Back

ⓘ চকবাজার




চকবাজার
                                     

ⓘ চকবাজার

চকবাজার পুরান ঢাকার লালবাগে অবস্থিত একটি জনপ্রিয় বাজার। রমজান মাসে এখানে রকমারি ইফতারের পশরা বসে। কাবাবের কথা আসলেই চকবাজারের নামটিও আসবে। চকবাজারের কাবাব খুব বিখ্যাত। ঢাকার পুরানো বাজারগুলির মধ্যে চকবাজার অন্যতম।

চকবাজার বর্তমানে সারা বাংলাদেশের পাইকারী বিক্রেতাদের নির্ভরযোগ্য স্থান। সকল ধরনের পাইকারি মালামাল চকবাজারের সকল রাস্তা, বাড়ি, মার্কেটজুরে রয়েছে। যেমনঃ কসমেটিকস, কাপড়, খেলনা, নিিিত্য তব্যবহার‍ সামগ্ররি, বেকারী ফুুুড আইটেম।

শিল্প কারখানার কাচামাল। যেমনঃ কেমিক্যাল, মেডিকেল সামগ্রি, হালকা মেশিনারিজ ইত্যাদি।

প্লাস্টিক সামগ্র, ভোগ্য পন্য সহ অসংখ্য পন্যের বিশাল পাইকারি বাজার।

বন্ধের দিনঃ সরকারি বিধি অনুযায়ী শুক্রবার সারা দিন ও শনিবার অর্ধদিবস বন্দ্ধ থাকে।

তবে শনিবার অনেকেই সকাল থেকেই দোকানপাট খুলে থাকে।

সপ্তাহের অন্যান্য দিন ভোর থেকে সন্ধ্যা ৮ পর্যন্ত খোলা রাখার সরকারি নির্দেশ থাকলেও পাইকারী বাজারগুলো গভীর রাত পর্যন্তও খোলা থাকে।

                                     

1. ইতিহাস

মুঘল আমলে চকবাজারের পত্তন হয়। মুঘল আমলে সেনাপতি মানসিংহ পূর্ববঙ্গে এসেছিলেন বিদ্রোহ দমন করতে। ১৬০২ সালে তিনি ভাওয়াল থেকে সদর দফতর স্থানান্তর করেছিলেন বর্তমান কেন্দ্রীয় কারাগারের জায়গায়। সেখানেই মুঘল দুর্গ স্থাপিত হয়েছিল। মুঘল দুর্গের পাশেই গড়ে উঠে চকবাজার।

তবে একসময় এই চকবাজারকে বহুলোক চৌক বন্দর নামে ডাকতেন। মানসিংহের আমল থেকে চকবাজার যাত্রা শুরু করলেও এটি পূর্ণতা লাভ করেছিল মুর্শীদকুলি খাঁর সময়ে। মুর্শিদ কুলি খাঁপর ওয়াল্টার সাহেব নতুন করে চকবাজার তৈরি করেন। সে সময় তিনি কোমর পর্যন্ত উঁচু দেওয়াল দিয়ে চকবাজার ঘিরে দিয়েছিলেন এবং বাজারে প্রবেশের জন্য ১৬ টি গেট করে দিয়েছিলেন। এখানে বিশিষ্ঠ ওলী হযরত হাফিয আহমদ জৌনপুরী রহ এর

মাযার রয়েছে। ১৮৯৯ সালের ২৬ জানুয়ারি ঢাকার সদরঘাটে তার মৃত্যু হয়। চকবাজার শাহী জামে মসজিদের দক্ষিণ পার্শ্বে তার মাযার অবস্থিত।

ইফতারের জন্য চকবাজারের বিশেষ সুনাম রয়েছে। বিশ শতকের গোড়ার দিকে যেমন, এখনও তেমনি রমজানে ইফতারীর সময় চকবাজারে প্রচন্ড ভিড় হয়।