Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশ




                                               

ডিজিটাল বাংলাদেশ

‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ একটি প্রত্যয়, একটি স্বপ্ন,যা বাংলাদেশের সাম্প্রতিক সময়ে সবচেয়ে আলোচিত বিষয়। বিরাট এক পরিবর্তন ও ক্রান্তিকালের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এখন এগিয়ে চলছে। একুশ শতকে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্য নিয়ে ৬ জানুয়ারি ২০০৯ শেখ হাসিনা বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দ্বিতীয়বারের মতো শপথ নেন। ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের বছরে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ এবং তথ্যপ্রযুক্তিনির্ভর ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণই ছিল তাদের নির্বাচনী ইশতেহারের প্রধান বিষয়।

                                               

বাংলাদেশে গাঁজা

মার্কিন রাষ্ট্রপতি, রোনাল্ড রেগনের সাথে মিল রেখে স্বৈরশাসক এরশাদের অধীনে বাংলাদেশ সরকার ১৯৮৭ সালে গাঁজা চাষ নিষিদ্ধ করেছিল এবং ১৯৮৯ সালে এর বিক্রি নিষিদ্ধ করেছিল। বাংলাদেশে গাঁজা নিয়ন্ত্রণকারী বর্তমানে আইন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-১৯৯০ হিসাবে পরিচিত। এই আইন অনুসারে দুই কেজি ওজনের বেশি গাঁজা বহনের জন্য মৃত্যুদণ্ড হতে পারে।

                                               

বাংলাদেশের পথশিশু

পথশিশু শব্দটি সেই সব শিশুদের প্রকাশ করে, যাদের কাছে রাস্তাই তাদের স্বাভাবিক বাসস্থান এবং/অথবা জীবিকা নির্বাহের উৎস হয়ে উঠেছে এবং তারা দায়িত্বশীল কোনো প্রাপ্তবয়স্ক কর্তৃক সুরক্ষিত, পথ নির্দেশনা প্রাপ্ত ও পরিচালিত নয়।

                                               

বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধা

১৯৭১ ইংরেজি সনে তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের শোষণ ও অত্যাচারের হাত থেকে পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালী নাগরিকদের বাঁচানোর জন্যে যাঁরা জীবন বাজি রেখে মুক্তি-সংগ্রামে বিভিন্ন কর্মকান্ডে অংশ গ্রহণ করেছিলেন তাঁরা বাংলাদেশের মুুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সমধিক পরিচিত। তাঁদের সংগ্রামের ফলেই বর্তমান স্বাধীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের অস্তিত্ব সম্ভব হয়েছে। তবে রাজাকারদের জন্যে মুক্তিযোদ্ধারা বহু ষড়যন্ত্রের শিকার হয়েছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশ ঘটিত হবাপর কিছু রাজাকারের শাস্তি হয়েছে।