Back

ⓘ জাপানের বার্মা বিজয়




জাপানের বার্মা বিজয়
                                     

ⓘ জাপানের বার্মা বিজয়

বার্মায় জাপানি আক্রমণ তথা জাপানের বার্মা অভিযান দ্বারা জাপানের বার্মা বিজয় -কে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় থিয়েটার-এর উদ্বোধনী পর্ব বলা যায় যেটি ১৯৪২ থেকে ১৯৪৪ সাল পর্যন্ত চার বছরেরও বেশি সময় ধরে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। অভিযানের প্রথম বছরে জাপানি সেনাবাহিনী ব্রিটিশ সাম্রাজ্য এবং চীনা বাহিনীকে বার্মা থেকে হটে যেতে বাধ্য করে। তারপরেই বার্মায় জাপানি দখল কায়েম হয় এবং একটি নামমাত্র স্বতন্ত্র বার্মিজ প্রশাসনিক সরকার গঠিত হয়।

                                     

1.1. পটভূমি বার্মায় ব্রিটিশ শাসন

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরুর আগে বার্মা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের অংশ ছিল। ১৯ শতাব্দীর তিনটি ইঙ্গ-বার্মা যুদ্ধের দ্বারা ক্রমবর্ধমানভাবে দখল এবং সংযুক্তির মাধ্যমে বার্মা ব্রিটিশ সাম্রাজ্যভূক্ত হয়। প্রথমদিকে এটি ব্রিটিশ ভারতের অংশ হিসাবে শাসিত হত। পরে বার্মাকে ভারত শাসন আইন ১৯৩৫ অনুসারে একটি পৃথক উপনিবেশ হিসাবে গঠন করা হয়েছিল। ব্রিটিশ শাসনাকালে বার্মায় যথেষ্ট পরিমাণে অর্থনৈতিক বিকাশ হয়েছিল কিন্তু সংখ্যাগরিষ্ঠ বার্মিজ সম্প্রদায় ক্রমবর্ধমানভাবে অশান্ত হয়ে উঠছিল। তাদের উদ্বেগগুলির মধ্যে একটি ছিল অনেক নতুন নতুন শিল্পের জন্য শ্রমশক্তি হিসাবে ভারতীয় শ্রমিকদের আমদানি করা এবং জমিতে রফতানিযোগ্য ফসলের আবাদ করে গ্রামাঞ্চলে ঐতিহ্যবাহী সমাজের ক্ষয় হওয়ায় বা ভারতীয় মহাজনদের কাছে বন্ধক হিসাবে সে গুলির ব্যবহার করা হতে থাকায় স্থানীয়রা বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠতে থাকে। স্বাধীনতা পাওয়ার জন্য চাপ ক্রমে বাড়তে থাকে। ফলে বার্মা আক্রমণের সময় অনেকে বার্মার ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠা প্রতিরক্ষায় অবদান রাখতে অনিচ্ছুক ছিল এবং তাদের অনেকেই আন্দোলনে যোগ দিয়ে জাপানিদের সহায়তা করেছিল।

এই সুদূর পূর্বের সম্পত্তি রক্ষার জন্য ব্রিটিশদের পরিকল্পনা জড়িত ছিল কেবল মাত্র ভারতের সাথে সিঙ্গাপুর এবং মালয়ের সাথে সংযোগকারী এয়ারফিল্ড নির্মাণের আগ্রহের সাথে। তারা এই পরিকল্পনায় বিবেচনা করে নি যে জার্মানির সাথে তখন ব্রিটেনও যুদ্ধে লিপ্ত ছিল। এবার জাপান যখন যুদ্ধে প্রবেশ করে তখন এই সমস্ত সম্পত্তি রক্ষার জন্য তাদের প্রয়োজনীয় বাহিনী সেখানে উপস্থিত ছিল না। জাপানি হুমকির সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা কম ভেবে বার্মাকে তখন সামরিক "ব্যাকওয়াটার" হিসাবে বিবেচনা করা হয়েছিল।

বার্মা আর্মি -এর কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল থমাস হাটন এর রেঙ্গুনের সদর দফতর সহ দেশ রক্ষার জন্য হাতে ছিল কেবলমাত্র ১৭ তম ভারতীয় পদাতিক বিভাগ এবং ১ম বার্মা বিভাগ। যদিও চিয়াং কাই-শেক এর অধীনে চীনা জাতীয়তাবাদী সরকারের কাছ থেকে সহায়তা প্রত্যাশা করা হয়েছিল। ব্রিটিশ ইন্ডিয়ান আর্মির সাধারণ শান্তির সময়ের শক্তি ছিল ২০০,২০০। যুদ্ধের সময় সেটিরই বারোগুণেরও বেশি প্রসারিত করার ক্ষমতা ছিল। কিন্তু ১৯৪১ সালের শেষদিকে এই সম্প্রসারণটির প্রকৃত অর্থ ছিল অপ্রতুল অস্ত্র-সজ্জায় সজ্জিত বেশিরভাগ ইউনিট যাদের প্রশিক্ষণও ছিল অনুপযুক্ত। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে বার্মায় ভারতীয় ইউনিটের এই জাতীয় প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র-শস্ত্র ছিল মূলত ভারতের পশ্চিমের মরুভূমি অভিযান বা উত্তর পশ্চিম সীমান্তের অভিযানের জন্য প্রাপ্ত অভিজ্ঞতা যা কোনও ভাবেই জঙ্গলের উপযোগী ছিল না। বার্মা রাইফেলস এর যোদ্ধারা যাঁদের দিয়ে প্রথম গঠন করা হয়েছিল ১ম. বার্মা বিভাগ - তাঁরা মূলত কেবল অভ্যন্তরীণ সুরক্ষা বাহিনী হিসাবে উঠে এসেছিলেন। এঁরা অনেকে বার্মার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে থেকে এসেছিলেন যেমন কারেন। তাঁরা বার্মার সৈন্যদের মধ্যে দ্রুতগতিতে প্রসারিত হয়ে ছড়িয়ে পড়েছিলেন। নিত্যনতুন নিয়োগের ফলে তাঁদের মধ্যে সরঞ্জামের অভাবের সাথে সাথে ছিল সমন্বয়েরও অভাব।

                                     

2. তথ্যসূত্র

  • Slim, William ১৯৫৬। Defeat into Victory । London: Cassell। আইএসবিএন 0-304-29114-5।
  • Jackson, Ashley ২০০৬। The British Empire and the Second World War । London: Hambledon Continuum। আইএসবিএন 978-1-85285-517-8।
  • Tinker, Hugh ১৯৭৫। "A forgotten long march: the Indian exodus from Burma, 1942"। Journal of Southeast Asian Studies । 6 01: 1–15। ডিওআই:10.1017/S0022463400017069।
  • Government of India ১৯৪৫। Famine Inquiry Commission, Report on Bengal । New Delhi: Government of India । সংগ্রহের তারিখ ২০ এপ্রিল ২০১১ ।
  • Allen, Louis ১৯৮৪। Burma: The Longest War । Dent। আইএসবিএন 0-460-02474-4।
  • Rodger, George ১০ আগস্ট ১৯৪২। "75.000 Miles"। Life । Time Inc। পৃষ্ঠা 61–7। আইএসএসএন 0024-3019। উদ্ধৃতি টেমপ্লেট ইংরেজি প্যারামিটার ব্যবহার করেছে link
  • Wen-Chin Chang ১৬ জানুয়ারি ২০১৫। Beyond Borders: Stories of Yunnanese Chinese Migrants of Burma । Cornell University Press। আইএসবিএন 978-0-8014-5450-9।
  • Bayly, Christopher; Tim Harper ২০০৫। Forgotten Armies । London: Penguin। আইএসবিএন 0-140-29331-0।
                                     

3. বহিঃসংযোগ

  • Burma Star Association
  • Sino-Japanese Air War 1937–45, see 1941 and 1942
  • A Forgotten Invasion: Thailand in Shan State, 1941–45
  • Phayap Army
  • "নং. 37728"। দ্যা লন্ডন গেজেট সম্পূরক ইংরেজি ভাষায়। ১৭ সেপ্টেম্বর ১৯৪৬। উদ্ধৃতি টেমপ্লেট ইংরেজি প্যারামিটার ব্যবহার করেছে link "Operations in Eastern Theatre, Based on India from March 1942 to 31 December 1942", official despatch by Field Marshal The Viscount Wavell
  • Burma Campaign, Orbat for 1942 campaign, Japan, Commonwealth, Chinese, USA
  • ওয়েব্যাক মেশিনে Thailands Northern Campaign in the Shan States 1942–45 ২৭ অক্টোবর ২০০৯ তারিখে আর্কাইভকৃত
  • Siam Goes to War