Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশ সরকার




                                               

ইউনিয়ন তথ্য ও সেবা কেন্দ্র

ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, বাংলাদেশের ইউনিয়নভিত্তিক ডিজিটাল সেন্টার, যার উদ্দেশ্য হলো তৃণমূল পর্যায়ের মানুষের দোরগোড়ায় তথ্যসেবা নিশ্চিত করা। ‘ইউনিয়ন তথ্য ও সেবাকেন্দ্র ২০০৭ সালে ‘কমিউনিটি ইনফরমেশন সেন্টার’ নামে শুরু হয়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রাম এর আওতায় সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার মাধাইনগর ইউনিয়ন পরিষদে এবং দিনাজপুর জেলার সেতাবগঞ্জ উপজেলার মুশিদহাট ইউনিয়ন পরিষদে পাইলট আকারে সিইসি এর কার্যক্রম পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করা হয়।

                                               

খালেদা জিয়ার দ্বিতীয় মন্ত্রিসভা

১ অক্টোবর ২০০১ সালে বাংলাদেশের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে সরকার গঠন করে। ১০ অক্টোবর ২০০১ সালে খালেদা জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী করে মন্ত্রিসভা গঠিত হয় এবং ২৯ অক্টোবর ২০০৬ সালে এই মন্ত্রিসভা বিলুপ্ত হয়।

                                               

গুরুতর অপরাধ দমন সংক্রান্ত জাতীয় সমন্বয় কমিটি

গুরুতর অপরাধ দমন সংক্রান্ত জাতীয় সমন্বয় কমিটি ছিল বাংলাদেশের তত্ত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক ২০০৭ সালে গঠিত একটি কমিটি যা দুর্নীতি ও অন্যান্য গুরুতর অপরাধ দমনের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ২০০৬-০৮ বাংলাদেশী রাজনৈতিক সংকটের সময় তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার এই কমিটির মাধ্যমে দুর্নীতি ও অন্য গুরতর অপরাধ দমনে অভিযান পরিচালনা করে। কমিটির চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তৎকালীন উপদেষ্টা মোহাম্মদ আবদুল মতিন এবং প্রধান সমন্বয়ক ছিলেন মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী।

                                               

গ্রাম আদালত

বাংলাদেশে বিচার ব্যবস্থার সর্বনিম্ন স্তর হচ্ছে গ্রাম আদালত। গ্রামাঞ্চলের কিছু কিছু মামলার নিষ্পত্তি এবং তৎসর্ম্পকীয় বিষয়াবলীর বিচার সহজলভ্য করার উদ্দেশো গ্রাম আদালত অধ্যাদেশ, ১৯৭৬ এর আওয়তায় গঠিত একটি স্থানীয় মীমাংসামুলক তথা সালিশি আদালত।

                                               

জজ আদালত

জজ আদালত বা জজ কোর্ট বলতে বাংলাদেশের প্রতিটি জেলায় সংবিধানের ১১৪ নং অনুচ্ছেদের অধীনে স্থাপিত অধস্তন দেওয়ানী ও ফৌজদারী আদালতসমূহকে বুঝায়। জেলা জজ হলেন অধস্তন জজ আদালতের প্রধান বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা।

                                               

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি বা একনেক হল গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অধীনস্ত একটি নির্বাহী কমিটি যা জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন প্রকল্পের যাচাই, বিনিয়োগ, অনুমোদন ও অগ্রগতি তথাপি দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ও অর্থনৈতিক কর্মকান্ড তত্ত্বাবধান ও নীতিমালা প্রণয়ন, পর্যালোচনা ও অনুমোদন প্রদান করে। একনেক -এর সভাগুলো সাধারণত পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের, পরিকল্পনা বিভাগের অধীনে শেরে বাংলা নগরস্থ এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠীত হয়ে থাকে।

                                               

আবদুস সাত্তারের মন্ত্রিসভা

৩০ মে ১৯৮১ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান নিহত হলে আবদুস সাত্তার বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করে পরেন। পরবর্তীতে তিনি রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হয়ে দুটি মন্ত্রীসভা গঠন করেন। ১টি ২৪ নভেম্বর ১৯৮১ সালে এবং ১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৮২ সালে ২য়টি। মন্ত্রিসভাটি কার্যকর ছিল ২৪ মার্চ ১৯৮২ পর্যন্ত।

খালেদা জিয়ার প্রথম মন্ত্রিসভা
                                               

খালেদা জিয়ার প্রথম মন্ত্রিসভা

১৯৯১ সালের বাংলাদেশ সাধারণ নির্বাচনের পরে জাতীয় সংসদের ৫ম আইনসভা অধিবেশনে খালেদা জিয়ার প্রথম মন্ত্রিসভা গঠিত হয়। মন্ত্রিসভা ১৯৯১ সালে মন্ত্রিসভা গঠিত হয় এবং জানুয়ারী ১৯৯৬ সালে এই মন্ত্রিসভা বিলুপ্ত হয়। প্রধানমন্ত্রী ও সরকার প্রধান ছিলেন খালেদা জিয়া।

জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভা
                                               

জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভা

জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভা ১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে জিয়াউর রহমান ১৫ এপ্রিল ১৯৭৯ সালে ৪২ সদস্যের মন্ত্রীসভা গঠন করেন। যার মধ্যে প্রধানমন্ত্রীসহ ২ জন উপপ্রধানমন্ত্রী, ২৬ জন ক্যাবিনেট মন্ত্রী, ১১ জন প্রতিমন্ত্রী এবং ২ জন উপমন্ত্রী ছিলেন। একই দিনে মন্ত্রীর মর্যাদায় ৩ জনকে প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা পদে নিয়োগ দেয়া হয়। ৩১ মে ১৯৮১ সালের পর্যন্ত বাংলাদেশ সরকার জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে জিয়াউর রহমানের মন্ত্রিসভা কার্যকর ছিল।

                                               

বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন

বাংলাদেশ জাতীয় তথ্য বাতায়ন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তত্ত্বাবধানে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে পরিচালিত একসেস টু ইনফরমেশন প্রোগ্রামের আওতায় জনগণের তথ্য প্রাপ্তির অধিকার নিশ্চিতকরণ এবং সরকারি দপ্তর থেকে প্রদেয় সেবাসমূহ প্রাপ্তির নিশ্চয়তা বিধানের লক্ষ্যে দেশের সকল ইউনিয়ন, উপজেলা, জেলা, বিভাগ, অধিদপ্তর ও মন্ত্রণালয়সহ প্রায় পঁচিশ হাজার সরকারি দপ্তরের ওয়েব সাইটের একটি সমন্বিত রূপ বা ওয়েব পোর্টাল।

                                               

শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় মন্ত্রিসভা

শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় মন্ত্রিসভা ছিলো স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম সার্বভৌম সরকার। বাংলাদেশের স্বাধীনতাপর ১৯৭২ সালের ১২ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের দ্বিতীয় প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং ১৯৭৩ সালের ১৬ মার্চ উক্ত দায়িত্ব হতে পদত্যাগ করেন।

                                               

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় (বাংলাদেশ)

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অধীনে দেশের অভ্যন্তরীণ আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নয়ন, মানবসম্পদ ও জীবনের নিরাপত্তা প্রদান, উদ্ধার অভিযান/তৎপরতা, অপরাধদমন, অপরাধী শনাক্তকরণ, জল ও স্থল সীমান্ত নিরাপত্তা, চোরাচালান রোধ, প্রবাস ও অভিবাসন সম্পর্কিত নীতিমালা/চুক্তি প্রণয়ন, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার রোধ, মাদকদ্রব্য চোরাচালান রোধ, মানবপাচার রোধ, ইত্যাদি কার্যক্রম পরিচালনা এবং এ-সংশ্লিষ্ট আইন, বিধান, প্রবিধান ও নিয়ম-নীতি প্রনয়ন এবং বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করে।