভিনেতা গোলাম মুস্তফা পিরোজপুরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। পিরোজপুরে প্রখ্যাত শিল্পী খালিদ হাসান মিলুর ছেলে প্রতীক হাসান, মাহতাব উদ্দিন টুলু, শিপ্রা রানী কর্মকার, পঙ্কজ কর্মকার ও মিহির রায় সঙ্গীত শিল্পী হিসেবে জনপ্রিয়তা পেয়েছেন। পিরোজপুরের অরুন কর্মকার নৃত্যশিল্পী হিসাবে ভূমিকা রেখেছেন। পিরোজপুরের জায়েদ খান চলচ্চিত্রে নায়ক হিসেবে যথেষ্ট খ্যাতি অর্জন করেন। আবৃত্তি, নাট্যকার, নির্দেশক ও অভিনেতা হিসাবে আ,ফ,ম, রেজাউল করিম, নাট্যনির্দেশক ও অভিনেতা খান দেলোয়ার, সালেহউদ্দিন সেলিম ও আতিকুর রহমান হিরু বেশ পরিচিত নাম। পিরোজপুর অফিসার্স ক্লাব, গোপাল কৃষ্ণ টাউন ক্লাব, বলাকা ক্লাবসহ প্রভৃতি অংগসংগঠন ভাষা ও সংস্কৃতির অগ্রযাত্রায় বিশেষ ভুমিকা রাখছে। পিরোজপুর শহরে ২টি সিনেমা হল রয়েছে । বলেশ্বর ব্রীজের পাশ্বে ডিসি পার্ক এ জেলার একমাত্র পার্ক। শহরের ৪টি কমিউনিটি সেন্টারে বিভিন্ন জাতীয় ও ব্যক্তিগত অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়ে থাকে।



                                     

13. সমাজ-সংস্কৃতি

পিরোজপুর জেলার সমাজ-সংস্কৃতি মূলত বৃহত্তর বরিশালের সাথে অভিন্ন। সনাতনী হিন্দু সম্প্রদায় নমঃশূদ্র, বৈদ্য, কায়স্থ ও ব্রাহ্মণ শ্রেণীতে বিভক্ত। যা বরিশাল সমাজ দ্বারা শাসিত। উনিশ শতকের শেষের দিকে পিরোজপুরে ব্রহ্ম সমাজ প্রতিষ্ঠিত হলে সমাজে ব্রহ্মপ্রভাব পরিলক্ষিত হয়। পিরোজপুরের মুসলমান সম্প্রদায়ের বড় অংশ ধর্মপ্রাণ ও সুন্নী মতাবলম্বী। অধবাসীদের মাঝে খান জাহান আলী, মৌলভী কেরামত আলী জৌনপুরী, শর্ষিণা, চরমোনাই ও মোকামিয়ার ধর্ম প্রচারকদের প্রভাব রয়েছে। পিরোজপুরের লোকাচার ও লোকসংস্কৃতিতে নদ-নদী ও প্রকৃতির প্রছন্ন প্রভাব আছে। বিশেষতঃ কৃষিজাত সংস্কৃতি ও লোকাচার প্রভাবিত সংস্কৃতি এ অঞ্চলের অপার বৈশিষ্ট্য।

                                     

14. পিরোজপুরের উপভাষা

পিরোজপুরের উপভাষা মূলতঃ বরিশাল ডায়েলেক্ট বা বরিশালী কথ্য ভাষার অন্তর্ভুক্ত। যা ফরিদপুর ও দক্ষিণ বিক্রমপুরের কথ্য ভাষার সাথে অনেকটা সামঞ্জস্যপূর্ণ। তবে পশ্চিম পিরোজপুর ও নাজিরপুরের সাথে বাগেরহাট ও খুলনার কথ্য ভাষার কিছুটা মিল রয়েছে। স্যার জর্জ গিয়ার্সন তার বিখ্যাত ল্যাংগুইজটিক সার্ভে অব ইন্ডিয়া গ্রন্থে পিরোজপুর এলাকার উপভাষার নমুনা দিয়েছেন। এ অঞ্চলে শব্দের আদিতে দন্তমূলীয়, উষ্ণধ্বনি শ-ষ-স পরিবর্তিত হয়ে মহাপ্রাণ ধ্বনি হ রূপে উচ্চারিত হয়। যেমন শিয়াল> হিয়াল, শালা> হালা।

                                     

15. লোকস্বভাব ও দ্রোহ চেতনা

প্রকৃতির সাথে লড়াই করা পিরোজপুর জেলার অধিবাসীরা স্বভাবতই সাহসী, দ্রোহী ও ধীমান। অষ্টাদশ শতকের সুগন্ধিয়া বিদ্রোহ, উনিশ শতকের তুষখালী ও সিংখালী বিদ্রোহ, মোলঙ্গী বিদ্রোহ এবং অপরাপর কৃষক বিদ্রোহ এ অঞ্চলের মানুষের অমিত সাহস ও সচেতনতার বিমূর্ত প্রতীক। ব্রিটিশ আমলে ফারায়েজী আন্দোলন, স্বদেশী আন্দোলন, অনুশীলন সমিতি, খেলাফত আন্দোলন এবং পাকিস্তান আমলে ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধসহ বাঙালির প্রতিটি স্বাধিকার আন্দোলনে পিরোজপুর জেলার অধিবাসীরা সোচ্চার ভূমিকা পালন করেছে। বিখ্যাত আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার প্রধান আসামী লে. কমান্ডার মোয়াজ্জেম হোসেনসহ২ নং, সুবেদার তাজুল ইসলাম৩২ নং ও আবদুস সামাদ৮ নং ছিলেন পিরোজপুর জেলার অধিবাসী। একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধে এ জেলার মেজর অব. জিয়াউদ্দিন, মেজর মেহেদী আলী ইমাম ও লে. নূরুল হুদা সাব-সেক্টর কমান্ডার হিসেবে অবদান রাখেন।

                                     

16. উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি

  • ডাঃ রুস্তুম আলী ফরাজী সংসদ সদশ্য-পিরোজপুর-৩ প্রতিষ্ঠাতা- ডাঃ রুস্তুম আলী ফরাজী কলেজ, মঠবাড়িয়া।
  • মেজর অবঃ মেহেদী আলী ইমাম মৃত্যুঃ ১৯৯৬,মঠবাড়িয়া- স্বাধীনতাযুদ্ধের বীর সেনানী, বীরবিক্রম।
  • খালিদ হাসান মিলু, পিরোজপুর - কণ্ঠশিল্পী জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত রেডিও, টেলিভিশন ও চলচ্চিত্র কণ্ঠশিল্পী।
  • জুয়েল আইচ, পিরোজপুর - যাদু শিল্পী অসংখ্য আন্তর্জাতিক পুরস্কার আন্তর্জাতিক যাদুশিল্পী।
  • আহসান হাবীব, ১৯১৭-১৯৮৫- কবি ও সাংবাদিক।
  • সুবেদার তাজুল ইসলাম- আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ৩২ নং আসামী ছিলেন।
  • এনায়েত হোসেন খান, ১৯৩৩-১৯৭৯ রাজনীতি সাবেক এমপি, ইউনিয়ন অফ ক্লারিক্যাল এ্যাসিট্যান্স অফ সেক্রেটারিয়েট ইন ইস্ট পাকিস্তান নামক এক শক্তিশালী সংগঠনের জেনারেল সেক্রেটারির দায়িত্ব পালন করেন।
  • আনোয়ার হোসেন মঞ্জু, ভান্ডারিয়া- তিনি দশম জাতীয় সংসদ এর পানিসম্পদ মন্ত্রী ছিলেন। এর আগে তিনি বন ও পরিবেশ, যোগাযোগ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। তিনি পিরোজপুর-২ আসন থেকে ১৯৮৬, ১৯৮৮, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০১, ২০১৪, ২০১৮ সালে সংসদ সদস্য হন।
  • দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, মোফাসসিরে কোরআন, সাবেক সংসদ সদস্য ও যুদ্ধাপরাধ মামলায় আমৃত্যু সাজাপ্রাপ্ত।
  • খান বাহাদুর হাশেম আলী খান ১৯৮৮-১৯৬২, নেছারাবাদ- বরিশাল জেলা মুসলিম লীগ এবং কৃষক প্রজা পারটির সভাপতি ছিলেন। শেরেবাংলা এ.কে. ফজলুল হকের মন্ত্রীসভায় সমবায় ও কৃষি খাতক মন্ত্রী ১৯৪১ ছিলেন।
  • মোয়াজ্জেম হোসেন ১৯৩২-১৯৭১- লেঃ কমান্ডার, স্বাধীনতার অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষা দেয়ার জন্য সামরিক বাহিনীর অভ্যন্তরে তিনি একটি গুপ্ত বিপ্লবী সেল গঠন করেন। আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ২ নং আসামী ছিলেন।
  • মুহাম্মদ মিজানুর রহমান - লেখক ও কথাসাহিত্যিক।
  • দিলীপ বিশ্বাস, পিরোজপুর - জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত বিশিষ্ট চলচ্চিত্র পরিচালক।
  • খান সাহেব হাতেম আলী জমাদ্দার ১৮৭২-১৯৮২, মঠবাড়িয়া - বঙ্গীয় প্রাদেশিক আইন সভার সদস্য ১৯৩৭, ১৯৪৬, ১৯৬২; কে,এম লতীফ ইনস্টিটিউশনের প্রতিষ্ঠাতা।
  • মাওলানা নেছার উদ্দীন নেছারাবাদ ১৮৭২-১৯৫২- বহু ইসলামী গ্রন্থ প্রণেতা ও ছারছীনা মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা।
  • তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া, ভান্ডারিয়া ১৯১১-১৯৬৯ সাংবাদিকতা ও রাজনীতি- পিটি আই-এর পরিচালক, ইত্তেফাক পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা।
  • শাহরিয়ার নাফীস- জাতীয় দলের সাবেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান ক্রিকেটার
  • বেগম মতিয়া চৌধুরী,নাজিরপুর রাজনীতি বর্তমান কৃষি মন্ত্রী, ‘দেয়াল দিয়ে ঘেরা’ বই রচনা করেন।
  • মেজর জিয়াউদ্দিন আহমদ, পিরোজপুর, নবম সেক্টরের সাব- সেক্টর কমান্ডার সাবেক পৌর চেয়ারম্যান, আফতাব উদ্দিন কলেজের প্রতিষ্ঠাতা।
  • শহীদুল আলম নিরু ১৯৪৬-২০০৫- রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী। মাওলানা ভাসানীর ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন।
  • জায়েদ খান- অভিনেতা, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক।
  • নিরোদ বিহারী নাগ, নাজিরপুর ১৯৩২-১৯৯১- রাজনৈতিক ও সামাজিক পুষ্প নিরোধ ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠাতা।
  • মোস্তফা জামাল হায়দার, নাজিরপুর- রাজনীতিবিদ ও সাবেক মন্ত্রী, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য।
  • ক্ষিতীশ চন্দ্র মন্ডল ১৮৩৯ নাজিরপুর- রাজনীতি সাবেক এমপি, সাবেক কৃষি ও ত্রাণ ও পুনর্বাসন দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী১৯৭৩ ছিলেন।
  • শহীদ নূর হোসেন ১৯৬১ - ১০ নভেম্বর ১৯৮৭মঠবাড়িয়া - রাজনৈতিক কর্মী ও শহীদ;১০ নভেম্বরকে বলা হয় শহীদ নূর হোসেন দিবস।তার খালি গায়ে লেখা ছিল "স্বৈরাচার নিপাত যাক, গণতন্ত্র মুক্তি পাক"। রাজধানীর জিরো পয়েন্টে তিনি গুলিতে শহীদ হন।
  • শ ম রেজাউল করিম, নাজিরপুর - তিনি আইনজিবী ও বাংলাদেশি রাজনীতিবিদ এবং ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ সদস্য। তিনি বর্তমানে পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ও গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী।
  • জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী - বাংলাদেশের একজন মডেল এবং সুন্দরী প্রতিযোগিতা মিস বাংলাদেশ ২০১৮-এর মুকুটধারী।
  • করপোরাল আব্দুস সামাদ মৃত্যু ২০১৮, মঠবাড়িয়া -আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার ৮ নং আসামী ছিলেন।
  • ফজলে মাহমুদ রাব্বি, জাতীয় দলের ক্রিকেটার।
                                     

17. দর্শনীয় স্থান

  • হরিণপালা রিভার ভিউ ইকোপার্ক, তেলিখালী
  • ভাসমান সবজি ক্ষেত মুগারঝোর, বৈঠাকা
  • ডিসি পার্ক
  • সাপলেজা কুঠি বাড়ি
  • কবি আহসান হাবিব এর বাড়ি
  • সারেংকাঠী পিকনিক স্পট
  • আজিম ফরাজীর মাজার
  • শ্রীগুরু সংঘ কেন্দ্রীয় আশ্রম, কাউখালী, পিরোজপুর
  • রায়েরকাঠী জমিদার বাড়ি রায়েরকাঠি রাজবাড়ি
  • বলেশ্বর ঘাট শহীদ স্মৃতিস্তম্ভ
  • কুড়িয়ানা অনুকুল ঠাকুরের আশ্রম
  • পারেড়হাট জমিদার বাড়ি
  • সোনাখালী জমিদার বাড়ি
  • ভান্ডারিয়া শিশু পার্ক
  • হুলারহাট নদী বন্দর
  • মঠবাড়িয়ার মমিন মসজিদ
  • কুড়িয়ানা পেয়ারা বাজার
  • স্বরুপকাঠীর পেয়ারা বাগান
  • কদমতলা জর্জ হাই স্কুল
  • আটঘর আমড়া বাগান