Back

ⓘ এয়ারট্রেন জেএফকে




এয়ারট্রেন জেএফকে
                                     

ⓘ এয়ারট্রেন জেএফকে

এয়ারট্রেন জেএফকে নিউ ইয়র্ক সিটির জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে রেল পরিষেবা পরিবেশনকারী একটি ৮.১ মাইল দীর্ঘ উত্তোলিত পিপল মুভার ব্যবস্থা ও বিমানবন্দর রেল সংযোগ। চালকবিহীন ব্যবস্থাটি ২৪ ঘণ্টা/৭ দিন পরিচালনা করা হয় এবং নিউইয়র্ক সিটি বোরো কুইন্সের মধ্যে তিনটি লাইন ও দশটি স্টেশন নিয়ে গঠিত। এটি বিমানবন্দরের টার্মিনালসমূকে কুইন্সের হাওয়ার্ড বিচের নিউ ইয়র্ক সিটি সাবওয়ের সাথে এবং লুইং আইল্যান্ড রেল রোড ও কুইন্সের জ্যামাইকের সাবওয়ের সাথে সংযুক্ত করে। বোম্বার্ডিয়ার ট্রান্সপোর্টেশন বিমানবন্দর পরিচালনাকারী সংস্থা পোর্ট অথরিটি অব নিউ ইয়র্ক অ্যান্ড নিউ জার্সির সাথে চুক্তি অনুযায়ী এয়ারট্রেন জেএফকে পরিচালনা করে।

জেএফকে বিমানবন্দরের সাথে একটি রেলপথ সংযোগ ১৯৬৮ সালে প্রথম প্রস্তাবিত হয়। জেএফকে বিমানবন্দর রেল সংযোগ তৈরির জন্য ১৯৯০-এর দশক পর্যন্ত বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রকাশিত হয়, যদিও তহবিলের অভাবে এগুলি কার্যকর করা হয়নি। সেই সময়ে জেএফকে এক্সপ্রেস সাবওয়ে পরিষেবা এবং শাটল বাসগুলি জেএফকে ও এর আশেপাশে একটি অজনপ্রিয় পরিবহন ব্যবস্থা সরবরাহ করে। জেএফকে-তে একটি নিবেদিত পরিবহন ব্যবস্থার গভীরতর পরিকল্পনা ১৯৯০ সালে শুরু হয়, তবে শেষ পর্যন্ত পরিবহন ব্যবস্থাটি সরাসরি রেল সংযোগ থেকে আন্তঃ-বরো পিপল মুভারে পরিবর্তিত হয়। বর্তমান পিপল-মুভার ব্যবস্থার নির্মাণ কাজ ১৯৯৮ সালে শুরু হয়। নির্মাণের সময়, এয়ারট্রেন জেএফকে বেশ কয়েকটি মামলা-মোকদ্দমার সম্মুখীন হয় এবং ব্যবস্থার পরীক্ষার মূলক চলাচলের সময়ে একজন চালকের মৃত্যু হয়। অনেক বিলম্বের পরে ব্যবস্থাটি ২০০৩ সালের ১৭ ই ডিসেম্বর চালু করা হয়। তাপর থেকে এয়ারট্রেন জেএফকে ব্যবস্থাটি ম্যানহাটন পর্যন্ত বর্ধিতকরণ সহ বেশ কয়েকটি উন্নতির প্রস্তাব দেওয়া হয়।

জামাইকা বা হাওয়ার্ড বিচে যে সমস্ত যাত্রী প্রবেশ করেন বা প্রস্থান করেন তাদের অবশ্যই $৭.৭৫ ভাড়া দিতে হয়, বিমানবন্দরের অভ্যন্তরে ভ্রমণকারী যাত্রীরা বিনামূল্যে চড়তে বা যাত্রা করতে পারেন। ব্যবস্থাটি মূলত প্রতি বছর ৪ মিলিয়ন ভাড়া প্রদানকারী ও ৮.৪ মিলিয়ন আন্ত-টার্মিনাল যাত্রী বহন করার আনুমোদন প্রাপ্ত। এয়ারট্রেন খোলাপর থেকে ধারাবাহিকভাবে এই অনুমান ছাড়িয়ে গেছে। ব্যবস্থাটি ২০১৯ সালে ৮.৭ মিলিয়নের বেশি ভাড়া প্রদানকারী যাত্রী ও ১২.২ মিলিয়ন আন্তঃ -টার্মিনাল যাত্রী পরিবহন করে।