Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:বিজ্ঞান




                                               

২০১৯-এ বিজ্ঞান

দিমিত্রি মেন্দেলিয়েভের পর্যায় সারণী আবিষ্কারের সার্ধশতবর্ষ উপলক্ষে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ ২০১৯ সালকে "আন্তর্জাতিক পর্যায় সারণী বর্ষ" হিসেবে ঘোষণা করে। ২০১৯-এ বিজ্ঞানমহলে সংঘটিত হওয়া ঘটনাবলির সংক্ষিপ্ত সার এটি।

                                               

কোরিওলিস প্রভাব

কোরিওলিস প্রভাব বলতে পদার্থবিদ্যায় গতিশীল বস্তুসমূহের আপাত বিচ্যুতি বোঝায়। বস্তুসমূহের গতিকে এইক্ষেত্রে একটি ঘূর্ণনশীল প্রসঙ্গ কাঠামোর সাপেক্ষে বর্ণনা করা হয়। ঘড়ির কাটার দিকে ঘূর্ণনশীল প্রসঙ্গ কাঠামোতে, বস্তুর গতির দিকের বামে বিচ্যুতি ঘটে। আর ঘড়ির কাটার বিপরীত দিকে ঘূর্ণনের ক্ষেত্রে, বিচ্যুতি ঘটে ডানে। যদিও অনেকেএই ঘটনা ইতোপূর্বে লক্ষ করেছিলেন, তবে ১৮৩৫ সালে ফরাসি বিজ্ঞানী গ্যাসপার-গুস্তাভ কোরিওলিস প্রথম গাণিতিক বর্ণনা প্রকাশ করেন। তিনি এর সাথে ওয়াটার হুইল তত্ত্বের সাদৃশ্য দেখতে পেয়েছিলেন। বিংশ শতাব্দীর প্রথমভাগ থেকেই কোরিওলিস বল টার্মটি আবহবিদ্যা/বায়ুবিজ্ঞান এর সম্পৃক্তে ব্যবহৃত হ ...

                                               

অণুজীববিজ্ঞানী

একজন মাইক্রোবায়োলজিস্ট এমন একজন বিজ্ঞানী যিনি মাইক্রোস্কোপিক লাইফ ফর্ম এবং প্রক্রিয়াগুলি অধ্যয়ন করেন। এর মধ্যে জীবাণু, শেওলা, ছত্রাক এবং কিছু ধরণের পরজীবী এবং তাদের ভেক্টরগুলির মতো অণুজীবের জীবের বৃদ্ধি, মিথস্ক্রিয়া এবং বৈশিষ্ট্যগুলির অধ্যয়ন অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। বেশিরভাগ মাইক্রোবায়োলজিস্টরা বেসরকারী বায়োটেকনোলজি সংস্থাগুলিতে পাশাপাশি একাডেমিয়ায় অফিস এবং / অথবা গবেষণা সুবিধাতে কাজ করেন। বেশিরভাগ মাইক্রোবায়োলজিস্টরা জীবাণুবিজ্ঞান, প্যারাসিটোলজি, ভাইরাসোলজি বা ইমিউনোলজির মতো মাইক্রোবায়োলজির মধ্যে প্রদত্ত একটি বিষয়ে বিশেষজ্ঞ হন।"

                                               

অধরা কণা

অধরা কণা একটি বৈজ্ঞানিক ধারণা। এর অস্তিত্ব খুঁজে পেয়েছেন বাঙালী বিজ্ঞানী এম জাহিদ হাসান। ভাইল ফার্মিয়ন হলো ফার্মিয়নের একটি উপদল। ১৯২৯ সালে হারম্যান ভাইল এই কণার অস্তিত্বের কথা প্রথম জানিয়েছিলেন, যা ভরবিহীন। মোট তিন ধরনের ফার্মিয়নের মধ্যে ডিরাক ও মায়োরানা নামের বাকি দুই উপদলের ফার্মিয়ন বেশ আগেই আবিষ্কৃত হয়েছে।

                                               

অশ্বক্ষমতা

অশ্বশক্তি একটি শক্তির একক যা এক ঘোড়া প্রায় কত কাজ করতে পারে তা নির্ধারণ করে । এটি ৭৪৬ ওয়াটের সমান।ধারণাটি সর্বপ্রথম জেমস ওয়াট দ্বারা উপস্থাপিত হয়েছিল, যিনি বাষ্প ইঞ্জিন আবিষ্কার করেছিলেন।যেহেতু মানুষ ঘোড়া ব্যবহার করতে অভ্যস্ত ছিল,এই শক্তির পরিমাণ সেই সময়ে অধিকাংশ লোক অনুমান করতে পারতেন।ছোট মোটর ১০ অশ্বশক্তি তৈরি করতে পারে যেখানে একটি জেট ইঞ্জিন ১০০০ অশ্বশক্তি তৈরি করতে পারে।

                                               

আমিবা

ইউয়ান ৎসে লি আরেই ফর মাইক্রোওয়েভ ব্যাকগ্রাউন্ড অ্যানাইসোট্রপি, আরেই ফর মাইক্রোওয়েভ ব্গ্রাউন্ড অ্যানাইসোট্রপি বা নামে পরিচিত। এটি একটি বেতার দূরবীক্ষণ যন্ত্র। গ্যালাক্সি ক্লাস্টার-এ মহাজাগতিক অণুতরঙ্গ পটভূমি বিকিরণ এবং সানিয়েভ-যালডভিচ ইফেক্ট পর্যবেক্ষণ করতে আমিবা ডিজাইন করা হয়েছিল। এটি হাওয়াই এর মাওনা লোয়া-তে অবস্থিত যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩,৩৯৬ মিটার উপরে। আমিবা মূলত হেক্সাপড মাউন্ট এর উপর ৭ উপাদানের একটি ইন্টারফেরোমিটার হিসেবে গঠিত হয়। ৩ মিমি ৮৬-১০২ GHz তরঙ্গদৈর্ঘ্য বিস্তৃত পর্যবেক্ষণ, ২০০৬ সালের অক্টোবার মাস থেকে আরম্ভ হয় এবং সানিয়েভ-যালডভিচ ইফেক্ট দ্বারা সনাক্তকৃত ৬টি গ্যালাক্সি ...

কোয়ার্ক-গ্লুয়ন প্লাজমা
                                               

কোয়ার্ক-গ্লুয়ন প্লাজমা

কোয়ান্টাম ক্রোমোডাইনামিক্সে কোয়ার্ক-গ্লুয়ন প্লাজমা বা কোয়ার্ক-গ্লুয়ন স্যুপ হলো পদার্থের এমন এক দশা যা অতি উচ্চ তাপমাত্রা এবং/বা চাপে বিদ্যমান থাকে। পদার্থের এই দশাটি অনন্ত স্পর্শক স্বাধীন সবল মিথস্ক্রিয়াশীল কোয়ার্ক ও গ্লুয়নের সমন্বয়ে গঠিত হয় এবং তা সাধারণত পারমাণবিক নিউক্লিয়াস বা অন্যান্য হ্যাড্রনের রং বন্ধনের মাঝে সীমাবদ্ধ থাকে।

পাতন
                                               

পাতন

পাতন হচ্ছে কোনো তরল মিশ্রণ থেকে উপাদান পদার্থগুলোকে বিবিধ বাষ্পীভবন ও ঘনীভবন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আলাদা করা। এটা হতে পারে সম্পূর্ণভাবে পৃথক করা, অথবা এটা আংশিকভাবে পৃথকও হতে পারে যাতে মিশ্রণের ঐ পদার্থটির ঘনমাত্রা বাড়ে।

বিজ্ঞান প্রজেক্ট
                                               

বিজ্ঞান প্রজেক্ট

বিজ্ঞান প্রজেক্ট হল বিজ্ঞান বিষয়ক একটি বিশেষ সমস্যা সমাধানের জন্য পূর্ণাঙ্গ কর্মধারা। প্রজেক্টের মূল কথাই হল- এটা সমস্যাভিত্তিক ও সকর্মক। একটি প্রশ্নের উত্থাপন আছে এখানে অর্থাৎ একটি সমস্যার প্রত্যভিজ্ঞা এবং সেই সমস্যার নিদিষ্ট সমাধানের জন্য কর্ম পরিকল্পনা, কর্ম সম্পাদন, ও সিদ্ধান্তে পৌছানো - সব মিলে একটি সক্রিয়তা, একটি কর্মতৎপরতা। প্রজেক্টের মূল লক্ষ্য হল শেষ পর্যন্ত একটি সমাধানে উপনীত হওয়া - একটি জবাব খুঁজে পাওয়া।

ভৌত রসায়ন
                                               

ভৌত রসায়ন

ভৌত রসায়ন হল রসায়ন বিজ্ঞানের একটি প্রধান শাখা । এই শাখায় কোনো রাসায়নিক বিক্রিয়ার বাহ্যিক ও অভ্যন্তরীণ পরিবর্তণ এবং ঘটনাবলীকে বিজ্ঞানের বিভিন্ন মৌলিক সূত্রের প্রয়োগে ব্যাখ্যা করা হয়। এছাড়াও, এই শাখায় পদার্থের ভৌত অবস্থা এবং বিভিন্ন প্রভাবকের উপস্থিতিতে তাদের পরিবর্তণ সম্বন্ধে পুংখানুপুঙ্খরূপে আলোচনা করা হয়। কোনো রাসায়নিক ব্যবস্থায় অণু-পরমাণুর অবস্থা, শক্তি ইত্যাদির পরিবর্তণও এই শাখার আলোচ্য বিষয়।

ফেলোস অফ দ্য রয়াল এশিয়াটিক সোসাইটি অফ গ্রেট ব্রিটেন অ্যান্ড আয়ারল্যান্ড
                                               

ফেলোস অফ দ্য রয়াল এশিয়াটিক সোসাইটি অফ গ্রেট ব্রিটেন অ্যান্ড আয়ারল্যান্ড

রয়্যাল এশিয়াটিক সোসাইটি অফ গ্রেট ব্রিটেন এবং আয়ারল্যান্ডের ফেলোরা হলেন এমন ব্যক্তি যারা রয়্যাল এশিয়াটিক সোসাইটির কাউন্সিল দ্বারা নির্বাচিত হয়েছেন যাতে "এশিয়া সম্পর্কিত বিজ্ঞান সাহিত্য এবং শিল্পকলার সাথে সংযুক্ত এবং উৎসাহের জন্য" বিষয়গুলির তদন্ত আরও এগিয়ে যায়।