Back

ⓘ বিষয়শ্রেণী:আইন




                                               

সামরিক শাসন

সামরিক শাসন হল সর্বোচ্চ পর্যায়ের সামরিক কর্তার শাসন যেখানে শাসনকর্তা হন সামরিক বাহিনীর প্রধান স্বয়ং। পূর্ববর্তী সরকারের প্রশাসনিক, আইনি ও বিচারবিভাগীয় ব্যবস্থার বাতিলকরনের মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করেন উক্ত সামরিক প্রধান। সাময়িকভাবে সাধারণ শাসকদের ব্যার্থতায় তাদের হাত থেকে সমস্ত ক্ষমতা সামরিক শাসকের হাতে যায় ও কার্যকরী হয়। সরকার জনগণের ওপর জোর করে সামরিক শাসন চাপিয়ে দিতে পারে আইনের শাসনকে বলবৎ করার নামে। সাধারণত প্রাসাদ বিপ্লব বা প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ২০০৬ এবং ২০১৪ সালে থাইল্যান্ডে যেমন ঘটেছিল সামরিক শাসন জারী হতে পারে। গন আন্দোলন দমনে ১৯৮৯ এ চীনের তিয়েনআনমেন স্কোয়ার, ১৯৮৯ বা ২০০ ...

                                               

নূর-উল-আইন

নূর-উল-আইন আলোর চোখ ; ইরানের সম্রাজ্ঞী ফারাহ পাহলভির জন্য তৈরি টায়রায় খচিত প্রধান হীরক খন্ড। টায়রাটি ১৯৫৮ সালে শাহ মোহাম্মদ রেজা পাহলভির বিয়ের সময় তৈরি করা হয়েছিল। মনে করা হয় এটি ভারতের গোলকোন্দা খনি থেকে উত্তোলন করা হয়েছিল এবং ঊনবিংশ শতাব্দীতে নাদির শাহ আফসার ভারত জয় করে ইরানের ইম্পেরিয়াল কালেকশনে নিয়ে আসেন। এটি বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ গোলাপি হীরক খন্ড এবং মনে করা হয় তা আরও বড় একটি গোলাপি হীরক খন্ডের অংশ ছিল। ঐ বড় হীরক খন্ডটি দুই ভাগ করা হয় যার একটি অংশের নাম হয় নূর-উল-আইন এবং অন্যটি হয় দরিয়া-ই-নূর হীরা। দুটো অংশই এখন ইরানের মুকুটের রত্নের অংশ।

                                               

ব্ল্যাকের আইন অভিধান

ব্ল্যাকের আইন অভিধান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বহুল ব্যবহৃত আইন অভিধান। এটি হেনরি ক্যাম্পবেল ব্ল্যাক প্রতিষ্ঠা করেছেন। এই অভিধান আদালতের মতামত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের অনেক মামলায় গৌণ তথ্যসূত্র হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে। এই অভিধানের সর্বশেষ সংস্করণ এবং সংক্ষেপিত ও পকেট সংস্করণ; কোনো শিক্ষার্থী বা আইনে অনভিজ্ঞ ব্যক্তি কোনো সমস্যায় পরলে সে সমস্যাটিকে সাধারণভাবে বুঝতে উপযোগী ভূমিকা পালন করে।

                                               

বাংলাদেশের আইন কলেজের তালিকা

                                               

যুদ্ধাপরাধ

যুদ্ধাপরাধ হচ্ছে কোন যুদ্ধ বা সামরিক সংঘাত চলাকালীন সময়ে কোন ব্যক্তি কর্তৃক বেসরকারী জনগনের বিরুদ্ধে সংগঠিত, সমর্থিত নির্দিষ্ট সংজ্ঞায়িত অপরাধ কর্মকান্ডসমূহ। আন্তর্জাতিক মানবাধিক আইন অনুসারে যুদ্ধ কালিন সংঘাতের সময় বেসরকারী জনগনকে খুন, লুন্ঠন, ধর্ষণ, কারাগারে অন্তরীন ব্যক্তিকে হত্যা, নগর, বন্দর, হাসপাতাল কোন ধরনের সামরিক উস্কানি ছাড়াই ধ্বংস প্রভৃতি যুদ্ধাপরাধ হিসেবে বিবেচিত হয়। ১৮৯৯ ও ১৯০৭ সালের হেগ কনভেনশন সর্বপ্রথম যুদ্ধাপরাধ সংক্রান্ত আইন সমূহ লিপিবদ্ধ করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সংগঠিত হওয়া নূরেমবার্গের হত্যাকাণ্ড ও অপরাধ বিচার সবচেয়ে আলোচিত যুদ্ধাপরাধ বিচার। আধুনিক যুদ্ধাপরাধের স ...