Back

ⓘ ভেনেজুয়েলা




ভেনেজুয়েলা
                                     

ⓘ ভেনেজুয়েলা

ভেনেজুয়েলা দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের উত্তর উপকূলে ক্যারিবীয় সাগরের তীরে অবস্থিত রাষ্ট্র। ভেনেজুয়েলার ভূপ্রকৃতি উত্তরে আন্দেস পর্বতমালার সুউচ্চ পর্বতচূড়াগুলি থেকে দক্ষিণের ক্রান্তীয় অরণ্য পর্যন্ত বিস্তৃত। দেশের মধ্যভাগে আছে তৃণময় সমভূমি এবং রুক্ষ উচ্চভূমি। উপকূল জুড়ে রয়েছে নয়নাভিরাম বেলাভূমি। তীর থেকে অদূরে অনেকগুলি দ্বীপ ভেনেজুয়েলার সীমানার অন্তর্গত। ভেনেজুয়েলার রাজধানী ও বৃহত্তম শহরের নাম কারাকাস।

ভেনেজুয়েলা ৩০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে একটি স্পেনীয় উপনিবেশ ছিল। ১৯শ শতকের শুরুতে দক্ষিণ আমেরিকার যেসব স্পেনীয় উপনিবেশ প্রথম স্বাধীনতা ঘোষণা করে, তাদের মধ্যে ভেনেজুয়েলা ছিল অন্যতম। পূর্বে এটি ভেনেজুয়েলা প্রজাতন্ত্র নামে পরিচিত ছিল। ১৯৯৯ সালে এর নাম সরকারীভাবে বদলে ভেনেজুয়েলা বলিভারীয় প্রজাতন্ত্র রাখা হয়। নামটি ভেনেজুয়েলার স্বাধীনতাতে অবদান রাখা সামরিক নেতা সিমন বলিভারের নামে রাখা। স্বাধীনতা লাভেপর ভেনেজুয়েলা অন্তর্সংঘাত ও স্বৈরশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ের মধ্য দিয়ে পার হয়েছে। ভেনেজুয়েলার রাজনীতিতে সামরিক বাহিনীর শক্তিশালী প্রভাব আছে। ১৯৫০-এর দশকের শেষ থেকে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত সরকার দেশটি শাসন করে আসছে।

সংখ্যাগরিষ্ঠ ভেনেজুয়েলাবাসী মেস্তিসো, অর্থাৎ ইউরোপীয় ও আদিবাসী আমেরিকানদের সংকর জাতি। এটি আদিতে একটি কৃষিপ্রধান দেশ ছিল। কিন্তু বিংশ শতাব্দীর শুরুতে এখানে পেট্রোলিয়ামের বিশাল মজুদ আবিষ্কৃত হওয়াপর অর্থনীতির গতি পাল্টে যায়। ১৯৭০-এর দশক থেকে সরকার নিয়ন্ত্রিত সংস্থা তেলের উৎপাদন দেখাশোনা করছে। যদিও তেল শিল্প প্রচুর সম্পদের সৃষ্টি করেছে, তা সত্ত্বেও ভেনেজুয়েলাতে ধনী ও দরিদ্রের মধ্যে রয়েছে সুস্পষ্ট বিভাজন। ব্যবসায়ী, তেল কোম্পানির কারিগর, এবং বিরাট জমিদারেরাই দেশের অধিকাংশ সম্পদের মালিক। অন্যদিকে শহরের অদক্ষ শ্রমিক ও গ্রামের খামারকর্মীরা তুলনামূলকভাবে দরিদ্র অবস্থায় জীবন যাপন করে।

                                     

1. ভূগোল

ভূগোলিক দিক থেকে এটি দক্ষিণ আমেরিকার একটি কম গুরুত্বপূর্ণ রাষ্ট্র, যার পশ্চিমে, কলম্বিয়া এবং পূর্বে গায়ানা এবং দক্ষিণে ব্রাজিল এর রাজধানী কারাকাস তার সর্ব উত্তরে।

                                     

2. অর্থনীতি

ভেনেজুয়েলার রাজস্বের সিংহভাগ আসে খনিজ তেল বিক্রি করে। ১৯৮৯ সালে এক বার খাদ্যসঙ্কটের মুখে পড়তে হয়েছিল ভেনেজুয়েলাকে। সেসময়ে পরিস্থিতি সামলে নেয় তৎকালীন সরকার। ২০১৩ সালে চাভেসের উত্তরসূরি নিকোলাস মাদুরোর সরকার তেলের দাম কমিয়ে দিয়ে বিপুল রাজস্বহানি ডেকে আনে । চূড়ান্ত আর্থিক অব্যবস্থায় তীব্র খাদ্যসঙ্কট ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেশে। বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয় খাবার। ভেঙে পড়ে অর্থনীতি।

২০১৮ সালের পরিসংখ্যান অনুসারে ভেনেজুয়েলার জনসংখ্যা ছিল ২৮,৮৮৭,১১৮।

                                     

3. সংস্কৃতি

বেসবল এই দেশের জনপ্রিয় খেলা। যেখানে অন্য ল্যাটিন দেশগুলো ফুটবল প্রধান সেখানে এই দেশ ব্যাতিক্রম। তবে ফুটবলও জনপ্রিয়। বিশ্বে ৩২ তম সূচকে অবস্থান করছে। ২০০৭ সালে কোপা আয়োজন করে। ২০১৫ কোপায় ব্রাজিলের বিরুদ্ধে গোলদাতা মিকু বর্তমানে ইন্ডিয়ান সুপার লীগ এ খেলছেন।