Back

ⓘ ডারউইনিয়াস




ডারউইনিয়াস
                                     

ⓘ ডারউইনিয়াস

ডারউইনিয়াস ইয়োসিন যুগে বসবাসকারী এবং পরবর্তীতে বিলুপ্ত হয়ে যাওয়া প্রাইমেটদের একটি গণ। এটি প্রাইমেট বর্গের অ্যাডাপিফর্মিস অববর্গের অন্তর্ভুক্ত। এখন পর্যন্ত এ গণের একটিমাত্র সদস্যের জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়েছে যার প্রজাতির দ্বিপদী নাম Darwinius masillae । ৪ কোটি ৭০ লক্ষ বছরের পুরনো এই জীবাশ্মের ডাকনাম দেয়া হয়েছে ইডা।

ইডার জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়েছিল জার্মানির ফ্রাংকফুর্ট থেকে মাত্র ৩৫ কিলোমিটার দক্ষিণপূর্বে অবস্থিত মেসেল নামক গ্রামের নিকটে অবস্থিত একটি মাটির গর্ত থেকে ১৯৮৩ সালে। গর্তটির নাম মেসেল মৃত্তিকাগহ্বর। শৌখিন জীবাশ্ম সংগ্রাহকরা এটি খুঁজে পাওয়াপর দুটি আলাদা আলাদা পাতে প্রোথিত করে আলাদাভাবে বিক্রি করে দিয়েছিল। ২০০৭ সালে দুটি পাত ক্রয় করে বিজ্ঞানীরা জীবাশ্মটি পুনরায় একত্রিত করেন। জীবাশ্মটি একটি কিশোরীর, লেজ বাদ দিয়ে যার কেবল মাথা ও দেহের দৈর্ঘ্য ৫৮ সেন্টিমিটার, লেজের দৈর্ঘ্য আবার ২৪ সেমি। ধারণা করা হচ্ছে প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়া পর্যন্ত বেঁচে থাকলে ইডার দেহ আরও ১৫-২০% বৃদ্ধি মতো।

প্রাকৃতিক নির্বাচনের মাধ্যমে বিবর্তন তত্ত্বের প্রস্তাবক চার্লস ডারউইনের ২০০তম জন্মবার্ষিকীতে ডারউইনের সম্মানেএই প্রজাতির গণের নামকরণ করা হয়। আর প্রজাতির নাম রাখা হয় যে গর্ত থেকে জীবাশ্মটি উদ্ধার করা হয়েছে সেই মেসেল গর্তের নামে- মাসিলাই। প্রথমে একে দেখতে বর্তমান লেমুরের খুব কাছাকাছি মনে হয়েছিল যদিও পরবর্তীকালে লেমুরসহ সকল প্রোসিমিয়ানদের সাথে তার বেশ কিছু বৈসাদৃশ্যও চিহ্নিত করা হয়।

জীবাশ্ম সম্পর্কিত গবেষণাপত্রের লেখকরা ডারউইনিয়াস গণকে প্রাইমেট বর্গের Notharctidae পরিবার এবং Cercamoniinae উপপরিবারের অন্তর্ভুক্ত করেন যা থেকে বোঝা যায়, তারা মনে করছেন জীবাশ্মটিতে প্রোসিমিয়ান এবং সিমিয়ান বা অ্যানথ্রোপয়েড উভয়ের বৈশিষ্ট্যের এক ধরনের সংমিশ্রণ আছে। সে হিসেবে একে মানব বিবর্তনের ইতিহাসে একটি অবস্থান্তরকালীন জীবাশ্ম হিসেবে চিহ্নিত করা যায় যাকে সাধারণ্যে অনেক সময় মিসিং লিংক বলে যাকা হয়, যদিও বিজ্ঞানীরা মিসিং লিংক শব্দটির ব্যবহারকে নিরুৎসাহিত করেন। অনেক বিজ্ঞানী অবশ্য ইডাকে মানুষের সরাসরি পূর্বপুরুষ হিসেবে চিহ্নিত করাকে সমর্থন করেননি।

জীবাশ্মটিকে পুঙ্খানুপুঙ্খ ভাবে গবেষণা না করেই অতিরিক্ত প্রচার করায় অসন্তোষ জ্ঞাপন করেছেন অনেক বিজ্ঞানী। তাদের মতে মিডিয়ায় এতো ফলাওভাবে প্রচার করার আগে বিজ্ঞানীদের আরও সূক্ষ্ণ বিশ্লেষণ ও আলোচনার প্রয়োজন ছিল।

                                     

1. বহিঃসংযোগ

  • Life restoration of Darwinius masillae by paleoartist Julius T. Csotonyi
  • New Darwinius masillae / Ida fossil discovery pictures images background story